Mahalaya: বুধবার মহালয়া,জানুন কখন তর্পনের সময়

বুধবার অর্থাৎ আগামীকাল মহালয়া। পিতৃপক্ষের অবসান,দেবীপক্ষের সূচনা। কথিত আছে এই মহালয়ের দিনে তর্পন করা হয় পূর্বপুরুষদের কথা মথায় রেখেই। এদিকে মহালয়ার দিনে তর্পণ ও শ্রাদ্ধ করে মর্ত্যে আগত পূর্বপুরুষদের বিদায় জানানো হয়। এদিনই পিতৃলোকে ফিরে যান পূর্বপুরুষরা। তবে কেন ও কীভাবে তর্পণ করা হয়, তা জেনে নেওয়া ভালো। আবার এই তর্পণ শব্দটির উৎপত্তিই বা কোথা থেকে তা-ও জেনে নিন। তর্পণ শব্দের উৎপত্তি ত্রুপ থেকে। ত্রুপ কথার অর্থ সন্তুষ্ট করা। ঈশ্বর, ঋষি ও পূর্বপুরুষদের উদ্দেশে জল নিবেদন করে তাঁদের সন্তুষ্ট করাকে তর্পণ বলা হয়। শাস্ত্র মতে, যে কাজ দ্বারা অপরের তৃপ্তি হয়, তা-ই তর্পণ। এবার আসা যাক তর্পনের কারণ ঠিক কি. তর্পনের সময় ঈশ্বর, পূর্বপুরুষদের আত্মার নাম উচ্চারণ করে তাঁদের সুখ-শান্তি কামনা করা হয়।

জীবনযাপনের জন্য, ইচ্ছা বা অনিচ্ছায় ব্যক্তি প্রাণী বধ, হিংসা ইত্যাদি নানান অপ্রীতিকর কাজ করে থাকে। এটি ছাড়াও অন্যান্য অপকর্মের জন্যও শাস্ত্রমতে পাপগ্রস্ত হয় ব্যক্তি। সনাতন ধর্মে, এই পাপমোচনের জন্য তর্পণের কথা বলা হয়। বিশেষত তর্পনের সময়ে যে মন্ত্র পথ উচ্চারণ করা হয় বৃক্ষ থেকে তৃণ শিখা পর্যন্ত সমস্ত জীবজগৎ মদ্দত্ত জল দ্বারা তৃপ্ত হোক, এই প্রার্থনা। উল্লেখ্য, মা-বাবা জীবিত থাকা কালীন প্রেত তর্পণ ছাড়া অন্য কোনও তর্পণ করতে নেই। এছাড়া তর্পনের নিয়ম মূলত তর্পন করার আগে নিজেকে জল দিয়ে শুদ্ধ করবেন এবং সেই জলে কুরুক্ষেত্র মন্ত্র পাঠ করে শুদ্ধ করবেন।

তার পর সেই জল দিয়ে তর্পণ কাজ করবেন। কখন তর্পন করবেন? সময় জানা যাক, অমাবস্যা তিথিতে ৬ অক্টোবর পিতৃ তর্পণ ও শ্রাদ্ধ কর্ম করা যাবে। এদিন দুপুরের মধ্যে তর্পণ করে নেওয়া উচিত। ভোরবেলা স্নান করে তর্পণ করা সবচেয়ে ভালো। 

Tags:
Mahalaya
tarpon