ব্রেকিং নিউজ
If-you-take-booster-dose-Chhole-Bhature-are-free
Vaccination: বুস্টার ডোজ নিলেই ছোলে বাটুরে ফ্রি

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-07-31 19:44:41


গত বছর মে থেকে টানা সাতমাস তিনি বিনা পয়সায় ছোলে বাটুরে (Chhole Bhature) খাইয়েছিলেন এলাকার মানুষকে। লক্ষ্য ছিল, কোভিড টিকাকরণ (Covid Vaccination) নিয়ে সবাইকে উত্সাহিত করা। তাঁর এই প্রচেষ্টার খবর পৌঁছে গিয়েছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর (Narendra Modi) কাছেও। মন কি বাত অনুষ্ঠানে তিনিও এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছিলেন। বলেছিলেন, আপনারা যদি সঞ্জয় রানাজির (Sanjoy Rana) ছোলে বাটুরে চেখে দেখতে চান, তাহলে ভ্যাকসিনেশন হলেই তার প্রমাণ নিয়ে ওইদিনই তাঁর কাছে চলে যান। তিনি এও বলেছিলেন, সমাজের জন্য কিছু করতে হলে দায়িত্ব এবং পরিষেবার মানসিকতা থাকতে হয়। সঞ্জয় রানা সেটাই করে দেখিয়েছেন।

এবার বুস্টার ডোজ (Booster Dose) নিয়েও একইভাবে ময়দানে নেমেছেন চণ্ডীগড়েের ওই খাবার বিক্রেতা। কারণ, তাঁর মতে, বুস্টার ডোজ নিয়ে মানুষের আগ্রহ তুলনামূলক কম।

সঞ্জয় রানা। বয়স হবে ৪৫ বছর মতো। গত ১৫ বছর ধরে সাইকেলেই তাঁর দোকান, এটাই তাঁর আয়ের একমাত্র পথ। গত বছর তাঁর মেয়েই মাথায় আইডিয়াটা ঢুকিয়ে দিয়েছিল। এবারও তাই তাঁকে দ্বিতীয়বার ভাবতে হয়নি। যখনই তাঁর মনে হয়েছে, মানুষের মধ্যে বুস্টার ডোজ নেওয়ার ব্যাপারে চরম অনীহা, তখনই তিনি তাঁর আগের সেই পথ বেছে নিয়েছেন। রাস্তায় নেমেছেন একই অফার নিয়ে।

তাঁর মতে, কোনওরকম সংশয় রাখবেন না। ইতিমধ্যেই করোনার সংক্রমণ একটু একটু করে বাড়ছে। তাই অপেক্ষা করার মতো অবকাশ নেই। এর আগের তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা নিশ্চয় সবার মনে আছে। তাহলে ফের সেই অবস্থা ফিরুক, এটা কি আপনারা চান? তাই এবারও তিনি কয়েক সপ্তাহ তাঁর ওই অফার চালিয়ে যাবেন।

রানার জীবন সংগ্রামের কাহিনীও খুব একটা সুখকর নয়। সংসারে বর্তমানে স্ত্রী ছাড়াও রয়েছে মেয়ে। আদতে হিমাচলপ্রদেশের বাসিন্দা তিনি। পড়াশোনা বেশিদূর করতে পারেননি। কারণ দশম শ্রেণিতে পড়ার সময়ই বাবার মৃত্যু হয়। তিন বোন এবং দুই ভাইয়ের দায়িত্ব এসে পড়ে তাঁর কাঁধে।

সংসারের এই বোঝা টেনেও এখনও যে তাঁর মধ্যে দেশ ও দশের জন্য কাজ করার মানসিকতা পুরোমাত্রায় রয়ে গিয়েছে, সে কথাই তিনি যেন ফের প্রমাণ করে দিলেন।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন