ব্রেকিং নিউজ
Peter-Cats-Chello-Kebab-Mystery
Restaurant: পিটার ক্যাটের চেলো কাবাব রহস্য

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-07-19 20:08:31


শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায়: সারা ভারতবর্ষের খাদ্যরসিকদের কাছে কলকাতার পার্ক স্ট্রিটের পিটার ক্যাট রেস্তোরাঁর কন্টিনেন্টাল, মোগলাই ও নর্থ ইন্ডিয়ান খাবারের বিশেষ সুনাম। এই রেস্তোরাঁয় পরিবেশিত প্রতিটি খাবারই স্বাদেগন্ধে অতুলনীয়। তবে এখানকার সবচেয়ে বিখ্যাত বা সিগনেচার ডিস হল চেলো কাবাব। এই চেলো কাবাবের আকর্ষণে খাদ্যরসিকরা বারে বারে ছুটে আসেন ৪৭ বছরের প্রাচীন এই রেস্তোরাঁয়।


১৯৭৫ সালে এই রেস্তোরাঁটি চালু করেন নীতিন কোঠারি। পার্ক স্ট্রিটের স্টিফেন কোর্টের নিচে বাতানুকুল সুন্দর অন্তঃসজ্জা বিশিষ্ট অভিজাত এই রেস্তোরাঁর শুরুর দিন থেকেই নীতিন কোঠারি ভেবেছিলেন, এমন একটি পদ তাঁর রেস্তোরাঁতে পরিবেশন করতে হবে, যা অন্য রেস্তোরাঁর খাবারের চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা হবে এবং যে পদের টানে খাদ্যরসিকদের ভিড় উপচে পড়বে। এই নতুন পদ নিয়ে চিন্তা করতে করতে নীতিনের মনে পড়ে যায় অনেকদিন আগে সুদূর ইরানের তেহরান শহরে একজনের বাড়িতে আমন্ত্রিত হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে নিমন্ত্রণকর্তা নীতিনকে একটি বড় থালাতে সুগন্ধি চালের ধোঁয়া ওঠা ভাতের মধ্যে দেদার মাখন ছড়িয়ে দিয়ে তার মধ্যে গোটা সাতেক কাঁচা ডিম ফাটিয়ে নুন ও গোল মরিচের গুঁড়ো ছড়িয়ে দিয়ে হাতার সাহায্যে ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে তার সঙ্গে এক প্লেট ভর্তি চিকেন ও মাটনের মশলাদার সুস্বাদু কাবাব সহযোগে খেতে দিয়েছিলেন। ডিম,  মাখন, নুন, গোলমরিচের গুঁড়ো সহযোগে মাখা ভাত দিয়ে সুস্বাদু ইরানি কাবাব খেতে বেশ ভালোই লেগেছিল।

তেহরানের সেই অভিনব ভোজের কথা মনে পড়তেই নীতিনের মাথায় বিদ্যুৎ খেলে যায়। এই খাবারের কনসেপ্ট থেকেই খানিকটা অদলবদল ঘটিয়ে নতুন পদের সৃষ্টি করলেন নীতিন কোঠারি। এক প্লেট সুগন্ধি বাসমতি চালের ধোঁয়া ওঠা ভাতের মধ্যে বড় তিন দলা মাখন, ফ্রায়েড এগ, সঙ্গে পরিবেশিত পারশিয়ান হার্ভস ও অন্যান্য মশলায় ম্যারিনেট করা ইরানি স্টাইলে তৈরি চিকেন কাবাব ও রকমারি মশলা ও মটন কিমা দিয়ে তৈরি মশলাদার মাটন শিক কাবাব--এই হল চেলো কাবাব।


শুরুর দিকে নীতিনের মনে খানিকটা সংশয় ছিল যে ভাতের সাথে কাবাব ক্রেতাদের কাছে কতটা গ্রহণযোগ্য হবে? এই পদটি চালু হবার কিছুদিনের মধ্যেই অবশ্য সেই সংশয় দূর হয়ে যায়। নুন, গোলমরিচের গুঁড়ো, মাখন, ডিম ভাজা সহযোগে মাখা সুগন্ধি গরম ভাতের মজা নিতে নিতে তার সাথে জিভে জল আনা রকমারি মশলা ও পারস্যর বিশেষ হার্ভস দিয়ে ম্যারিনেট করা তন্দুরে শেকা খণ্ড খণ্ড ক্যাপসিকাম, টমেটো ও পেঁয়াজের স্লাইসের সঙ্গে বড় বড় স্বাদু বোনলেস চিকেনের খণ্ডতে কামড় দিতেই গলে পাক। এর সঙ্গে স্বর্গীয় মশলাদার মটন শিক কাবাবের সুষ্ঠু সঙ্গম। সব মিলিয়ে পরম তৃপ্তিদায়ক। প্রথম দিন থেকেই  ক্রেতারা এর প্রেমে পড়ে যান। বাঙালি তো বটেই, তামাম ভারতের খাদ্যরসিকরা তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করেছেন সেই শুরুর দিন থেকে। সেই ধারা আজও অব্যাহত। কয়েক বছর আগে রাহুল গান্ধি কলকাতায় এসে কিছু না জানিয়ে হুট করে পিটার ক্যাটে সবার সঙ্গে বসে নৈশভোজ সেরেছিলেন। অনেক পদ খেলেও সবচেয়ে তৃপ্তি করে খেয়ে প্রশংসা করে গিয়েছিলেন এখানকার সুস্বাদু গ্রিলড ফিশ ও চেলো কাবাবের। আর মাত্র তিন বছর বাদে সুবর্ণজয়ন্তী পালন করবে পিটার ক্যাট রেস্তোরাঁ। আজও এখানে পরিবেশিত খাবারের মান ও পরিমাণ একই রকম রয়েছে।

পিটার ক্যাটের চেলো কাবাবের দাম ৪৯৫ টাকা।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন