ব্রেকিং নিউজ
Find-out-how-the-lives-of-5-people-were-saved-by-the-decision-taken-by-the-parents-right-after-the-death-of-the-girl
Girl Death: মেয়ে মারা যাওয়ার পরমুহূর্তেই বাবা-মায়ের সিদ্ধান্তে বাঁচল ৫ জনের প্রাণ, কীভাবে জানুন

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-05-19 20:11:54


জেল থেকে ফেরার হওয়া এক বন্দির গুলি এফোঁড় ওফোঁড় করে দিয়েছিল মাথা। সরাসরি মস্তিষ্কে গিয়ে বিঁধেছিল গুলি। ৬ বছরের ফুটফুটে মেয়েটাকে বাঁচাতে পারেননি দিল্লি এইমসের ডাক্তাররা। কিন্তু তাঁর অঙ্গেই প্রাণ পেল আরও পাঁচজন মানুষ। শিশুটির হার্ট, কিডনি, ত্বক, লিভার নিয়ে প্রাণ বাঁচল পাঁচ মৃত্যুপথযাত্রীর। ভয়ঙ্কর ঘটনায় মেয়েকে হারানোর পরেও তার অঙ্গদান করতে রাজি হন বাবা-মা।

মাথায় গুলি লেগে কোমায় চলে গিয়েছিল বছর ছয়ের রোহি প্রজাপতি। ওই ঘটনার পরেই দ্রুত তাকে একটি স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থা সংকটজনক হওয়ায় ২৭ এপ্রিলে তাকে দিল্লি এইমসে স্থানান্তরিত করা হয়। যদিও এইমসের চিকিৎসকরা জানান, যখন রোলিকে হাসপাতালে আনা হয়, তখনই তার প্রায় ব্রেন ডেথের মতো অবস্থা ছিল। মাথায় গেঁথে ছিল বুলেটটি। তাকে বাঁচানো সম্ভব ছিল না। এর পরেই এইমসের চিকিৎসকরা রোহির বাবা-মাকে অঙ্গদানের বিষয়ে বোঝান।

এই বিষয়ে এইমসের নিউরোসার্জেন ডাঃ দীপক গুপ্ত বলেন, ''শিশুটির ব্রেন ডেথ ঘোষণার পরেই আমাদের চিকিৎসকরা বাবা-মাকে বোঝান, ওর অঙ্গ দান করলে পাঁচজন মানুষের জীবন বেঁচে যেতে পারে। আমরা রোলির বাবা-মায়ের কাছে কৃতজ্ঞ। এই বিষয়ে বেশি কিছু জানা না থাকলেও রাজি হন ওঁরা।'' এরপরেই শিশুটির হার্ট, কিডনি, ত্বক, লিভার তুলে নিয়ে পাঁচজন রোগীর শরীরে প্রতিস্থাপন করা হয়। রোগীরা এখনও পর্যন্ত ভালো আছেন বলেই জানা গিয়েছে। উল্লেখ্য, দিল্লি এইমসের ইতিহাসে রোলিই এখনও অবধি সবচেয়ে কমবয়সী অঙ্গদাতা।

রোহির বাবা হরনারায়ণ প্রজাপতি বলেন, ''চিকিৎকরা আমাদের বোঝান, ওর অঙ্গ অন্যদের জীবন বাঁচাতে পারে। আমি ও রোহির মা রাজি হই। আমাদের মেয়েটা অন্তত অন্যদের শরীরে বেঁচে থাকবে, তাদের মুখে হাসি এনে দেবে।'' মা পূনম দেবীর কথায়, মেয়ে তাঁদের ছেড়ে চলে গেলেও অন্যদের জীবন বাঁচিয়ে দিল।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন