০৫ মার্চ, ২০২৪

SSC: বেনামী আবেদনপত্র মামলা, সিঙ্গল বেঞ্চের সিবিআই তদন্তের নির্দেশ বহাল ডিভিশন বেঞ্চে
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2022-11-24 16:38:30   Share:   

সুপার নিউমেরিক পোস্ট (Super Neumeric Post) বা  (Calcutta High Court) অতিরিক্ত শূন্যপদে নিয়োগ সংক্রান্ত বেনামী আবেদনের মামলায় ডিভিশন বেঞ্চেও ধাক্কা খেল রাজ্য (Bengal Government) এবং এসএসসি (SSC)। সিঙ্গল বেঞ্চের রায়ই বহাল বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী ও বিচারপতি পার্থসারথি চট্টোপাধ্যায়ের বেঞ্চের  (Calcutta High Court)। বুধবার বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় রায় দিয়েছিলেন, অতিরিক্ত শূন্যপদে নিয়োগ সংক্রান্ত বেনামী আবেদনের পিছনে কারা? কাদের নির্দেশে এই শূন্যপদ তৈরি তদন্ত করবে সিবিআই। পাশাপাশি এদিন ডেকে পাঠানো হয়েছিল শিক্ষা সচিব মণীশ জৈনকে। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের (Justice Ganguly) সিঙ্গল বেঞ্চের রায় এই রায় বহাল রাখলো ডিভিশন বেঞ্চ।

এদিনের শুনানিতে হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণ, 'এটা অত্যন্ত বিস্ময়কর যে কীভাবে কমিশন অবৈধদের চাকরি দেওয়ার এরকম একটা আবেদন করল? কীভাবে অতিরিক্ত শূন্যপদে অযোগ্য প্রার্থীদের দিয়ে পূরন করার আবেদন আদালতের করা হল? একজন সচিবকে তলবের নির্দেশকে কীভাবে চ্যালেঞ্জ করা যায়।' এ প্রসঙ্গে উল্লেখ্য, সুপার নিউমেরিক পোস্ট নিয়ম মেনে তৈরি হয়নি। এভাবে বেআইনি ভাবে চাকরি দেওয়ার পথ তৈরি করেছে রাজ্য সরকার। এই অভিযোগ নিয়ে হাইকোর্টে মামলা করেন কয়েকজন চাকরিপ্রার্থী।

বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে এই মামলার শুনানিতে স্কুল সার্ভিস কমিশনের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেন বিচারপতি। বৃহস্পতিবার শিক্ষা সচিবকে হাজিরার নির্দেশ দেন বিচারপতি। তাঁর প্রশ্ন ছিল, 'কার নির্দেশে এই পদ তৈরি করে চাকরি দেওয়া হচ্ছে? এই পদ তৈরি কার মস্তিষ্ক প্রসূত?' বুধবার সচিব এসে বলে গিয়েছে সব দায়ভার কমিশনের। যদিও এই জবাবে সন্তুষ্ট নয় আদালত। কার অঙ্গুলিহেলনে এই অতিরিক্ত শূন্যপদ তৈরি, সেটা জানতে এদিন ডাক পড়েছিল শিক্ষাসচিব মনীশ জৈনের। পাশাপাশি এই অতিরিক্ত শূন্যপদ তৈরির পিছনে কার মাথা, জানতে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়।

এরপরেই সিঙ্গল বেঞ্চের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে ডিভিশন বেঞ্চে যায় রাজ্য এবং স্কুল সার্ভিস কমিশন। ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলার শুনানির পর আপাতত রায়দান স্থগিত রাখা হয়েছিল। এমনকি এই পোস্ট তৈরি করা নিয়ে প্রশাসনিক ত্রুটি আদালতে স্বীকার করেছে কমিশন। তবে ডিভিশন বেঞ্চে রাজ্য এবং কমিশন আবেদন করায় এদিন আর এই মামলার শুনানি হয়নি সিঙ্গল বেঞ্চে।


Follow us on :