৩০ মে, ২০২৪

Abhishek: ধর্মতলা আজ যেন ভিভিআইপি ক্ষেত্র, যদিও বাহিনী নিয়ে প্রস্তুত ডিসি সাউথ
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2023-03-29 11:23:53   Share:   

মনি ভট্টাচার্য: বাংলায় একটা প্রবাদ আছে, নগরে আগুন লাগলে, দেবালয় কি রক্ষা পায়? এখন সরকারের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারীদের আন্দোলনকে যদি আগুন ধরা হয়, তবে সরকার নিশ্চয়ই দেবালয়। বুধবার সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ (Sangrami Mancha), অর্থাৎ সরকারি কর্মচারীদের ডিএ বৃদ্ধির আন্দোলনের (DA Agitation), সভা মঞ্চের উল্টোদিকে সভা করবেন অভিষেক। কিন্তু কেন ? রাজ্যে এত জায়গা থাকতে ওখানেই কেন? সরকারি রোষ নাকি রাজনৈতিক নায়কের মত, এই সভার মাধ্যমে আগুনে জল ঢালতে চাইছেন অভিষেক (Abhishek Banerjee), সেটাই এখন দেখার।

হাইকোর্টের অনুমতিতে বুধবারই, শহীদ মিনারে সভা হচ্ছে অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের। ঠিক তার বিপরীতে, ডিএ আদায়ের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন, অবস্থান বিক্ষোভ চালাচ্ছে সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ। অভিষেকের সভার অবস্থান নিয়ে বিরোধিতা করে হাইকোর্টে যায় সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ। ওই মামলার শুনানি পর পুলিশ নিরাপত্তা নিশ্চিত করলে, স্বর্ত সাপেক্ষে সভা করার অনুমতি পায় ছাত্র-যুব তৃণমূল। পুলিসের তরফ থেকে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। টিনের ব্যারিকেড দিয়ে ঘিরে ফেলা হয়েছে অভিষেকের সভাস্থল। সভায় প্রবেশের মুখ থাকবে মেয়ো রোডের দিক থেকে।

মঙ্গলবার ডিসি সাউথ, প্রিয়ব্রত রায় জানিয়েছেন, ' গোটা ঘটনা সামলে নেব, প্রচুর পুলিশ মোতায়েন থাকবে। কোনো বিক্ষিপ্ত ঘটনা ঘটতে দেব না। ' মঙ্গলবার বিচারপতি রাজশেখর মান্থা, রাজ্যের এডভোকেট জেনারেলকে জিজ্ঞেস করেন, প্রশাসন কি অন্য জায়গার সভা করার প্রস্তাব দিয়েছিল? উত্তরে তিনি বলেন, পুলিস নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে, তাছাড়া পাশাপাশি দুটি দলীয় সভাও আগে হয়েছে। সেখানে তৃণমূল আদালতের রায় মেনেই সভা করেছে। তারপরেই বিচারপতি মান্থা সভার অনুমতি দেয়, তবে বেশ কিছু স্বর্ত দিয়েছেন তিনি। সভায় কোনো উস্কানি মূলক মন্তব্য করা যাবে না। পাশাপাশি পুলিসকে কড়া নজরদারি রাখতে বলা হয়েছে।


যদিও অভিষেকের এই সভা নিয়ে বারবার প্রশ্ন তুলেছে সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ। ওই যৌথ মঞ্চের তরফে এক আন্দোলনকারী, সরকারি কর্মী কিঙ্কর অধিকারি বলেন, ' সরকার আমাদের ন্যায্য আদায়ের আন্দোলনে চাপে আছে, নইলে রাজ্যে এত জায়গা থাকতে আমাদের মঞ্চের ১১০ মিটার দূরে সভা করতে হয়। ' মঙ্গলবার তিনি জানান, ' আমরা হাইকোর্টের আইন মেনে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে আন্দোলন করছি। আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবো। আমরা কোনো ঝামেলা চাই না।'

সংগ্রামী মঞ্চের অভিযোগ ডিএ বৃদ্ধির ধর্মঘটে যোগ দেওয়ায়, শোকজ হয়েছেন রাজ্যের ২৩ হাজার শিক্ষক শিক্ষিকা। নবান্ন থেকে বদলি করা হয়েছে ৬ কর্মীকে। রাজ্য জুড়ে দুর্নীতিতে নাম জড়িয়েছে শাসক দলের একাধিক নেতা মন্ত্রীর। ডিএ বৃদ্ধির দাবিতে, অচলাবস্থা অবধি গড়াতে পারে এই আন্দোলন। যার ফলে সমস্ত কিছু নিয়ে পঞ্চায়েত ভোটের প্রাক্কালে, সরকার যে কিছুটা চাপে সেটা বলাই বাহুল্য। যদিও সেসব মানতে নারাজ রাজ্য তৃণমূল যুব সভানেত্রী সায়নী ঘোষ। তিনি মঙ্গলবার থেকেই সভাস্থলের তদারকি করেন, বার্তা দেন যুব কর্মীদের উদ্দেশ্যে, ওই সভায় বক্তব্য রাখবেন সায়নী ঘোষ নিজেও। তৃণমূলের অন্দরমহল সূত্রে খবর, কেন্দ্রের জনবিরোধী নীতি, বাংলাকে কেন্দ্রের বঞ্চনা ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে এই সভা। যদিও আজ অর্থাৎ বুধবার সংগ্রামী যৌথ মঞ্চের উল্টোদিকে, শাসকদলের এই ছাত্র-যুবর সভায় মূল বক্তা যুবরাজ অভিষেক বন্দোপাধ্যায়। তিনি বুধবারের সভায় কি এই ডিএ আন্দোলনের আগুনে জল ঢালবেন না আন্দোলন জিইয়ে রাখবেন সেটাই দেখার।



Follow us on :