শিশুদের ইন্টারনেট আসক্তি কমাতে হলে

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস অতিমারিতে শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহার বেড়েছে। অনেকে গেমস খেলায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ছে। আবার অনেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজেকে আপডেট রাখার চেষ্টা করছে। এভাবে শিশুদের ইন্টারনেট নির্ভরতা বাড়ছে। তবে বিপদও রয়েছে। কারণ আপনার সন্তান যেন আপত্তিকর কোনও বিষয়ের সঙ্গে পরিচিত না হয়, সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে।
প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহার নিরাপদ করতে বাবা-মাকে মূলত দুটি জিনিস নজরদারিতে রাখতে হবে।

এর মধ্যে একটি হচ্ছে– শিশুরা ইন্টারনেট ব্যবহার করতে গিয়ে কোনো ধরনের বিপদে পড়ছে কিনা।

আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে– তারা কোনও আসক্তিতে জড়িয়ে পড়ছে কিনা।
শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহারে নজরদারি বাড়ানো প্রয়োজন। আসুন জেনে নিই কী করবেন-
১. পেরেন্টাল কন্ট্রোল ই-মেইল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করুন। শিশুদের যদি কোনো ডিভাইস দেওয়া হয়, তা হলে সেটিতে পেরেন্টাল কন্ট্রোল ই-মেল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করাটাই নিরাপদ। গুগলে একটা পেরেন্টাল কন্ট্রোল সিস্টেম আছে, যা ব্যবহার করে শিশু কী দেখছে তার ওপর নজরদারি করা সম্ভব।
 ২. কিছু গুরুত্বপূর্ণ অ্যাপ ইনস্টল করুন। প্যারেন্টাল সেফ ব্রাউজার একটি অ্যাপ আছে। এটি যদি শিশুর ডিভাইসে ইনস্টল করা হয় এটি ব্যবহার করে কোন ধরনের অ্যাডাল্ট কন্টেন্ট দেখতে পারবে না শিশু। প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিশুদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই নিরাপত্তা বিষয়ক কিছু অ্যাপ ইনস্টল করা উচিত।
৩. চাইল্ড ভার্সন অপশনটি ব্যবহার করুন। ফেসবুক ও মেসেঞ্জারের ক্ষেত্রে ইন্টারনেটের চাইল্ড ভার্সন আছে। সেক্ষেত্রে শিশুদের একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে দেওয়া যায়, যেটি তারা ব্যবহার করলেও অভিভাবকদের সুপারভাইস করার সুযোগ থাকে।
৪. ইন্টারনেট সংযোগ নেওয়ার সময় সচেতন হোন। কোম্পানির কাছ থেকে ইন্টারনেট সংযোগটি নেওয়া হচ্ছে তা শিশুর জন্য সেফ ইন্টারনেটের ফিচারটি আছে কিনা সেটি যাচাই করে নিন।
৫. শিশুর ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য সময় বেঁধে দিন। শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহারে নিয়ন্ত্রণ আনতে হলে ইন্টারনেট সংযোগ বাসায় কখন কখন থাকবে আর কখন থাকবে না, সেটির একটি নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ করে দিতে হবে।
৬. শিশুর সঙ্গে আপনিও অংশ নিন। ইন্টারনেট ব্যবহারের সময় আপনিও শিশুর সঙ্গে বসুন। শিক্ষামূলক বিভিন্ন চ্যানেল ও ওয়েবসাইট রয়েছে। তাদেরকে সেগুলো দেখতে উৎসাহিত করুন। নতুন কিছু শিখতে বা তৈরি করতে তাদেরকে আগ্রহী করে তুলুন।
৭. আপনি কী দেখছেন সে বিষয়েও সতর্ক হোন। বাড়ির বাবা-মা বা প্রাপ্তবয়স্ক সদস্যরা যদি ওই ওয়াইফাই সংযোগ ব্যবহার করে আপত্তিকর কিছু সার্চ করে বা দেখে, তা হলে সেগুলো ওই আইপি অ্যাড্রেসেই জমা হয়। ওই ইন্টারনেট ব্যবহার করে যদি বাড়ির শিশু বা অপ্রাপ্তবয়স্ক সদস্যরাও কিছু ব্রাউজ করে তা হলে ওই জিনিস বা কন্টেন্টগুলো তাদেরও সামনে চলে আসে। তাই সতর্ক হোন।

আরও পড়ুন:
ডেডলাইন একুশ, নন্দীগ্রামে লড়াই 'আমনে-সামনে'

 |  11 hours ago

একবারে নয়, তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা ধাপে ধাপে

 |  11 hours ago

ব্রিগেডে উধাও ‘বন্দেমাতরম’

 |  11 hours ago

ব্রিগেড মানেই ক্ষমতায় আসা নয়, কটাক্ষ ফিরহাদ হাকিমের

 |  11 hours ago

দেশের মধ্যে প্রথম করোনামুক্ত হল অরুণাচল প্রদেশ

দেশ  |  12 hours ago

ব্রিগেড আপডেটঃ মমতা-মোদিকে একযোগে ‘আক্রমণ’ কংগ্রেসের

দেশ  |  13 hours ago

ব্রিগেডে বক্তব্যের তাৎপর্য

দেশ  |  14 hours ago

ব্রিগেড আপডেটঃ জনসমুদ্র দেখে সিপিএম বলল ‘পরিবর্তন’ আসবেই

দেশ  |  14 hours ago

প্যান-নম্বর হাতিয়ে অভিনব জালিয়াতি

দেশ  |  14 hours ago

নিমতায় আক্রান্ত বিজেপি কর্মী, অভিযোগ তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে

দেশ  |  15 hours ago

নির্বাচন বিধি ভেঙ্গে সবুজসাথী প্রকল্পের সাইকেল বিলি

দেশ  |  15 hours ago

বিধানসভা ভোটে বাংলার পুলিস পর্যবেক্ষক বিবেক

দেশ  |  15 hours ago

তৃণমূলের খেলা হবে শ্লোগানে ভোট সন্ত্রাসের ছায়া দেখছে বিরোধীরা

দেশ  |  15 hours ago

বিজেপির ‘বি-টিম’ তৃণমূল, ব্রিগেড থেকে মমতাকে উৎখাতের ডাক দিলেন আব্বাস

দেশ  |  15 hours ago

ভোটের আগে সেজে উঠেছে তৃণমূল ভবন

দেশ  |  15 hours ago

শিশুদের ইন্টারনেট আসক্তি কমাতে হলে

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস অতিমারিতে শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহার বেড়েছে। অনেকে গেমস খেলায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ছে। আবার অনেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজেকে আপডেট রাখার চেষ্টা করছে। এভাবে শিশুদের ইন্টারনেট নির্ভরতা বাড়ছে। তবে বিপদও রয়েছে। কারণ আপনার সন্তান যেন আপত্তিকর কোনও বিষয়ের সঙ্গে পরিচিত না হয়, সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে।
প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহার নিরাপদ করতে বাবা-মাকে মূলত দুটি জিনিস নজরদারিতে রাখতে হবে।

এর মধ্যে একটি হচ্ছে– শিশুরা ইন্টারনেট ব্যবহার করতে গিয়ে কোনো ধরনের বিপদে পড়ছে কিনা।

আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে– তারা কোনও আসক্তিতে জড়িয়ে পড়ছে কিনা।
শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহারে নজরদারি বাড়ানো প্রয়োজন। আসুন জেনে নিই কী করবেন-
১. পেরেন্টাল কন্ট্রোল ই-মেইল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করুন। শিশুদের যদি কোনো ডিভাইস দেওয়া হয়, তা হলে সেটিতে পেরেন্টাল কন্ট্রোল ই-মেল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করাটাই নিরাপদ। গুগলে একটা পেরেন্টাল কন্ট্রোল সিস্টেম আছে, যা ব্যবহার করে শিশু কী দেখছে তার ওপর নজরদারি করা সম্ভব।
 ২. কিছু গুরুত্বপূর্ণ অ্যাপ ইনস্টল করুন। প্যারেন্টাল সেফ ব্রাউজার একটি অ্যাপ আছে। এটি যদি শিশুর ডিভাইসে ইনস্টল করা হয় এটি ব্যবহার করে কোন ধরনের অ্যাডাল্ট কন্টেন্ট দেখতে পারবে না শিশু। প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিশুদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই নিরাপত্তা বিষয়ক কিছু অ্যাপ ইনস্টল করা উচিত।
৩. চাইল্ড ভার্সন অপশনটি ব্যবহার করুন। ফেসবুক ও মেসেঞ্জারের ক্ষেত্রে ইন্টারনেটের চাইল্ড ভার্সন আছে। সেক্ষেত্রে শিশুদের একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে দেওয়া যায়, যেটি তারা ব্যবহার করলেও অভিভাবকদের সুপারভাইস করার সুযোগ থাকে।
৪. ইন্টারনেট সংযোগ নেওয়ার সময় সচেতন হোন। কোম্পানির কাছ থেকে ইন্টারনেট সংযোগটি নেওয়া হচ্ছে তা শিশুর জন্য সেফ ইন্টারনেটের ফিচারটি আছে কিনা সেটি যাচাই করে নিন।
৫. শিশুর ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য সময় বেঁধে দিন। শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহারে নিয়ন্ত্রণ আনতে হলে ইন্টারনেট সংযোগ বাসায় কখন কখন থাকবে আর কখন থাকবে না, সেটির একটি নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ করে দিতে হবে।
৬. শিশুর সঙ্গে আপনিও অংশ নিন। ইন্টারনেট ব্যবহারের সময় আপনিও শিশুর সঙ্গে বসুন। শিক্ষামূলক বিভিন্ন চ্যানেল ও ওয়েবসাইট রয়েছে। তাদেরকে সেগুলো দেখতে উৎসাহিত করুন। নতুন কিছু শিখতে বা তৈরি করতে তাদেরকে আগ্রহী করে তুলুন।
৭. আপনি কী দেখছেন সে বিষয়েও সতর্ক হোন। বাড়ির বাবা-মা বা প্রাপ্তবয়স্ক সদস্যরা যদি ওই ওয়াইফাই সংযোগ ব্যবহার করে আপত্তিকর কিছু সার্চ করে বা দেখে, তা হলে সেগুলো ওই আইপি অ্যাড্রেসেই জমা হয়। ওই ইন্টারনেট ব্যবহার করে যদি বাড়ির শিশু বা অপ্রাপ্তবয়স্ক সদস্যরাও কিছু ব্রাউজ করে তা হলে ওই জিনিস বা কন্টেন্টগুলো তাদেরও সামনে চলে আসে। তাই সতর্ক হোন।

Tags:
taapsee pannu
mithali raj
biopic
bollywood