ব্রেকিং নিউজ
26-ministers-resign-in-SriLanka-at-the-same-time-mass-protests-across-the-country
Srilanka: দেশজুড়ে প্রবল গণবিক্ষোভের জের, শ্রীলঙ্কায় একসঙ্গে ২৬ মন্ত্রীর পদত্যাগ

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-04-04 09:41:35


প্রায় দেড় দশক আগেই সাবধান করেছিলেন দেশের তাবড় অর্থনীতিবিদদের একাংশ। আর সেই আশঙ্কাকে সত্যি করেই গত কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি খারাপ পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হল ভারত মহাসাগরের দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কাকে। অতিমারীর সময় থেকেই অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের ফলে মূল্যবৃদ্ধি এবং  বিদেশি ঋণের দায়। এই দুইয়ের সাঁড়াশি চাপেই প্রায় নাভিশ্বাস উঠেছে দেশের মানুষের। আর তার ফলেই সরকারের বিরুদ্ধে জনরোষ বাড়তে বাড়তে বর্তমানে হিংসাত্মক আকার নিয়েছে ছোট্ট এই দ্বীপরাষ্ট্রে।

দেশজুড়ে চলা প্রবল গণবিক্ষোভের জেরে রবিবার রাতে শ্রীলঙ্কায় প্রধানমন্ত্রী ছাড়া মন্ত্রিসভার বাকি ২৬ জন মন্ত্রী পদত্যাগ করেন। প্রধানমন্ত্রীর ছেলে তথা শ্রীলঙ্কার যুব এবং ক্রীড়া দফতরের মন্ত্রী নামাল রাজাপক্ষের পদত্যাগের পর সকলে ভেবেছিলেন  প্রধানমন্ত্রী মহিন্দা রাজপক্ষেও হয়ত পদত্যাগ করবেন। কিন্তু সেই খবর মিথ্যে বলে জানিয়ে দেওয়া হয় প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে। প্রধানমন্ত্রী পদে থাকছেন মাহিন্দা রাজাপক্ষে।

যে যে কারণে দেশকে অর্থনৈতিক সংকটের মুখে পড়তে হয়---

১) তামিল বিদ্রোহীদের নির্মূল করতে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষে সামরিক খাতে বিপুল ব্যয় করেন।

২) করোনার অতিমারীর সময়েই অর্থনৈতির বিপর্যয়ে সিঁদুরে মেঘ দেখা দিয়েছিল।

৩) ২০১৯ সালের শেষের দিকে শ্রীলঙ্কার বিদেশি ঋণের পরিমাণ ছিল মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের ৯৪ শতাংশ। 

৪) ২০২১ সালের মধ্যে সেই ঋণ পৌঁছে যায় ১১৯ শতাংশে। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই বন্ধ হযে যায় বিদেশি ঋণের পথও।

৫) চলতি বছরেই আন্তর্জাতিক ঋণ এবং সুদ পরিশোধ করতে কমপক্ষে ৬৯০ কোটি ডলার খরচ করতে হবে শ্রীলঙ্কাকে। অথচ সরকারি তথ্য অনুযায়ী বিদেশি মুদ্রার মাত্র ২৩১ কোটি টাকা রয়েছে দেশের অর্থভান্ডারে ।

১৯৪৮ সালের পর স্বাধীনতা উত্তরকালে এ পর্যন্ত এমন ভয়ঙ্কর আর্থিক চাপের মুখে পড়েনি দেশের মানুষ। জানা গিয়েছে, অতিমারীর সময় আর্থিক অভাব এবং বৈদেশিক মুদ্রার তলানিতে পৌঁছে যাওয়া তো আছেই।  তারপর কিছুদিন ধরেই শ্রীলঙ্কার বাজারে আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছিল চিনা প্রভাব। দেশের বৈদেশিক ঋণের একটা বড় অংশই এসেছে চিন থেকে। তারুপর আগামী ২ বছরের মধ্যে ৩৫০ কোটি ডলার ঋণশোধ করার খাঁড়া ঝুলিয়েছে চিন। অথচ দেশের একেবারেই ভাঁড়ে মা ভবানি দশা। ফলে বিপাকে দেশের সরকার থেকে সাধারণ মানুষ।

উল্লেখ্য, খাবার নেই, জ্বালানি নেই, নেই বিদ্যুৎ। আর তাতেই দেশের মানুষের ধৈর্য্যের বাঁধ ভেঙেছে। ক্ষিপ্ত জনতা শুক্রবার সন্ধ্যায় ঘেরাও করে দেশের রাষ্ট্রপতি গোতাবায়া রাজাপক্ষের বাড়ি। উন্মত্ত জনতাকে বাগে আনার জন্য তলব করা হয় সামরিক বাহিনীকেও। পুলিস এবং সামরিক বাহিনীর দিকে পাথর ছুঁড়তে থাকে জনতা। পুলিস এবং সেনাবাহিনী কাঁদানে গ্যাস এবং জলকামান চালিয়ে ক্ষিপ্ত জনতাকে ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে। শুক্রবার সন্ধ্যার ঘটনার জেরে নতুন করে দেশে কারফিউ জারি করা হয়েছে।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন