ট্রাম্পের বিচারে ওয়ারেন হেস্টিংস

ট্রাম্পের ইম্পিচমেন্টের বিচারে ইতিহাসের পাতা থেকে  উঠে এলেন ওয়ারেন হেস্টিংস। ভারতের প্রথম গভর্নর জেনারেল ছিলেন হেস্টিংস। ব্রিটিশ আমলে ১৭৭২ থেকে ১৭৮৫ সাল পর্যন্ত ছিল তাঁর শাসনকাল। এতদিন পরে আবার তাঁর নাম এল ট্রাম্পের ইম্পিচমেন্টের সূত্র ধরেই।
এখন প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইম্পিচমেন্টের বিচার চলছে মার্কিন সিনেটে। জানুয়ারিতে ক্যাপিটল হিলে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডবের পর ট্রাম্পকে একবার ইমপিচ করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিচারের জন্য অনুমোদন দিয়েছে সিনেট। সেই বিচার চলছে। ক্ষমতা ছাড়ার পর একজন প্রাক্তন প্রেসিডেন্টের বিচার কী করে হবে, এই প্রশ্ন নিয়ে বিতণ্ডা হয়েছে। বিচারের সমর্থনে একাধিক দৃষ্টান্ত আনা হয়েছে সামনে।
তাদেরই একজন ভারতের গভর্নর জেনারেল ওয়ারেন হেস্টিংস। ভারতে ব্রিটিশ শাসনের অন্যতম নির্মাতা হেস্টিংস। ১৭৮৫ সালে তিনি পদত্যাগ করে ব্রিটেনে ফিরে যান। তারপর তাঁর শাসনকালে নানা অপরাধে তার বিরুদ্ধে বিচার হয় এবং তাঁকে ইম্পিচ করা হয়। ব্রিটিশ পার্লামেন্টের হাউস অফ কমনসে সেই বিচার হয়। ওয়ারেন হেস্টিংসের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তহবিল তছরুপ, তোলাবাজি এবং বিচারের সাহায্যে মহারাজ নন্দকুমারের ফাঁসির। নন্দকুমারের ফাঁসির পর গোটা বাংলায় তোলপাড় হয়েছিল। তবে সেই অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেয়েছিলেন হেস্টিংস।
ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগকারীরা বলেছেন, মার্কিন সংবিধান প্রণেতারা হেস্টিংসের বিচার সম্পর্কে অবহিত ছিলেন। অবসরের পর ইম্পিচমেন্টের বিচার করার সুযোগ ছিল। আমেরিকার সংবিধান চালু হয়েছিল ১৭৮৭ সালে।

আরও পড়ুন:
আব্বাসের সঙ্গে জোট নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে কংগ্রেসের অন্দরেও।

 |  28 minutes ago

ঘাসফুলে সায়ন্তিকা

 |  32 minutes ago

সামনেই বিধানসভা ভোট, দেওয়াল লিখন ঘিরে উত্তেজনা

 |  38 minutes ago

ফের বেনামি পোষ্টার

 |  42 minutes ago

আদিবাসী উন্নয়নে আছে নানা প্রকল্প, কিন্তু নেই তার বাস্তবায়ন

 |  45 minutes ago

ঘাসফুলে সায়ন্তিকা

 |  an hour ago

নেই ভালো রাস্তা, তিন মাস অকেজো টিউবওয়েল, ক্ষোভে এলাকাবাসী

 |  an hour ago

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মীদের পদোন্নতিতে দুর্নীতি ও দলবাজির অভিযোগ

 |  an hour ago

স্বচ্ছ নিয়োগের দাবিতে ৩৩দিন ধরে আন্দোলনে এসএসসি চাকরিপ্রার্থীরা

 |  an hour ago

নিকাশি নালার ফলক বসলেও টাকা তুলে নেওয়ার অভিযোগ

 |  an hour ago

আদি মেনুর বিয়েবাড়ি

বিশেষ প্রতিবেদন  |  an hour ago

আক্রমণ করলে ছেড়ে কথা বলব না, হুঁশিয়ারি শিশির অধিকারীর

বিশেষ প্রতিবেদন  |  2 hours ago

দিল্লি পুরসভার উপনির্বাচনে ধরাশায়ী বিজেপি

দেশ  |  2 hours ago

রেলভাড়ার পর এবার ৫ গুণ বাড়ল প্ল্যাটফর্ম টিকিটের দাম

দেশ  |  2 hours ago

করোনার টিকা নিলেন রাষ্ট্রপতি

দেশ  |  3 hours ago

ট্রাম্পের বিচারে ওয়ারেন হেস্টিংস

ট্রাম্পের ইম্পিচমেন্টের বিচারে ইতিহাসের পাতা থেকে  উঠে এলেন ওয়ারেন হেস্টিংস। ভারতের প্রথম গভর্নর জেনারেল ছিলেন হেস্টিংস। ব্রিটিশ আমলে ১৭৭২ থেকে ১৭৮৫ সাল পর্যন্ত ছিল তাঁর শাসনকাল। এতদিন পরে আবার তাঁর নাম এল ট্রাম্পের ইম্পিচমেন্টের সূত্র ধরেই।
এখন প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইম্পিচমেন্টের বিচার চলছে মার্কিন সিনেটে। জানুয়ারিতে ক্যাপিটল হিলে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডবের পর ট্রাম্পকে একবার ইমপিচ করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিচারের জন্য অনুমোদন দিয়েছে সিনেট। সেই বিচার চলছে। ক্ষমতা ছাড়ার পর একজন প্রাক্তন প্রেসিডেন্টের বিচার কী করে হবে, এই প্রশ্ন নিয়ে বিতণ্ডা হয়েছে। বিচারের সমর্থনে একাধিক দৃষ্টান্ত আনা হয়েছে সামনে।
তাদেরই একজন ভারতের গভর্নর জেনারেল ওয়ারেন হেস্টিংস। ভারতে ব্রিটিশ শাসনের অন্যতম নির্মাতা হেস্টিংস। ১৭৮৫ সালে তিনি পদত্যাগ করে ব্রিটেনে ফিরে যান। তারপর তাঁর শাসনকালে নানা অপরাধে তার বিরুদ্ধে বিচার হয় এবং তাঁকে ইম্পিচ করা হয়। ব্রিটিশ পার্লামেন্টের হাউস অফ কমনসে সেই বিচার হয়। ওয়ারেন হেস্টিংসের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তহবিল তছরুপ, তোলাবাজি এবং বিচারের সাহায্যে মহারাজ নন্দকুমারের ফাঁসির। নন্দকুমারের ফাঁসির পর গোটা বাংলায় তোলপাড় হয়েছিল। তবে সেই অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেয়েছিলেন হেস্টিংস।
ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগকারীরা বলেছেন, মার্কিন সংবিধান প্রণেতারা হেস্টিংসের বিচার সম্পর্কে অবহিত ছিলেন। অবসরের পর ইম্পিচমেন্টের বিচার করার সুযোগ ছিল। আমেরিকার সংবিধান চালু হয়েছিল ১৭৮৭ সালে।

Tags: