ব্রেকিং নিউজ
  ষষ্ঠীর সকালেই আগ্নেয় অস্ত্রসহ এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে মুর্শিদাবাদের ডোমকল থানার পুলিস     ফের এবঙ্গে বৃষ্টির পূর্বাভাস, হতে পারে ভারী বৃষ্টিও  
Father-killed-own-daughter-after-injecting-kcl-injection-over-honor-killing-in-uttar-pradesh
Crime: বারবার বললেও প্রেম ভাঙতে নারাজ, 'অবাধ্য' মেয়েকে শাস্তি দিতে ইঞ্জেকশন ফুটিয়ে হত্যা

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-08-07 17:22:18


অনুরোধ সত্ত্বেও মেয়ে (Father-Daughter) প্রেমিকের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন না করায় ক্ষুব্ধ বাবা। তাই 'শিক্ষা' দিতে হাসপাতালের একজন ওয়ার্ড বয়কে লক্ষ টাকা দিয়ে পটাশিয়াম ক্লোরাইডের (potassium chloride) উচ্চ ডোজের (high dose) ইনজেকশন আনান তিনি। সেই ইঞ্জেকশন দিয়ে মেয়েকে হত্যার (Murder) অভিযোগ বাবার বিরুদ্ধে। মেয়ের স্বাস্থ্যের হঠাৎ অবনতি হতেই চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বিষয়টি জানতে পারেন। তাঁরাই পুলিসকে জানায় গোটা বিষয়টি। শনিবার পুলিস ওই মেয়ের বাবা নবীন কুমার, ওয়ার্ড বয় নরেশ কুমার এবং হাসপাতালের এক মহিলা কর্মচারীকে গ্রেফতার (Arrest) করেছে। উত্তর প্রদেশের (Uttar Pradesh Incident) এই ঘটনায় স্বাভাবিক ভাবেই চাঞ্চল্য।

পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, নবীন কুমার তাঁর মেয়েকে শুক্রবার গভীর রাতে কঙ্করখেড়ার একটি হাসপাতালে ভর্তি করেন। কিন্তু কয়েক ঘণ্টা পরে তাঁকে মোদিপুরমের ফিউচার প্লাস হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানেই মেয়েটির স্বাস্থ্যের হঠাৎ অবনতি এবং পরে মৃত্যু হয়।

মেয়েটি যখন অসুস্থ, তখন পরীক্ষা-নিরীক্ষায় চিকিৎসকরা দেখতে পান যে তাঁকে উচ্চমাত্রায় পটাশিয়াম ক্লোরাইড ইনজেকশন দেওয়া হয়েছিল। সিসিটিভি ফুটেজ দেখার পর জানতে পারে, যে ব্যক্তি ইনজেকশনটি দিয়েছিল তাঁকে, সে অভিযুক্ত ওয়ার্ড বয় নরেশ কুমার।

জিজ্ঞাসাবাদে নরেশ পুলিসকে জানিয়েছেন, মেয়েটির বাবা তাঁকে হত্যা করার জন্য এক লক্ষ টাকা দিয়েছিলেন। একজন ডাক্তারের পরিচয় দিয়ে তিনি মহিলা কর্মচারীর সাহায্যে আইসিইউতে প্রবেশ করেন এবং ইনজেকশন দেন। তথ্যের ভিত্তিতে ওই মহিলা কর্মচারী ও মৃতার বাবাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মেয়েটির বাবা প্রপার্টি ডিলার বলে জানা গিয়েছে। নবীন কুমার পরে পুলিসকে জানিয়েছেন, তাঁর মেয়ের একজন পুরুষের  সঙ্গে সম্পর্ক ছিল এবং অনুরোধের পরেও সম্পর্ক ছিন্ন করতে রাজি হচ্ছিল না।

মেয়েটিকে হাসপাতালে ভর্তি করার সময় তিনি ডাক্তারদের বলেছিলেন যে সে ছাদে বাঁদরের ভয় পেয়ে সেখান থেকে পড়ে যায়। কিন্তু আসলে, সে ছাদ থেকে লাফ দিয়েছিল বলে অভিযুক্ত বাবা পুলিসকে জানিয়েছেন। পুলিস নরেশ কুমারের কাছ থেকে কিছু ওষুধ পটাশিয়াম ক্লোরাইড এবং ৯০,০০০ টাকা সহ একটি ভাঙা ইনজেকশনও উদ্ধার করেছে।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন