ব্রেকিং নিউজ
Overcome-complications-offices-of-3-departments-of-the-corporation-will-be-built-in-Roxy-cinema-hall
KMC Roxy: জটিলতা কাটিয়ে পৌর সংস্থার ৩টি বিভাগের অফিস তৈরি করা হবে রক্সি সিনেমা হলে

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-08-05 16:25:01


রক্সি সিনেমা হল নিয়ে নস্টালজিয়া রয়েছে শহরবাসীর। ১৯৪০ সালে তৈরি কলকাতা শহরের বুকে চৌরঙ্গি প্লেসে ঐতিহ্যবাহী এই সিনেমা হল। এবার থেকে এই হলে সম্পূর্ণ ভাবে কলকাতা পৌর সংস্থার অফিস করা হচ্ছে। সংস্কারের কাজ শুরু হচ্ছে। আদালতের রায়ের পর সম্পূর্ণভাবে কলকাতা পৌর সংস্থার অন্তর্গত হওয়ার পর বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কাজে এই রক্সি সিনেমাকে ব্যবহার করছে কলকাতা পৌর সংস্থা।

করোনা কালে ভ্যাকসিন কেন্দ্র এবং বর্তমানে আধার কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহার করা হচ্ছে এই হেরিটেজ বাড়িকে। তবে ঐতিহ্যবাহী ভবন হওয়ায় রক্সি সিনেমা হলের বাইরে অবশ্য কোনও পরিবর্তন করা হচ্ছে না। বৃহস্পতিবার পৌর সংস্থার মেয়র পরিষদের বৈঠকে রক্সি সিনেমা হলকে অফিসের কাজে ব্যবহার করার প্রস্তাব পাস হয়েছে। হেরিটেজ কনজারভেন্স কমিটির সম্মতি পাওয়া গেছে বলে জানালেন মেয়র পরিষদ হেরিটেজ বিভাগ স্বপন সমাদ্দার। তিনি জানান যে এই ঐতিহ্যবাহী হলটিতে বেশ কয়েকটি দফতরের কাজ করারকর্ম জন্য ব্যবহার করা হবে । 

প্রয়োজনে শুধু রক্সির ভিতরের অংশে পৌর সংস্থার অ্যাসেসমেন্ট, মার্কেট বিভাগ এবং বিজ্ঞাপন বিভাগের অফিস তৈরি করা হবে। এতদিন ধরে হেরিটেজ হওয়ার বিষয়টি নিয়ে জটিলতা তৈরি ছিল। তবে হেরিটেজ কনজারভেন্স কমিটির ছাড়পত্র পাওয়ার পর ঐতিহ্যবাহী রক্সি সিনেমার বিভিন্ন দিক খুঁটিয়ে দেখে তার হেরিটেজ তকমাকে অক্ষুণ্ণ রেখে পৌর সংস্থার অফিস তৈরিতে সম্মতি দিয়েছে হেরিটেজ কমিটি।

উল্লেখ্য, ধর্মতলার বুকে চৌরঙ্গী প্লেসে অবস্থিত ঐতিহ্যশালী রক্সি সিনেমা যাত্রা শুরু করার আগে এটা একসময় ছিল অপেরা হাউস। ১৯৪০ সালে এটি সিনেমা হলে পরিবর্তিত করা হয়। জানা গেছে ঐতিহ্যমণ্ডিত এই সিনেমা হলে সিনেমা দেখতে এসেছেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু। বর্তমানে ঐতিহ্যবাহী এই ভবন কলকাতা পৌর সংস্থার মালিকানা সম্পত্তি। 

একসময় বেঙ্গল প্রপার্টিজ প্রাইভেট লিমিটেডকে রক্সি সিনেমা ৯৯ বছরের জন্য লিজ দিয়েছিল কলকাতা পৌর সংস্থা। ২০০৭-২০০৮ সালে এই লিজের চুক্তির মেয়াদ হয়ে যায়। কিন্তু তৎকালীন পৌর বোর্ড রক্সি সিনেমা হলকে দখলমুক্ত করতে কোনও উদ্যোগ নেয়নি বলে অভিযোগ করেছে বর্তমান তৃণমূল পরিচালিত পৌর বোর্ড। তৃণমূলের দখলে আসার পর এই বিষয়টি নজরে আসে। তার পরেই তৃণমূল পরিচালিত বোর্ডের মেয়র প্রথমে শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং পরে মেয়র ফিরহাদ হাকিম রক্সিকে দখলমুক্ত করতে উদ্যোগ নেন। সেই সময় এই সংস্থা পৌর সংস্থার সঙ্গে ফের চুক্তি করতে চায়। কিন্তু পৌর সংস্থার দাবি মত অর্থ দিতে নারাজ ওই সংস্থা আদালতে মামলা করেন। ২০১৭ সালে ওই মামলার রায়ে কলকাতা পৌর সংস্থার পক্ষ থেকে রক্সিকে পুনরুদ্ধার করা হয়।

তখন থেকেই মেয়র ফিরহাদ হাকিমের নেতৃত্বে রক্সি সিনেমা হল ভেঙে দিয়ে চলতি মাসেই তিনটি দফতরকে রক্সি সিনেমায় নিয়ে যাওয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বর্তমান পৌর বোর্ড। পৌর সংস্থার সূত্রের খুব শীঘ্রই অফিস তৈরি করার কাজ শুরু করা হবে। এতদিন রক্সি সিনেমা হেরিটেজ গ্রেড ২(এ) অধীনে থাকার জন্য জটিলতা তৈরি হয়। কিন্তু মেয়র পারিষদের বৈঠকে  সবুজ সংকেত পাওয়ায় দ্রুত এই তিনটি বিভাগের কাজ শুরু হবে।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন