ব্রেকিং নিউজ
bjp-president-jp-nadda-held-workers-meet-in-kolkata
Nadda: বঙ্গভঙ্গে আপত্তি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের, সাংসদ-বিধায়কদের মুখবন্ধের নিদান নাড্ডার

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-06-09 21:31:41


বঙ্গ সফরের দ্বিতীয় দিনে একগুচ্ছ কর্মসূচি ছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার। বৃহস্পতিবার বেলুড় মঠ পরিদর্শন করেন তিনি। পাশাপাশি ওয়েস্টইন হোটেল, সায়েন্স সিটি এবং কলামন্দিরে বিজেপি নেতা-কর্মীদের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন জেপি নাড্ডা। আগামি বছরের পঞ্চায়েত ভোট এবং চব্বিশের সাধারণ নির্বাচনের রূপরেখা তৈরি করতেই এই বৈঠক বলে সূত্রের খবর। এদিনের বৈঠকে বিজেপি সভাপতি বলেন, 'লালু প্রসাদ যাদবের সামনে মমতা কী? লালুজি একসময় বলতেন 

আমি সংবিধান, আমি আইন, এখন কোথায় লালু প্রসাদ?জেলে আছেন, খারাপ কাজ করলে বেশি দিন চলতে পারে না। ঠিক কাজ করলে আপনারা এগিয়ে যাবেন। বাংলায় সরকার পরিবর্তনে দেরি হচ্ছে, কিন্তু এই পরিবর্তন একদিন আসবেই।' 

তাঁর কটাক্ষ,'তৃণমূল মানে পিসি-ভাইপোর পার্টি।' তাঁর পরামর্শ, 'একাধিক দুর্নীতির বিরুদ্ধে কোর্টে লড়াই আইনজীবীরা করবেন আর আমরা আমরা রাজনৈতিক ভাবে মাঠে-ময়দানে নেমে লড়াই করবো।' তিনি জানান, আমি শুধু নেতা নই, আমি একজন দলের কার্যকর্তাও। দলের অনুশাসন মেনে চলি, কাজ করি। আপনারাও সে কথা মাথায় রাখুন। কাজ করুন, প্রতিনিয়ত মানুষের সাথে জনসংযোগ রাখুন। এলাকায় ভালো, জনপ্রিয় মানুষ থাকলে যোগাযোগ রাখুন। তাঁরা আমাদের দলে এলে যদি দলের ভালো হয় দলকে জানান সে কথা। এদিকে, গঠনতন্ত্র মেনে রাজ্য সংগঠনে পরিবর্তন আনতে চলেছে বিজেপি। আগে ছিল রাজ্য, জেলা, মণ্ডল, শক্তিকেন্দ্র, বুথ কমিটি। 

এবার সেই শক্তিকেন্দ্র ও বুথকে একসঙ্গে করে অঞ্চলভিত্তিক সংগঠন করতে চলেছে বিজেপি। পঞ্চায়েত এবং লোকসভা নির্বাচনের আগে এই রদবদলের সিদ্ধান্ত বড়। এমনটাই রাজ্য বিজেপি সূত্রে খবর। যেহেতু বুথস্তরে সংগঠনের হাল ধরতে লোক পাওয়া যাচ্ছে না। তাই এই সিদ্ধান্ত গেরুয়া শিবিরের। অপরদিকে, সায়েন্স সিটির বৈঠকেও একাধিক পরামর্শ দেন জেপি নাড্ডা। 

এদিন তিনি দলীয় বিধায়কদের জনসংযোগের সময় বেঁধে দেন। রোজ সকাল ৯টা থেকে ১১টা নিজের বাড়িতে সাধারণ মানুষের সঙ্গে দেখা করতে হবে, কথা বলতে হবে। স্পষ্ট করে দেন তিনি। কারও কোনও সার্টিফিকেট অথবা কোনও দাবি আছে কিনা, সেই কথা শুনতে হবে। এমনটাই নির্দেশ সর্বভারতীয় সভাপতির। 

তিনি বলেছেন, 'মাসের মধ্যে ৫ দিন এলাকা পরিদর্শনে বেরোতে হবে। ছোট ছোট অঞ্চল ধরে পরিদর্শন করুন। এলাকার কোনো সমস্যা থাকলে সুরাহা করার চেষ্টা করুন। স্থানীয় প্রশাসন কথা না শুনলে বার অ্যাসোসিয়েশনে যেতে হবে। জেলা শাসক বা পুলিস সুপার কথা না শুনলে আন্দোলনে নামতে হবে।' পাশাপাশি পৃথক উত্তর বঙ্গ রাজ্যের দাবিতে এযাবৎকাল বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন একাধিক বিজেপি জনপ্রতিনিধি। বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের বাংলা বিভাজনে সায় নেই। বঙ্গ সফরে এসে স্পষ্ট করে দেন জেপি আড্ডা। এদিন তিনি স্পষ্ট জানান, বাংলা বিভাজন নিয়ে কোনও বিধায়ক-সাংসদ আলটপকা মন্তব্য করতে পারবে না।'






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন