ব্রেকিং নিউজ
Studying-during-the-day-delivering-food-door-to-door-in-the-evening
Food Delivery: দিনে পড়াশোনা, সন্ধ্যার পর দরজায় দরজায় খাবার পৌঁছে দেওয়া..

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-08-04 19:58:13


বাবা একটি নামী খাবার সরবরাহকারী সংস্থায় (Food Delivery Company) কাজ করতেন। কিন্তু দুর্ঘটনায় (Accident) বাড়িতে শয্যাশায়ী। ছেলের বয়স মাত্র ৭ বছর। পড়াশোনার (Education) সঙ্গে খোলাধুলোয় মেতে থাকার তো এটাই উপযুক্ত সময়। কিন্তু বাবার ওই দুর্ঘটনা নাড়িয়ে দিয়েছিল ছোট্ট এই শিশুটির হৃদয়। একদিকে পড়াশোনা করার অদম্য ইচ্ছে। অন্যদিকে সংসার চালানোর দায়বদ্ধতা। এই বয়সেও ওই খুদে যে সিদ্ধান্ত নিল, তা অনেককেই বাকরুদ্ধ করে দিয়েছে।

সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত পড়াশোনা এবং স্কুল নিয়েই ব্যস্ত থাকে সে। আর সন্ধ্যা ৬ টা বাজলেই বেরিয়ে পড়ে সাইকেল নিয়ে। পরিবারের কথা ভেবে বাবার ফেলে যাওয়া কাজটাই তাকে দিয়েছে ওই কোম্পানি। সাইকেলে করে ওই সংস্থার হয়ে খাবার বিলি করে বেড়ায় সে রাত ১১ টা পর্যন্ত। তারপরই সুযোগ মেলে দুচোখের পাতা এক করার।

খবরটা জানা গেল ট্যুইটারের মাধ্যমে। ওই সংস্থারই এক ডেলিভারি এজেন্ট ছেলেটির এই উদ্যোগ এবং দৃঢ়চেতা মানসিকতা দেখে বিষয়টি পোস্ট না করে থাকতে পারেননি। সঙ্গে দিয়েছেন শিশুটির ৩০ সেকেন্ডের ইন্টারভিউ, যেখানে ছেলেটি নিজেই বর্ণনা করছে, কেন তাকে পড়াশোনার ফাঁকে এই কাজ করতে হচ্ছে।

এই ভিডিওটি দেখার পর অনেকেই ওই ছেলেটির এই কঠোর পরিশ্রমের ভূয়শী প্রশংসা করেছেন। অনেকেই বলেছেন, এই মেসেজ আরও বেশি করে ছড়িয়ে দেওয়া উচিত, যাতে অনেকেই তাকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসে। সে যাতে পড়াশোনা নিয়েও এগিয়ে যেতে পারে, সে ব্যাপারেও সরকার কোনও ব্যবস্থা নিতে পারে।

কিন্তু এই বয়সে কাজ? এ তো শ্রম আইনের পরিপন্থী। পরিবারের কথা ভেবে অবশ্য এ নিয়ে অনেকেই ততটা সরব হননি। বরং তার উদ্যোগের প্রশংসাই করেছেন। জানা গিয়েছে,  ওই সংস্থা আশ্বাস দিয়েছে, বাবা সুস্থ হলে ফের তাঁকে কাজে তারা ফিরিয়ে নেবে।   






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন