২১ এপ্রিল, ২০২৪

Ration Scam: কালো টাকা সাদা করার কারবার! আদালতে পেশ ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ দাসকে
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2024-02-27 13:38:33   Share:   

রেশনবন্টন দুর্নীতির তদন্তের গতি বাড়াতেই ধৃত শঙ্কর আঢ্যের কোম্পানির সূত্র ধরেই সামনে এসেছিল তার ম্যানেজার ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ দাসের নাম। আপাতত ইডি হেফাজতেই ঠাঁই হয়েছে ব্যবসায়ীর। মঙ্গলবার হেফাজত শেষে ফের আদালতে পেশ ধৃত বিশ্বজিৎ দাসকে।

সূত্রের খবর, দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদে একাধিক অভিযোগ উঠে এসেছে ধৃত ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। মূলত ইডি গোয়েন্দামহলের দাবি, তদন্তে অসহযোগিতা করছে বিশ্বজিৎ দাস। মানি এক্সচেঞ্জিং, আমদানি-রপ্তানি সহ সোনার গয়নার ব্যবসা রয়েছে বিশ্বজিতের। দুর্নীতির কালো টাকাও, ধৃত বিশ্বজিৎ দাসের মাধ্যমেই দুবাই সহ বিভিন্ন দেশের পাচার করা হত বলে ইডি সূত্রে খবর। কিন্তু তাঁর এই দুর্নীতির কারবারের সঙ্গে ধৃত মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের যোগাযোগ রয়েছে কি? ব্যবসায় কোনওভাবে কি মন্ত্রী টাকা লেনদেন করেছিলেন? ইডির প্রশ্ন কার্যত এড়িয়ে গিয়েছেন ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ দাস। এমনকি শেখ শাহজাহানের প্রসঙ্গ উঠলেও নীরব থাকতে দেখা গিয়েছে বিশ্বজিতকে।

প্রসঙ্গত, বিশ্বজিতের বাড়ি ও অফিসে তল্লাশি চালিয়ে ইডির আধিকারিকরা উদ্ধার করেছিলেন হাওয়ালা সংক্রান্ত বিপুল নথি। প্রমাণ মিলেছিল তারা নানাবিধ অসাধু কারবারের।২০১৬-২০১৭ এর মধ্যে দুবাইতে বিশ্বজিতের ৩টি কোম্পানির হদিসও পেয়েছিল ইডি। যাবতীয় প্রমাণ এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের হাতে আসার পরও বিশ্বজিৎ দাসের নিজেকে বার বার নির্দোষ দাবি করার মরিয়া চেষ্টা আদতে যে ধোপে টিকবে না তা সহজেই অনুমেয়। আগামীদিনে ইডির প্রশ্নবাণে ধৃত ব্যবসায়ীর কাছ থেকে রেশন দুর্নীতি সংক্রান্ত নতুন কোনও তথ্যের সন্ধান মেলে কিনা এখন সেটাই দেখার।


Follow us on :