সুখবর, অক্টোবরের শুরুতেই পর্যটকদের জন্য দরজা খুলছে কেরল

0

করোনা ভীতি কাটিয়ে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে দেশ। যদিও করোনা হানাদারি এখনও কমেনি। তবুও লকডাউন শেষ করে আনলক-৪ পর্বে প্রবেশ করেছে দেশবাসী। অক্টোবরেই শুরু হবে আনলক-৫, এই সময়ই পর্যটকদের জন্য নিজেদের দরজা খুলে দিতে চাইছে কেরল। পর্যটকদের কাছে ভগবানের আপন দেশ বলেই পরিচিত কেরল। অর্থাৎ পর্যটকদের কাছে কেরলের জনপ্রিয়তা শীর্ষেই আছে। করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় বন্ধ ছিল সমস্ত ট্যুরিস্ট স্পট, হোটেল, লজ, রিসর্ট ও গণ পরিবহন। এই পরিস্থিতিতে দেশের পর্যটন ব্যবসা প্রায় ধ্বংস হতে বসেছিল। এবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক পর্যটনকেন্দ্র, ধর্মীয় এবং ঐতিহাসিক স্থাপত্যগুলি খোলার অনুমতি দিয়েছে।

কিন্তু কেরলে করোনা সংক্রমণের হার উদ্বেগজনক থাকায় সেখানে পর্যটকদের আনাগোনায় ছাড় ছিলনা। এবার সেই ছাড়পত্র দিতে চলেছে কেরল সরকার। ওই রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী কে সুরেন্দ্রন জানিয়েছেন, অক্টোবর মাসের শুরু থেকেই পর্যটনে ছাড় দেওয়া হবে। ওই সময় থেকেই কেরল ঘুরতে আসতে পারবেন পর্যটকরা। এই জন্য রাজ্যের পর্যটন দফতর বিস্তারিত মাস্টার প্ল্যান তৈরি করছে বলেও জানিয়েছেন কেরলের পর্যটনমন্ত্রী। সূত্রের খবর, কেরলের বিখ্যাত আয়ুর্বেদ কেন্দ্রগুলিকে সামনে রেখেই পর্যটনের প্রসার করতে চাইছে সরকার। করোনা আবহে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে আয়ুর্বেদ চিকিৎসা সর্বজনগ্রাহ্য। আর কেরলে আয়ুর্বেদ পর্যটন বিশেষ জনপ্রিয়।

 

কেরল ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রি কয়েকবার দরবার করেছে রাজ্য সরকারের কাছে। করোনার জেরে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার জন্য পর্যটন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত কয়েক হাজার সংস্থা রীতিমতো ধুঁকছে। এই পরিস্থিতিতে রাজ্য ফের পর্যটকদের স্বাগত জানানোর সিদ্ধান্ত নিল। উল্লেখ্য, কেরলের মোট জিডিপি-র ১২ শতাংশই পর্যটন ব্যবসা থেকে আসে। গোটা রাজ্যে চার হাজারের বেশি হোটেল রয়েছে। পাশাপাশি হাউসবোট, হোম-স্টে, আয়ুর্বেদ রিসর্ট ছাড়াও রয়েছে অসংখ্য ট্যুর অপারেটর। এবার পর্যটকদের জন্য রাজ্যের দরজা খুলে দেওয়ায় পুজোর ছুটিতে ঘুরে আসতেই পারেন কেরল।