০২ মার্চ, ২০২৪

ED: বিদেশি মুদ্রা লেনদেনের ব্যবসা! 'মন্ত্রী শঙ্করের নাম নিয়েছিলেন', নেপথ্যে কি জ্যোতিপ্রিয় প্রশয়?
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2024-01-06 16:32:51   Share:   

সন্দেশখালির পর এবার বনগাঁতে ফের হামলার মুখে পড়লেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডির আধিকারিকরা। কিন্তু এবার আর পিছুপা হয়নি কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। গ্রেফতারির পর রাত ২:৩০ মিনিট নাগাদ সিজিও কমপ্লেক্সে ঢোকানো হয় শঙ্কর আঢ্যকে। মুখে মাস্ক, গায়ে জ্যাকেট এবং ট্রাউজার্স পরে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী আধিকারিকদের ঘেরাটোপে গাড়িতে ওঠেন তিনি। কিন্তু তাঁর গ্রেফতারি নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি কোনও মন্তব্য করেননি।

সূত্রের খবর, শঙ্করের নামে রয়েছে একাধিক সংস্থা। সেগুলিই এবার চলে এসেছে ইডি-র নজরে। শঙ্কর এবং তাঁর পরিবার একাধিক বিদেশি মুদ্রা বিনিময় ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত বলেও খবর রয়েছে ইডি-র কাছে। অর্থলগ্নি সংস্থা রয়েছে বলেও সূত্রের খবর। শঙ্করের স্ত্রী, ছেলে এবং একাধিক আত্মীয় এই সংস্থাগুলির ডিরেক্টর পদে রয়েছেন বলেও জানা গিয়েছে। মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের নির্দেশই হাওয়ালার মাধ্যমে টাকা পাচার হতো। রেশন বন্টন দুর্নীতির যাবতীয় কালো টাকা সাদা করা হতো মন্ত্রীর নির্দেশে এমনটাই সূত্রের খবর।

যদিও বনগাঁ পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান অর্থাৎ শঙ্কর আঢ্যের স্ত্রী জ্যোৎস্না আঢ্য জানান, ইডির এক অফিসার গ্রেফতারের আগে শঙ্করবাবুকে বলেছিলেন, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক নাকি তাঁর নাম নিয়েছেন। তাই তাঁকে গ্রেফতার করা হচ্ছে।

তবে সূত্রের খবর প্রাক্তন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের ঘনিষ্ঠ শঙ্করকে কিছুদিন আগেই নোটিশ পাঠিয়ে ডেকেছিল কেন্দ্রীয় এই তদন্তকারী সংস্থা ইডি। যদিও সেই সময় হাজিরা এড়িয়ে যান বনগাঁ পুরসভার এই প্রাক্তন চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্য ওরফে ডাকু। রেশন দুর্নীতিতে বিপুল পরিমাণ অর্থ তছরুপের অভিযোগ ইতিমিধ্যেই সামনে এনেছে ইডি। জানা যাচ্ছে, হাজার কোটি নয়, ১০ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি হয়েছে রেশন দুর্নীতিতে। বাকিবুর, জ্যোতিপ্রিয়র পর এবার শঙ্কর আঢ্য। কোন কোন প্রভাবশালীর হাত রয়েছে এই দুর্নীতিতে আপাতত সেই পর্দা ফাঁস করতেই নতুন বছরের শুরু থেকেই চূড়ান্ত তৎপর ইডি।


Follow us on :