Exclusive: ইউপিএসসি-তে সফল ময়ূরী ফের পরীক্ষায় বসতে চান

সুভাষ বৈদ্য,কলকাতাঃ এ বছর UPSC-তে নজরকাড়া সাফল্য রাজ্যের। সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় এই রাজ্যের যারা সফল হয়েছেন,তাদের মধ্যে ময়ূরী মুখোপাধ্যায় একজন। উত্তর ২৪ পরগণা বিরাটি আবাসনের বাসিন্দা ময়ূরী UPSC পরীক্ষার পাশাপাশি চালিয়ে গিয়েছেন গবেষণাও। 

কিভাবে একই সময় দুটো কঠিন বিষয় নিয়ে পড়াশুনা করেছেন ময়ূরী ? 

একান্ত সাক্ষাতকারে সিনএন পোর্টালকে জানালেন সে কথা। 

ময়ূরী জানালেন, করোনা লকডাউনে বাড়ি থাকতে পেরে অনেকটা সময় পড়ার সুযোগ পেয়েছেন তিনি। এছাড়া UPSC পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর সিভিল সার্ভিস স্টাডি সেন্টার (CSSC)-তে শনি-রবিবার ক্লাস হত। ফলে বাকি দিন পিএইচডি থিসিস লেখার কাজটা করতেন তিনি।  

তবে সেটাও তো খুব কঠিন কাজ-

তার উত্তরে বলেন, গবেষণার কাজে প্রতিদিন ৯-১০ ঘন্টা ল্যবরেটরিতে কাটাতে হত ময়ূরী মুখোপাধ্যায়কে। তারপর সর্বভারতীয় পরীক্ষার প্রস্তুতি। যদিও আলাদা দুটো বিষয় পড়ার জন্য প্রতিদিন সময় ভাগ করে নিয়েছিলেন তিনি। প্রতিদিন সকালে কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স এর জন্য নিয়মিত নিউজ পেপার পড়া ছিল তার রুটিনে। তারপর গবেষণার কাজ। রাতে ফের UPSC পরীক্ষার প্রস্তুতি। এই ছিল তার প্রতিদিনের কর্মসূচি। সেটা আবার এক দুদিন নয়। ২০১৮ সাল থেকে টানা তিন বছর। অবশেষে তিন বারের চেষ্টার পরে সর্বভারতীয় পরীক্ষায় (UPSC) সফল হয়েছেন ময়ূরী। 

তিনি আরও জানালেন,  পিএইচডি করার সময়ই উপলব্ধি করি ল্যাবে গবেষণা ভিত্তিক কাজের প্রয়োগ সমাজে সীমিত। UPSC কাজ করার সুযোগ নানা ক্ষেত্রে অনেক বিস্তৃত করে দেবে। তাই সিদ্ধান্ত নিলাম। শক্তি জুগিয়েছেন মূলত বাবা-মা। 

ইউপিএসসি-তে সফল ময়ূরী ফের পরীক্ষায় বসতে চান কেন ?

ময়ূরী জানালেন, UPSC-তে ১৫৯ নম্বর স্থানে তথা রেঙ্ক অনুযায়ী যে চাকরিটা পাবো,সেটা শুরু করবো। রেভিনিউ সার্ভিস তথা ইনকাম টেস্ক সার্ভিস,তবে সেখানে সাধারণ মানুষের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগের সুযোগ কম। তাই ফের UPSC পরীক্ষায় বসার ইচ্ছা আছে। প্রশাসনিক সার্ভিস এর জন্য সুযোগ পেলে সরাসরি সাধারণ মানুষের সেবা করতে পারবো। পাশাপাশি আমার পড়াশুনো, লেখালেখি ও গবেষনা চালিয়ে যাবার চেষ্টা করবো। 

ছাত্র জীবন-  

বেলঘড়িয়া মহাকালী গার্লস হাই স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও  উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন ময়ূরী। পরে অনার্স বোটানি নিয়ে প্রেসিডেন্সি থেকে স্নাতক। তারপর বোটানি নিয়েই দিল্লি ইউনিভার্সিটি থেকে মাস্টার্স ডিগ্রীতে প্রথম হন ময়ূরী। 

২০২১ অগস্টে সিএসআইআর ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট কেমিক্যাল বায়োলজি যাদবপুরে নিজের পিএইচডি থিসিস জমা দিয়েছেন তিনি। এখন শুধু ডিগ্রি-র পাওয়ার অপেক্ষা। পাশাপাশি ২০১৮ সাল থেকে সর্বভারতীয় পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন। 

এবছর সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় বসেছিলেন ৪.৮২ লক্ষের বেশি প্রার্থী। মেইন লিখিত পরীক্ষার সুযোগ পেয়েছিলেন ১০ হাজার ৫৬৪ জন। প্রতি বছর এই সিভিল সার্ভিস পরীক্ষার আয়োজন করে ইউপিএসসি। তিনটি পর্যায়ে এই পরীক্ষা নেওয়া হয়। 


Tags:
Mayuri Mukherjee
UPSC
west bengal