একদিনের সিরিজে হোয়াইট ওয়াশ হল ভারত

0
465

নিউজিল্যান্ডে গিয়ে টি-২০ সিরিজে ৫-০ ব্যবধানে জিতেছিল ভারত। তারই মধুর প্রতিশোধ নিল নিউজিল্যান্ড। ওয়ান ডে সিরিজ তাঁরা জিতল ৩-০ ব্যবধানে। শেষ ম্যাচ ছিল তাই নিয়মরক্ষার। তবুও ভারতের কাছে এই ম্যাচ ছিল সম্মান রক্ষার। মঙ্গলবার মাউন্ট মাউঙ্গানুইয়ে টসে হেরেও ভারত তোলে ২৯৬ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে তিন ওভার বাকি থাকতেই কিউইরা জিতে গেল ৫ উইকেটে। মঙ্গলবার টসে জিতে নিউজিল্যান্ড ভারতকে ব্যাট করতে পাঠায়। মাউন্ট মাউঙ্গানুইয়ে এদিন শুরুটা ভালো হয়নি ভারতের। হিটম্যান রোহিত শর্মার বদলে নামা মায়াঙ্ক আগরওয়াল মাত্র ১ রানেই প্যাভিলিয়নে ফেরে। অধিনায়ক কোহলিও মাত্র ৮ রানেই আউট হয়ে যায়। আরেক ওপেনার পৃথ্বী শ ৪০ রান করলেও ফের বড় রান করতে ব্যর্থ হলেন। এই অবস্থা থেকে দলকে টেনে তুললেন সেই লোকেশ রাহুল ও শ্রেয়স আয়ার জুটি। পার্টনারশিপে ১০০ রান যোগ করার পর শ্রেয়স আউট হলেন ৬২ রানে। কিন্তু রাহুল দুর্দান্ত সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ভারতকে সুবিধাজনক অবস্থায় তুলে নিয়ে এলেন। রাহুলের ব্যাট থেকে এল ১১৩ বলে ১১২ রান। শ্রেয়স আউট হওয়ার পর রাহুল জুটি বাধে মনীশ পাণ্ডের সঙ্গে। এই উইকেটে তাঁরা যোগ করলেন ১০৭ রান। মনীশ করলেন ৪২ বলে ৪৮ রান। শেষ পর্যন্ত ভারত তিনশোর গণ্ডী পেরোতে না পারলেও সম্মানজনক রান করেছে।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে নিউজিল্যান্ডও ভালো শুরু করে। প্রথম উইকেটেই নিউজিল্যান্ডের দুই ওপেনার যোগ করেন ১০৭ রান। মার্টিন গাপ্তিল ৬৬ রানে আউট হন চাহালের বলে। এরপর কিউইদের ইনিংস এগিয়ে নিয়ে যান অপর ওপেনার হেনরি নিকোলাস। তিনিও করে গেলেন ৮০ রান। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামস ২২ রানে আউট হলেও টম ল্যাথাম ও গ্র্যান্ডহোমে ম্যাচ জিতিয়ে দিলেন নিউজিল্যান্ডকে। ল্যাথাম ৩২ ও শেষের দিকে মাত্র ২৮ বলে গ্র্যান্ডহোমে ৫৮ রান করে অপরাজিত থাকলেন। ফলে ১৭ বল বাকি থাকতেই নিউজিল্যান্ড পৌঁছে যায় ৩০০ রানে। গোটা সিরিজে অফ ফর্মে অধিনায়ক কোহলি, তাঁর ব্যাট থেকে এসেছে মাত্র ৭৫ রান। শিখর ধাওয়ান ও রোহিত শর্মারও বড় চোট রয়েছে। ফলে টি-২০ বিশ্বকাপের আগে চিন্তায় ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট।

 

ছবি: বিসিসিআই ট্যুইটার থেকে নেওয়া…

SHARE