Durga Puja: কলকাতায় এ বার ৩০০ কোটির পুজো, শহরের বিভিন্ন প্রান্তে পড়েছে হোর্ডিং

কলকাতাঃ বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপুজো একেবারে দোঁড়গোড়ায়। হাতে আর মাত্র ৩৮ দিন বাকি পুজোর। তবে করোনা অতিমারীতে এবারে শহরতলিতে পুজোর বাজেট কমেছে অনেকটাই। সেক্ষেত্রে ক্লাবের পুজোগুলো অনেকটাই ছোট হয়ে আসছে।কয়েকবছর আগে কলকাতায় ছেয়ে গিয়েছিল 'এত বড় সত্যি' হোর্ডিংয়ে । দেশপ্রিয় পার্কের সেই 'সত্যি' অর্থাৎ বিশালাকৃতির দুর্গা ঠাকুর দেখতে চতুর্থী থেকে ভিড় জমাতে শুরু করেছিলেন শহর থেকে শহরতলির সাধারণ মানুষ। এবারে সেই শহরেই  দেখা যাবে  ৩০০ কোটির  দুর্গাপুজো! দেখা যাবে  বড়িশা সার্বজনীন পুজো প্রাঙ্গনে ।

৩০০ কোটির মণ্ডপ যেনো একটু একটু করে গড়ে উঠছে বড়িশার পুজো প্রাঙ্গনে। এরমধ্যেই শহরের বিভিন্ন প্রান্তে হোর্ডিং পড়তে শুরু করেছে। হোর্ডিংয়ে লেখা 'এ বার ৩০০ কোটির পুজো!!!'। কিন্তু কে বা কারা এই বিশাল বাজেটের পুজো করছেন, তার কোনও উল্লেখ সেখানে নেই। করোনা অতিমারীর সময়ে যেখানে মানুষের নুন আনতে পান্তা ফুরোচ্ছে। পুজো হলেও, সব ক্লাব বাজেট কমিয়ে দিয়েছে, সেখানে এত কোটি টাকার পুজো কীভাবে করা সম্ভব? তা নিয়ে শুরু হয়েছে বিস্তর জল্পনা। কিন্তু ৩০০ কোটির পুজো হচ্ছেই বড়িশাতে।

এই অতিমারীতে কিভাবে সম্ভব এতো বড় বাজেটের পুজো করার। বড়িশা ক্লাবের কর্মকর্তারা জানিয়েছে, "আমাদের থিম ৩০০ কোটির পুজো, কিন্তু ২০২১ সালের পুজোর বাজেট একেবারেই ৩০০ কোটি টাকা নয়। বরং অন্যান্য বারের তুলনায় বাজেট এ বারে কম।" কিন্তু বাজেট কম হোক বা বেশি থিম নিয়ে যে গল্প বড়িশার এ বারের থিম মেকার কৃশানু পাল শোনালেন, তাও বেশ রোমহর্ষক।

এবারে বড়িশা সর্বজনীনের থিম একেবারেই ইতিহাসে ঠাসা এক গল্প। এবারে বড়িশা সর্বজনীনের মণ্ডপে উঠে আসবে সেই ১৬০৬ সালের পুজোর ইতিহাস। আর তখনকার ৯ লক্ষ টাকার বর্তমান বাজারমূল্য ৩০০ কোটি। তাই এবার বড়িশা সর্বজনীনের পুজো ৩০০ কোটির পুজো বলাই যায়। 


Tags:
Durga Puja
budget
kolkata