শুরু হল পূণ্যস্নান, ভিড় কম হলেও নিরাপত্তার কড়াকড়ি গঙ্গাসাগরে

কথায় আছে ‘সব তীর্থ বারবার, গঙ্গাসাগর একবার’। কিন্তু চলতি বছর করোনা আবহে সবকিছুই যেন ওলোটপালট হয়ে গিয়েছে। শেষ মুহূর্তে উচ্চ আদালতের ছাড়পত্র মিললেও এবার গঙ্গাসাগরে ভিড় একেবারেই কম। ভিনরাজ্য থেকে গঙ্গাসাগর মেলা উপলক্ষ্যে এবার সেভাবে বিশেষ ট্রেন দেয়নি রেলমন্ত্রক। তাই অনেকেই এবারের পূণ্যস্নান করতে গঙ্গাসাগর আসতে পারেননি। এছাড়াও করোনার আতঙ্কে অনেকেই এবার গঙ্গাসাগর মুখো হননি বলেও মনে করছেন স্থানীয়রা। ফলে চলতি বছর মকর সংক্রান্তিতে ফাঁকা ফাঁকা গঙ্গাসাগর মেলা চত্বর। পূণ্যার্থীদের ভিড় নেই বললেই চলে, এমনকি সাধু-সন্নাসীদের ভিড়ও চোখে পড়ার মতো কম। উল্লেখ্য, মকর সংক্রান্তির মাহেন্দ্রক্ষণ শুরু হচ্ছে বৃহস্পতিবারই।

ই-স্নানে জোর
একযোগে বহু মানুষ সাগরে স্নানে নামলে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে বলেই ধারণা বিশেষজ্ঞদের। তাই চলতি করোনা আবহে পূণ্যস্নানে শর্তসাপেক্ষে অনুমতি দিলেও জোর দেওয়া হয়েছে ই-স্নানে। কী এই ই-স্নান? রাজ্য সরকারের পরিকল্পানা অনুযায়ী এবার করোনা পরিস্থিতির জন্য গঙ্গাসাগরের জলে ডুব দেওয়ার পরিবর্তে নির্দিষ্ট স্থানে সাগরের জল ঘটিতে করে মাথায় ঢেলে পূণ্য অর্জনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।