১৪ জুন, ২০২৪

Justice Ganguly: 'যদি তদন্তকারীরা মার খান, তাহলে তদন্ত কীভাবে হবে?', সন্দেশখালি প্রসঙ্গে প্রশ্ন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2024-01-05 13:25:01   Share:   

রেশন দুর্নীতির তদন্তে শুক্রবার সাতসকালে সন্দেশখালিতে বালু ঘনিষ্ঠ নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে পৌঁছে যান ইডি আধিকারিকরা। কিন্তু সেখানে পৌঁছতেই রণক্ষেত্র হয়ে উঠল সন্দেশখালি। এবারে এই ঘটনা নিয়েই মুখ খুললেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। প্রশ্ন করেন, 'রাজ্যপাল কেন ঘোষণা করেছেন না যে এ রাজ্যে সাংবিধানিক পরিকাঠামো ভেঙে পড়েছে?' তিনি আরও বলেন, 'যদি তদন্তকারীরা মার খান তাহলে তদন্ত কিভাবে হবে? সংবাদ মাধ্যমের গায়ে হাত, কোথায় দাঁড়িয়ে আমরা?'

রেশন দুর্নীতির তদন্তে উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ কর্মাধ্যক্ষের শেখ শাহজাহানের বাড়িতে হানা দেয় কেন্দ্রীয় এজেন্সি। জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত তিনি। আর সেখানে ইডি-কে রুখতে তাঁদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে অনুগামীরা। প্রায় প্রাণভয়ে পালাতে শুরু করেন ইডি অফিসাররা। আর তখনই যাবতীয় রাগ উগরে দেওয়া হয় সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের উপর। শুক্রবারের এই ঘটনার উল্লেখ বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে করেন আইনজীবী সুদীপ্ত দাশগুপ্ত।

এরপরই বিচারপতির মন্তব্য, 'এই ঘটনা আমার জানা ছিল না। যদি এই ধরনের ঘটনা ঘটে থাকে, তাহলে ইডি আধিকারিকরা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যপালের দৃষ্টি আকর্ষণ করতেই পারে। এখন কেমন আছেন সবাই (যারা মার খেয়েছেন ), ওখানকার প্রশাসন কী করছিল? কোন বিধানসভা? পুলিস কি সেখানে ছিল? রাজ্যপাল কেনও এর ব্যবস্থা নিচ্ছেন না? এই সময় রাজ্যপালের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।' প্রশ্ন করেন, 'রাজ্যপাল কেনও এমার্জেন্সি অবস্থার ঘোষণা করছেন না? রাজ্যপাল কেন ঘোষনা করেছেন না যে এরাজ্যে সাংবিধানিক পরিকাঠামো ভেঙে পড়েছে? যদি তদন্তকারীরা মার খান, তাহলে তদন্ত কীভাবে হবে? সংবাদমাধ্যমের গায়ে হাত কোথায় দাঁড়িয়ে আমরা?'


Follow us on :