Durga Puja: দূর্গা আবার একখন্ড পাথর জানেন কেন? অবাক করা ইতিহাস

আজ থেকে প্রায় আনুমানিক ৬০০-৭০০ বছর পূর্বের ঘটনা। কথায় আছে বাঁকুড়া জেলার বড়জোড়া ব্লকের সাহারজোড়া গ্রামের এক প্রত্যন্ত চাষী একদা নিজের জমিতে নাঙ্গল দিয়ে চাষ করছিলেন। ঠিক তখনই এক অবাক করা কান্ড ঘটল । নাঙ্গলের ফলে মাটির তলা থেকে একটি শিলা পাথর বেরিয়ে আসে। নাঙ্গলের আঘাতে শিলা পাথরের গা দিয়ে বেরিয়ে আসছিল রক্ত। তৎকালীন মল্ল রাজা ঘটনা প্রত্যক্ষ করেন এবং সেই দিনে দুপুরবেলায় রাজাকে স্বপ্নাদেশে মা মহামায়া তার প্রস্তরখন্ডকে পুজো দিতে বলেন। শুরু হয় সাহারজোড়া গ্রামে আদ্যা শক্তি মা মহামায়ার পুজো। জানুন সেই ইতিহাস।

তবে এই শিলা মূর্তি খুবই জাগ্রত। প্রতিবছরই নিষ্ঠার সঙ্গে পুজো করা হয় । বাঁকুড়ার এই সাহারজোড়া গ্রামের এক মন্দিরে যদিও এর আগে দুর্গাপুজো করার কথা উঠলেও তা করা যেতে পারেনি।যার কারণ মাটির মূর্তি যখনই মন্দিরে বসানো হট ঠিক সেইসময় মন্দিরের দরজা বন্ধ হয়ে যায়. এরপর প্রায় তিনিদিন ওই মন্দিরের দরজা বন্ধ থাকে। যদিও সেই কথা মন্দিরের পুরোহিতদের মুখেই শোনা যায় ।

এরপর থেকে তাই মাটির মূর্তি দিয়ে কোনোভাবেই পুজো করা হতোনা।যদিও এই মাটির তোলার থেকে এই মূর্তি বেরোতেই স্থাপন করা হয় এরপর মন্দিরে। তাকেই গ্রামবাসীরা জাগ্রত মা বলে জানেন। এছাড়া দূর্গা মূর্তিকে পুজো করা হয় ভক্তি সহকারে। এবছর কিন্তু এই পুজোর কিন্তু খামতি থাকবেনা, এই অতিমারীতেও সচেতনতা বজায় রেখেই মন্দিরে চলবে ষষ্ঠী থেকে দশমীর পুজো। রীতি-নীতি মেনেই হবে । আর তারই প্রস্তুতি চলছে জোরকদমে।

Tags:
Durgapuja
bankura
stone