বঙ্গোপসাগরে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা

0

বর্ষার আগে এবং বর্ষার পরে দু’দফায় ভারতে ঘূর্ণিঝড়ের মরসুম। এই সময় ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টির সহায়ক পরিবেশ তৈরি হয় বলে জানিয়েছেন মৌসম ভবনের ডিরেক্টর জেনারেল মৃত্যুঞ্জয় মহাপাত্র। ফলে বঙ্গোপসাগর ও আরব সাগরে কোনও ঘূর্ণিঝড়ের সম্ভাবনা রয়েছে কিনা দু সপ্তাহ আগেই জানিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন আবহবিদরা। বৃহস্পতিবারই দিল্লির মৌসম ভবন বুলেটিন প্রকাশ করেছে, সেখানে জানানো হয়েছে মে মাসের প্রথমেই বঙ্গোপসাগরে তৈরি হতে পারে প্রবল ঘূর্ণিঝড়। আন্দামান সাগর লাগোয়া দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে একটি ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হতে পারে বলেই ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে ওই বুলিটিনে। গোটা দেশ বর্তমানে লড়াই চালাচ্ছে করোনা ভাইরাসের সঙ্গে। একমাসের ওপর দেশে লকডাউন চলছে। এই পরিস্থিতিতে নতুন ত্রাস হয়ে দেখা দিতে পারে ঘূর্ণিঝড়। তবে এই ঘূর্ণিঝড় কতটা শক্তিশালি হবে আর কোন এলাকায় সেটা তটভূমি স্পর্শ করবে সেটা এখনই জানানোর সময় আসেনি বলেই জানিয়েছে দিল্লির মৌসম ভবন। তবে আবহবিদরা অনুমান করছেন, ওই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব পড়তে পারে আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে। তবে সেটি শক্তি বাড়িয়ে মূল ভুখণ্ডের দিকেও চলে আসতে পারে বলে মনে করছেন তাঁরা। মায়ানমারের আবহাওয়া দপ্তরও এপ্রিলের শেষে একটি গভীর নিম্নচাপ সৃষ্টির পূর্বাভাস দিচ্ছে। তবে যদি ওই নিম্নচাপ যদি ঘূর্ণিঝড়ের চেহারা নেয়, তবে সেটার নাম হবে ‘উম্পুন’। এই নাম দিয়েছে তাইল্যান্ড।