ব্রেকিং নিউজ
zombie-diseas-spreads-among-deer-community-in-canada-while-cdc-warns-of-culling-and-eating-meat
Zombie Disease: এবার জম্বি ডিজিজ! কানাডার দুই প্রদেশে হরিণ শিকার না করার পরামর্শ

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-04-07 13:09:10


অদ্ভুত এবং অতি সংক্রামক এক রোগ কানাডার (canada) হরিণ প্রজাতির (Deer Species) মধ্যে ছড়াচ্ছে। ক্রনিক ওয়েস্টিং ডিজিজ বা সিডবলুডি (CWD) উত্তর আমেরিকার এই দেশের আলবার্তা এবং সাসকাটচেওয়ান প্রদেশে উদ্বেগের কারণ। এই রোগকে জম্বি ডিজিজ (Zombie Diseas) বলছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। আমেরিকার সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল বলেছে, 'সিডব্লুডি মূলত হরিণ প্রজাতির স্পট ডিয়ার, মুজ, রেইনডিয়ার, এল্ক এবং হরিণের মধ্যে ছড়িয়েছে। এই রোগ যথেষ্ট মারণ এবং চিকিৎসাহীন।'

জানা গিয়েছে, ১৯৬০-এ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডো, নেব্রাস্কা, ওক্লাহোমা, মিনেসোটা, সাউথ ডাকোটা, উইসকোনসিনে ছড়িয়েছিল। এখনও পর্যন্ত ইউএস-র ২৬টি প্রদেশে এই রোগ মহামারীর আকার নিয়েছিল। এরপর কানাডার এক এল্ক খামারে সিডব্লুডি ১৯৯৬ সালে মহামারীর আকার নিয়েছিল। সেখান থেকে বন্য হরিণে ছড়িয়ে পড়ে সেই রোগ।

মার্কিন সিডিসি সূত্রে খবর, হরিণ বা এল্ক শিকার করে খাওয়া হলে এই রোগে মানুষ আক্রান্ত হতে পারে। মূলত যাঁরা শিকারি, তাঁরা এই রোগে বিপজ্জনক বাহক। মূলত মৃত হরিণের দেহ অসতর্ক ভাবে বহন করলে রক্ত বা মস্তিষ্ক মাধ্যম দিয়ে দেহে ছড়িয়ে পড়তে পারে। কিংবা মাংস খেলেও এই রোগ মানব দেহে সংক্রমিত হতে পারে।

এই রোগের বাহক প্রোটিন অত্যাধিক তাপ অর্থাৎ রান্নার প্রভাবে ভাঙে না। ফলে রান্না করা মাংস থেকেও ছড়াতে পারে সিডবলুডি। তাই সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোলের পরামর্শ, অসুস্থ এমন কোনও হরিণ শিকার না করাই ভালো। পাশাপাশি মৃত বা আহত হরিণের দেহ বহনকালে হাতে রবারের গ্লাভস পরা বাধ্যতামূলক। সাধারণ রান্নায় ব্যবহৃত হয় এমন কোনও ধারালো অস্ত্র দিয়ে সেই হরিণের মাংস না কাটাই ভালো।

কীভাবে বোঝা যাবে হরিণ সিডবলুডি আক্রান্ত:

কানাডার প্রাণী সম্পদ দফতর বলেছে, যেহেতু এই রোগ সরাসরি মস্তিষ্কে আঘাত করে, তাই মানসিক ভারসাম্য নষ্ট হয়। মুখ থেকে লালা ঝরতে থাকে, অপ্রকৃতস্থ আচরণ, অত্যাধিক মূত্রত্যাগ এবং ওজন কমে যাওয়া--এই লক্ষণগুলো দেখা যায়। তাই একে জম্বি ডিজিজ বা রোগ আখ্যা দিয়েছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন