ইলশেগুঁড়ির সন্ধানে

কথায় আছে বাঙালি মানেই ভোজনরসিক। আর পাতে যদি থাকে মাছ -ভাত।  এখন ইলশে গুঁড়ি বৃষ্টির  সময়।  এরপর বাজারে মিলবে ইলিশের চাহিদা। তবে গতবছর থেকে করোনা অতিমারির জেরে চাহিদা মিলছেনা ইলিশের। এবার তাই ভোজনরসিকদের পাতে ইলিশ জোগাতে মৎস্যজীবীরা পারি দিল গভীর সমুদ্রে। দাম কমার অপেক্ষায় এবার ইলিশপ্রেমীরা। প্রায় ৬১ দিন পর শেষমেষ গভীর সমুদ্রে মাছ ধরার ওপর সরকারি নিষেধাজ্ঞা উঠে গেল।  যদিও বিগত বছর থেকে লাভের মুখ দেখেনি ব্যবসায়ীরা। এবার তাই রুপোলি শস্যের খোঁজে সমুদ্রে পাড়ি দিতে চলেছে মৎস্যজীবীরা। তবে সমুদ্রে নামাতে গেলে মৎস্যজীবীদের টিকাককরণ আবশ্যক। যারা টিকা দেবে,তারাই সমুদ্রে মাছ ধরতে পারবে।

এদিকে বেড়েছে জ্বালানির দাম।  যারফলে বাড়ছে অন্যান্য জিনিসের দাম।  তাই করোনা বিধি মেনেই আজ থেকে মৎস্যজীবীরা গভীর সমুদ্রে নামবে। দক্ষিণ ২৪ পরগনার দিকে মূলত কয়েক হাজার ট্রলার নেমেছে। হাতে মাত্র একদিন পর জামাইষষ্ঠী। তবে বাজারে সেভাবে ইলিশ মিলছেনা। কিন্তু বাঙালি তার স্বভাবতই স্বাদ মেটাতে বাজারে যা পাচ্ছে তাই কিনতে ছুট।  তবে কিছুদিনের মধ্যে ভোজনরসিক বাঙালিপ্রেমীদের ইলিশের চাহিদা মিটবে বলাই যায়।

Tags:
ilish
rescue
fisherman