কুঁদঘাটে ম্যানহোলে মৃত শ্রমিকদের ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেবে কলকাতা পুরসভা

বৃহস্পতিবার কুঁদঘাটে মর্মান্তিকভাবে ম্যানহোল পরিস্কার করতে নেমে তলিয়ে যায় ৪ জন ঠিকা শ্রমিক। কলকাতা পুরসভার পাম্পিং স্টেশনের কাজ চলছিল। ৪ শ্রমিককে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠাতে ২ ঘন্টার বেশি সময় লেগে যায় বলেই অভিযোগ। অনেক পরে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর ডুবুরিরা তাঁদের উদ্ধার করে। কিন্তু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরই চারজনের মৃত্যু হয়।

এই ঘটনার পর পুরসভার কাজকর্ম নিয়ে প্রশ্ন ওঠে বিভিন্ন মহলে। নির্দিষ্ট সুরক্ষাবিধি ছাড়াই কিভাবে ওই ঠিকা শ্রমিকরা ম্যানহোলে নামানো হল সেটা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। ফলে নড়েচড়ে বসে কলকাতা পুরসভা। সূত্রের খবর, মৃত ৪ জনকে ক্ষতিপূরণ দেবে কলকাতা পুরসভা। নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি আহতদেরও দেওয়া হবে ১ লাখ টাকা করে। এই ঘটনার তদন্তে ৩ সদস্যের কমিটিও গড়েছে কলকাতা পুরসভা। 

বিরোধীদের অভিযোগ, বারবারই একই ধরণের দুর্ঘটনা ঘটছে, তবুও হেলদোল নেই রাজ্য প্রশাসনের। কেন কোনও সুরক্ষা সরঞ্জাম ছাড়াই শ্রমিকদের ম্যানহোলে নামানো হচ্ছে সেই নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। এরমধ্যেই আসরে নামে পুরসভা। তড়িঘড়ি ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করে তদন্ত কমিটি গঠন করে ফিরহাদ হাকিমের নিয়ন্ত্রণাধীন সংস্থা। জানা যাচ্ছে, বৃহস্পতিবার সকালে কুঁদঘাটের কাছে ১১৪ নম্বর ওয়ার্ডে একটি পাম্পিং স্টেশনের জন্য পুরোনো জলের লাইনের সঙ্গে নতুন পাইপলাইন জোড়ার কাজ চলছিল।

 সেটা পরিস্কার করতে সাতজন ঠিকা শ্রমিক নীচে নামে বেলা ১২টা নাগাদ।  সহকর্মীদের চোখের সামনেই চারজন তলিয়ে যায়। পুরসভা সূত্রে জানা যাচ্ছে, ওই ম্যানহোলে যে জল আছে সেটা ধারণা ছিল না কারোর। তাই দীর্ঘদিনের জমা জল ও জঞ্জালে তৈরি হওয়া বিষাক্ত গ্যাস থেকেই দমবন্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে ওই চার ঠিকা শ্রমিকের।

Tags:
kolkata corporation