টানটান ম্যাচে হায়দরাবাদকে ১০ রানে হারাল আরসিবি

0

চলতি বছরে করোনা আবহে আদৌ আইপিএল অনুষ্ঠিত হবে কিনা সন্দেহ ছিল। তবে সব বাঁধা কাটিয়ে নানান বিধি-নিষেধ মেনে আমিরশাহিতে ফাঁকা স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে আইপিএল। আর সেটা স্বমহিমায়। প্রথম ম্যাচ গড়িয়েছিল সুপার ওভারে, তৃতীয় ম্যাচও হল টানটান উত্তেজনার। ১৩তম আইপিএল-এর প্রথম দক্ষিণ ভারতীয় ডার্বি ছিল সোমবার। বিরাট কোহলির রয়াল চ্যালেঞ্জ ব্যাঙ্গালুরুর মুখোমুখি হয়েছিল ডেভিড ওয়ার্নারের সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। কোহলির দলকে দারুণ চ্যালেঞ্জ দিয়েও শেষ দিকে মাত্র ২৭ বলে ৯ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ হারল হায়দরাবাদ। স্নায়ুযুদ্ধে হায়দরাবাদকে পর্যুদস্ত করে ব্যাঙ্গালুরু জিতল ১০ রানে।

যজুবেন্দ্র চাহাল

ম্যান অফ দি ম্যাচ যজুবেন্দ্র চাহাল, ৪ ওভার হাত ঘুরিয়ে মাত্র ১৮ রান দিয়ে মূল্যবান ৩ উইকেট দখল করেন চাহাল। প্রথমে ব্যাট করে রয়াল চ্যালেঞ্জ ব্যাঙ্গালুরু ২০ ওভারে ৫ উইকেটে তোলে ১৬৩ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ ১৯.৪ ওভারে ১৫৩ রানেই অলআউট হয়ে যায়। হায়দরাবাদের ৯ উইকেট মাত্র ২৭ রানেই পড়ে যায়। যদিও শুরুটা ভালোই করেছিল হায়দরাবাদ। অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার মাত্র ৬ রানে আউট হলেও অপর ওপেনার জনি বেয়ারস্টো ৪৩ বলে ৬১ ও তিনে নামা মনীশ পাণ্ডে ৩৩ বলে ৪৩ রান করে ভালো জায়গায় নিয়ে যান দলকে। এরপরই ম্যাচের রং ঘুরিয়ে দেয় যজুবেন্দ্র চাহাল। পরপর দু বলে ক্লিন বোল্ড করেন বেয়ারস্টো (৬১) ও প্রিয়ম গর্গকে (০)। এটাই ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট।

ওই ওভারেই আউট হন বিজয় শঙ্কর (০)। এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি ওয়ার্নারের দল। শেষ পর্যন্ত ১০ রান আগেই থআমে তাঁদের ইনিংস। অপরদিকে প্রথমে ব্যাট করে নবীন প্রতিভা দেবদূত পাডিক্কাল অসাধারণ ইনিংস খেললেন। ৪২ বলে ৫৬ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেললেন দেবদূত। অ্যারন ফিঞ্চও ২৯ রান করেন। কিন্তু ২০২ দিন পর মাঠে নেমে ডাহা ব্যর্থ বিরাট কোহলি। ১৩ বলে ১৪ রান করেই প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন ভারত অধিনায়ক।