ব্রেকিং নিউজ
a-woman-in-tollygaunj-was-arrested-due-to-fraudulent-
Fraud: মন্ত্রী-বিধায়কের সই জাল করে লক্ষ টাকার প্রতারণা, টালিগঞ্জে গ্রেফতার এক মহিলা

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-07-11 18:52:37


মন্ত্রী-বিধায়ক, সাংসদের নাম করে লক্ষ টাকার প্রতারণার অভিযোগে ধৃত মৌ গুহ নামে এক মহিলা। দক্ষিণ কলকাতার প্রতাপাদিত্য প্লেসের মিত্র পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে তাঁকে গ্রেফতার করেছে টালিগঞ্জ থানার পুলিস। এই প্রতারণা কাণ্ডের সঙ্গে শুধু মৌ গুহ নয়, রয়েছে আরও অনেকে। প্রাথমিক তদন্তে এমনটাই জানতে পেরেছে পুলিস। জানা গিয়েছে, সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাংসদ কোটায় ফ্ল্যাট বরাদ্দের নামেও লক্ষ টাকা হাতিয়েছেন অভিযুক্ত মৌ গুহ।


পাশাপাশি জাল করা হয়েছে মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য এবং ফিরহাদ হাকিমের লেটারহেড এবং সই। মন্ত্রী-বিধায়কের সই জাল করেই চলেছে লক্ষ টাকার এই প্রতারণা। এমনটাই জানিয়েছে পুলিস। পেশায় জ্যোতিষী দিপালী মিত্র, মৌ গুহ, নিমাই নস্কর-সহ আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করলে তদন্তে নামে টালিগঞ্জ থানার পুলিস। জানা গিয়েছে, প্রতাপাদিত্য রোডের বাসিন্দা মিত্র পরিবার। দেড় বছর আগে মৌয়ের সঙ্গে পরিচয় হয় কর্মসূত্রে। সেই পরিচয় থেকেই বিভিন্ন কায়দায় প্রতারণা করেছেন এই মৌ। ফ্ল্যাট পাইয়ে দেওয়ার নাম করে নেওয়া হয়েছে প্রায় দু'লক্ষ টাকা। মৌ গুহ নিজেকে পরিচয় দিয়েছিলেন রাসবিহারীর বিধায়ক দেবাশীষ কুমারের পিএ বা আপ্ত সহায়ক হিসেবে।

শুধু তাই নয় দেবাশীষ কুমারের নকল লেটারহেড ছাপানো থেকে শুরু করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম করে লেটারহেড চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের সই জাল করা সমস্তটাই করেছেন ওই মহিলা। রাসবিহারীর এই মিত্র দম্পতি শুধু নয়, অসীম পাল নামে এক ব্যক্তির  থেকেও নিয়েছেন লক্ষাধিক টাকা। জানা গিয়েছে ফাঁদে ফেলে শনিবার এই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিস।  কথা বলার নাম করে অভিযোগকারী মিত্র দম্পতি বাড়িতে ডেকে আনে মৌ গুহকে।

আগে থেকেই খবর দেওয়া ছিল টালিগঞ্জ থানায়। মৌ বাড়িতে আসতেই মিত্র দম্পতি ফোন করেন টালিগঞ্জ থানায়। সাদা পোশাকে এসে পুলিস হাতেনাতে গ্রেপ্তার করে মৌ গুহকে। জানা গিয়েছে, রাজপুর-সোনারপুরের বাসিন্দা মৌ গুহ নিজেকে দেবাশিষ কুমারের আপ্ত সহায়ক পরিচয় দিয়েই এই প্রতারণা করেছেন অভিযুক্ত। শুধু মন্ত্রী-বিধায়কের সই জাল নয় বিশ্ব বাংলার লোগোও জাল করেছিল ওই অভিযুক্ত। প্রাথমিক তদন্তে এমনটাই জানতে পেরেছে পুলিস।

এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে অপর এক ভুক্তভোগী অসীম পাল বলেন, 'প্রথমে গ্রাহক হিসেবে এসে আমার বিশ্বাস অর্জন করে। কিন্তু পড়ে যখন বুঝতে পারি প্রতারিত, তখন প্রশাসনের দ্বারস্থ হই। পুলিস প্রশাসনের থেকেও সাহায্য পাই।' তাঁর মন্তব্য, সাংসদ-মন্ত্রীর লেটারপ্যাড বা সই কেমন হয়, আমাদের ধারণা ছিল না। তাই সহজেই প্রতারিত হয়েছি। এমনটাই সিএন-কে জানিয়েছেন অসীমবাবু।       






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন