Breaking News
Senior Citizen: কেউ আতঙ্কে, কেউ আবার দিব্যি আছেন, শহর কলকাতায় কেমন আছেন একাকী বয়স্করা?      cctv: ঘুমের ব্যাঘাত হওয়ায় মারধর! সিসিটিভি ফুটেজ দেখে গ্রেফতার বৃদ্ধার পরিচারিকা      Mamata: 'বাংলায় বিনিয়োগ করলে...' দুবাইয়ের মঞ্চ থেকে বিনিয়কারীদের পথ দেখালেন মমতা      Parineeti-Raghav:শনিবার সকাল ১০টা বাজতেই শুরু হল পরিণীতি-রাঘবের বিয়ের অনুষ্ঠান      Manish: শর্ত সাপেক্ষে জামিন পেলেন অনুব্রতর হিসেব রক্ষক মনীশ কোঠারি      Summon: পুর-নিয়োগ দুর্নীতিতে আরও ৩৪ পুর-কর্মীকে তলব, চাপে মদনের পুরসভা কামারহাটি      Anubrata: পিছল ইডির করা মামলা, মেয়ের মত অনুব্রতরও পুজো কাটতে চলেছে তিহারে      Court: আদালতে কিছুটা স্বস্তি রাজ্যের, সমবায় দুর্নীতির তদন্ত সিবিআইয়ে আস্থা সার্কিট বেঞ্চের      Nipah virus: নিপা আতঙ্ক এবার বাংলাতেও, বেলেঘাটা আইডিতে ভর্তি কেরল ফেরত পরিযায়ী শ্রমিক      Abhishek: ফের আদালতে ধাক্কা অভিষেকের, লিপস অ্যান্ড বাউন্ডস মামলায় মিলল না বাড়তি সময়     

kolkata

NABANNA মুখ্যসচিব-জেলাশাসক বৈঠক, প্রকল্প রূপায়ণের সময়সীমা বাঁধলেন দ্বিবেদী

প্রশাসনিক বৈঠক করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় বিভিন্ন প্রকল্পের রূপায়ন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে করার জন্য মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেইমত শুক্রবার নবান্নে সভা করে বিভিন্ন জেলার জেলাশাসকদের সঙ্গে একটি বৈঠক সারেন মুখ্যসচিব এইচ কে দ্বিবেদী। তিনি মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ বাস্তবায়নে নির্ধারিত সময়সীমা বেঁধে দেন এই বৈঠক থেকে।

প্রশাসনিক সূত্রে জানা যায়, "বাংলা আবাস যোজনা" প্রকল্পে তপশিলি জাতি ও উপজাতিদের অগ্রাধিকার দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি জানান, এই প্রকল্পে এসসিএসটি তালিকাভুক্তদের বাড়ি আগে তৈরি করতে হবে। ১০০ দিনের কাজের প্রকল্পের অর্থ যথাযথভাবে ব্যবহার করার ওপরও তিনি জোর দেওয়ার কথা বলেন। এই প্রকল্পের টাকা যাতে অপচয় না হয়, সে বিষয়ে তিনি জেলাশাসককে স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি নির্দেশ দিয়েছেন প্রয়োজন বুঝে খরচ করতে হবে।

সঙ্গেই "উৎকর্ষ বাংলা" প্রকল্পের মাধ্যমে কর্মহীনদের কর্মসংস্থানের গতি আনতে মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া নির্দেশ অবিলম্বে পালন করতে মুখ্যসচিব জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দেন। সঙ্গেই তিনি জানান, প্রতিটি পঞ্চায়েত এলাকায় আগ্রহী স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে পোশাক তৈরির প্রশিক্ষণ দিতে হবে। স্কুলের পোশাক তৈরি সহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিতে হবে উৎকর্ষ বাংলা প্রকল্পের মাধ্যমে। এই সদস্যরাই রাজ্যে প্রাথমিক স্কুলের পড়ুয়াদের পোশাক তৈরি করবে। যা স্কুলপড়ুয়াদের মধ্যে বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে। মুখ্যমন্ত্রী এই কর্মসূচির জন্য অন্য রাজ্যের উপর নির্ভরতা কমিয়ে স্বনির্ভর হওয়ার ওপরে জোর দিয়েছেন। এই প্রকল্প অতি দ্রুত হওয়ার জন্য মুখ্যসচিব জেলায় জেলায় স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সংখ্যা আরও বাড়ানোরও নির্দেশ দেন।

বাদ যায়নি ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পও। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পীদের উৎসাহ দিতে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ মত রাজ্যে ছোট শিল্প, পার্কের সংখ্যা বাড়ানোর নির্দেশ দেন। জেলায় জেলায় অন্তত তিনটি করে এই ধরণের শিল্প গড়ে তোলার নির্দেশ দিয়েছেন। নির্মীয়মাণ সমস্ত প্রকল্পগুলির কাজ মার্চ মাসের মধ্যে শেষ করতে হবে বলেও জেলাশাসকদের নির্দেশ দেন মুখ্য়সচিব।

2 years ago
আঁতকে ওঠা দুর্ঘটনার ছবি

ছবি দেখেই আঁতকে উঠতে হয়। যেন জীবন হাতে নিয়েই যাতায়াত সাধারণ মানুষের। যে কোনও সময় যেন নেমে আসতে পারে ভয়াবহ দুর্ঘটনা। এই ঘটনা গত রবিবারের। সেই ছবি ভাইরাল হল বৃহস্পতিবার। রবিবার ধর্মতলার ডোরিনা ক্রসিংয়ে এই বাস দুর্ঘটনায় আহত হয়েছিলেন ২৪ জন। তাদের প্রত্যেককেই নিয়ে যাওয়া হয় এসএসকেএম হাসপাতালের ট্রমা কেয়ার সেন্টারে। একজনের চোট ছিল গুরুতর। প্রাথমিক চিকিত্সার পর সেদিনই অন্যদের ছেড়ে দেওয়া হয়। কিন্তু বিপদ যে হতে পারত অনেক ভয়াবহ, তা ছবিতেই স্পষ্ট।

সেদিন পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে দুর্ঘটনাস্থলে যান ডিসি ট্রাফিক অরিজিত্ সিনহা। এসএসকেএমে গিয়ে তিনি দেখে আসেন আহতদের। আপাতত সকলেই সুস্থ। সবাই নিজের বাড়িতে। কিন্তু দুর্ঘটনার ভাইরাল হওয়া ছবিতে জেগে উঠল যেন আতঙ্ক।

2 years ago
Ladies toilet মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে কলকাতার ১৪৪ টি ওয়ার্ডেই মহিলা টয়লেট

রাজ্যের মহিলা মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে সব সময় মহিলাদের অগ্রাধিকার দিয়ে থাকেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজনীতির ময়দান থেকে শুরু করে সামাজিক, বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নেও মহিলাদেরই প্রাধান্য দিচ্ছেন তিনি। তাই কলকাতা পৌর নিগমের নির্বাচনের আগে দলীয় ইস্তেহারে ১৪৪ টি ওয়ার্ডেই মহিলা টয়লেট করার নির্দেশ দিয়েছিলেন।   

কলকাতা পুরসভার বস্তি বিভাগের মেয়র পারিষদ স্বপন সমাদ্দার জানিয়েছিলেন, প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে মহিলা টয়লেট তৈরি করার জন্য সমস্ত জনপ্রতিনিধিকে চিঠি দিচ্ছেন তিনি। বিষয়টি নিয়ে আরও একধাপ এগিয়ে তিনি জানালেন, কাউন্সিলরদের চিঠি দেওয়ার ফলে তাঁদের মধ্যে অনেকেই জমি চিহ্নিত করে ফেলেছেন। বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে ইতিমধ্যে তাঁদের প্রস্তাব এসে পৌঁছচ্ছে। তবে তিনি একথাও স্বীকার করেছেন, অনেক ওয়ার্ডে জমি চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে সমস্যা হচ্ছে। উপযুক্ত জায়গায় জমি পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে বিকল্প ব্যবস্থা হিসাবে মহিলা টয়লেট তৈরি করার জন্য পরিত্যক্ত অবস্থায় থাকা পুরনো টয়লেটেকেই সংস্কার করে মহিলা টয়লেট তৈরি করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সব সময় মহিলাদের অগ্রাধিকার দেওয়ার উপর জোর দেন। তাই তাঁর নির্দেশ মেনে মহিলাদের জন্য অত্যাধুনিক মহিলা টয়লেট তৈরি করা হবে। অন্যদিকে তাঁর এই চিঠির প্রাপ্তি স্বীকার করে ৩ নম্বর বোরো চেয়ারম্যান ও ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর অনিন্দ্যকিশোর রাউত জানিয়েছেন, তাঁর ওয়ার্ডে ইতিমধ্যে মহিলা টয়লেট করার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে। পে অ্যান্ড ইউজ টয়লেটের জায়গায় বিকল্প মহিলা টয়লেট করার চিন্তাভাবনা রয়েছে। একইভাবে ১৩ নম্বর বোরো চেয়ারম্যান এবং ১১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রত্না শূরও একই কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, তাঁর অঞ্চলে একটা জায়গা চিহ্নিত করা হয়েছে। যেখানে শুধুমাত্র মহিলাদের জন্য শৌচালয় তৈরি করা হবে। যেখানে মহিলাদের টয়লেট করার পাশাপাশি শিশুদের ব্রেস্ট ফিডিং করার জায়গা এবং স্নান করা ও পোশাক বদল করার ঘরও থাকবে। সেই ব্যবস্থাপনা করার জন্য ইতিমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে বলে জানালেন ১৩ নম্বর বোরো চেয়ারম্যান তথা ১০৫ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর রত্না শূর। সবার একটাই সুর, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়র মস্তিষ্কপ্রসূত মহিলা টয়লেটকে যত শীঘ্র সম্ভব তৈরি করার জন্য প্রয়াস শুরু হয়েছে।

2 years ago


Sex Racket : নিউটাউনে সেক্স র‍্যাকেট, ধৃত নাবালক-সহ ৫

ফোন ধরেই শুনতে পান তাঁর নাম সেক্স র‍্যাকেটে জড়িয়েছে। সেখান থেকে নাম মুছতে তাঁকে দিতে হবে 'মোটা ক্ষতিপূরণ'। কলকাতা পুলিসের কর্মী পরিচয় দিয়ে এমনই একটি ফোন আসে এক ব্যক্তির কাছে। স্বাভাবিকভাবেই হতচকিত হয়ে যান ফোনের এপারে থাকা ব্যক্তিটি। আতঙ্কের পাশাপাশি তাঁর বিষয়টি সন্দেহজনক লাগে। সঙ্গে সঙ্গে তিনি অভিযোগ দায়ের করেন লালবাজার সাইবার ক্রাইমে।

অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করে কলকাতা পুলিসের সাইবার ক্রাইম থানা। গোপন সূত্রে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার রাতে তল্লাশি চালানো হয় নিউটাউন শাপুরজি আবাসনে। এরপরই প্রতারণা চক্রের পর্দা ফাঁস করে লালবাজার। অভিযান চালিয়ে এক নাবালক-সহ পাঁচ জনকে গ্রেফতার করেছে কলকাতা পুলিস সাইবার ক্রাইম শাখা।

পুলিস সূত্রে খবর, তদন্তে নেমে ফোন নম্বর ট্র্যাক করে দেখা যায়, মোবাইলের অবস্থান রাজারহাটের সাপুরজি আবাসন। আরও বিভিন্ন সূত্রে তথ্য সংগ্রহের পর লালবাজারের সাইবার ক্রাইম থানার পুলিস, আবাসনে অভিযান চালায়। আবাসনের এল ব্লক ও সি ব্লকে বাড়ি ভাড়া নিয়ে সেক্স র‍্যাকেট চলতো। পাশাপাশি বিভিন্ন মানুষকে ব্ল্যাকমেল করে টাকা হাতিয়ে নিত অভিযুক্তরা। ধৃতদের থেকে মোবাইল ফোন-সহ বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে একটি বাইকও।

সাপুরজি আবাসনের এক বাসিন্দা জানান, একের পর এক অপরাধ ঘটে চলেছে। আর এই আবাসন হয়ে উঠেছে তার আঁতুড়ঘর। নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তাঁরা। এরকম চলতে থাকলে আবাসন ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হবেন বাসিন্দারা। রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে এই কথা বলেন ওই বাসিন্দা।

এই প্রতারণা চক্র পুলিসের পরিচয় দিয়ে আরও কত জনের থেকে টাকা আদায় করেছে? তাও খতিয়ে দেখছে লালবাজার সাইবার ক্রাইম।

2 years ago
kolkata rash driving সাউথ সিটিতে বেপরোয়া গাড়ি, অল্পের জন্য রক্ষা পুলিসকর্মীর

রাতের শহরে ফের বেপরোয়া গতি।  অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচলেন কর্তব্যরত পুলিসকর্মী। সাউথ সিটির সামনে থেকে বেপরোয়া ওই গাড়ি সহ চালককে আটক করে লেক থানার পুলিস।

পুলিস সূত্রে খবর, বুধবার রাত আনুমানিক সাড়ে ৯টা নাগাদ দ্রুত গতিতে একটি চারচাকার গাড়ি  যাদবপুর থেকে লর্ডস-এর দিকে আসছিল। একটি চারচাকার গাড়িকে বেপরোয়া গতিতে সাউথ সিটির দিকে যাওয়ার খবর পেয়ে সেখানে আটকানোর চেষ্টা করে পুলিস। সে সময় পুলিসকে ধাক্কা মেরে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে ওই চালক।

যদিও পুলিসের তৎপরতায় সাউথ সিটি থেকে আটক করা হয় ওই গাড়ি সহ বেপরোয়া চালককে। লেক থানার পুলিস চালককে আটকের পর মেডিকেল টেস্ট করানোর জন্য নিয়ে যান। গাড়ির মধ্যে একটি মদের বোতল পাওয়া গিয়েছে। চালক মদ্যপ ছিল কিনা তাও খতিয়ে দেখছেন লেক থানার পুলিস।

2 years ago


school reopen কাল ফের স্কুলমুখী পড়ুয়ারা

রাজ্যের বেশ কিছু জায়গায় স্কুল-কলেজ খোলার দাবিতে বিক্ষোভ, মিছিল, আন্দোলনে সামিল হয়েছিল বিভিন্ন সংগঠন। আগে সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসারে খুললেও তা করোনার জেরে ফের তালাবন্দি অবস্থায় পরিণত হয়। তবে এবার দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান। অবশেষে ৩ রা ফেব্রুয়ারি থেকে খুলতে চলেছে রাজ্যের সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তবে স্কুলের ক্ষেত্রে তা শুধুমাত্র অষ্টম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্তই খোলার নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার। ফলে খুশির আমেজ পড়ুয়াদের। সেইমত বিভিন্ন স্কুলে চলছে জোরকদমে প্রস্তুতি। পড়ুয়াদের স্বাস্থ্যের কথা মাথায রেখে চলছে স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থা, পরিস্কার-পরিচ্ছন্নের কাজ।

উল্টোডাঙার দেশবন্ধু বালিকা বিদ্যালয়েও চলছে স্কুল চত্বর পরিষ্কারের কাজ। সঙ্গে চলছে স্যানিটাইজেশনের কাজও। এছাড়া কীভাবে বসানো হবে ছাত্রীদের ৩ তারিখ অর্থাত্ বৃহস্পতিবার থেকে, সেই পরিকল্পনাও করে ফেলেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। ছাত্রীদের যাতে কোনওরকম অসুবিধা না হয়, সেদিকেও লক্ষ্য রাখছে স্কুল কর্তৃপক্ষ, এমনটাই জানান এই স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা।

একই ছবি রুবির দিল্লি পাবলিক স্কুলে। সেখানেও শুরু হয় স্যানিটাইজেশন করার ব্যবস্থা।  ক্লাসরুম থেকে হলঘর সমস্ত জায়গাতেই করোনার বিধিনিষেধ মেনে সম্পূর্ণভাবে স্যানিটাইজ ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে ছাত্রছাত্রীদের জন্য ক্লাস শুরু করতে প্রস্তুত স্কুল কর্তৃপক্ষ। যাতে পড়ুয়ারা সুস্থ ও পরিষ্কার পরিবেশে নিজেদের পাঠনপঠন শুরু করতে পারে, তারই ব্যবস্থা করে কসবার এই বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষ।

অন্যদিকে যাদবপুর বিদ্যাপীঠ স্কুলেও একইভাবে স্যানিটাইজেশনের সঙ্গে এতদিন ধরে জমে থাকা ধুলো, নোংরা সমস্ত কিছুই পরিস্কার করা হচ্ছে প্রধান শিক্ষকের উপস্থিতিতে। তিনি নিজে দাঁড়িয়ে থেকে সমস্ত দিকে নজর রাখছেন। প্রধান শিক্ষক জানান, ত্রুটিহীনভাবে স্কুলের সমস্ত রুমগুলিকে পরিস্কার করা হচ্ছে। কারণ যেখানে বড়রাই আতঙ্কিত, সেখানে শিশুদের মধ্যে তো একটা ভয় কাজ করবেই। তবে তিনি ব্যক্তিগতভাবে জানান, করোনার ভয়ে অনেকটা দিন বাচ্চাদের কেটে গেছে বাড়িতেই। কিন্তু এবার তাদের স্কুলমুখী হওয়া দরকার। এর সঙ্গেই স্কুল কর্তৃপক্ষের বেশ কিছু দায়িত্ব বেড়ে গেছে বলেই মনে করছেন তিনি। দায়িত্ব বলতে কড়া নজরদারি। যখনই পড়ুয়ারা আসবে তখনই তাদের মধ্যে একটা বাঁধনহারা উচ্ছ্বাস থাকবে। যেটা ভয়ের একটা বিষয়। তাই দরকার কড়া নজরদারির। তবে এই পরিস্থিতি কাটিয়ে একদিন ঠিকই উঠতে পারবে সকলে, আশাবাদী প্রধান শিক্ষক।

2 years ago
Anubrata Mondal : শুক্রবার সিবিআইয়ের কাছে হাজিরা! বুধেই চিকিৎসাধীন 'অসুস্থ' অনুব্রত মণ্ডল

ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় শুক্রবার সিবিআই দফতরে হাজিরার কথা অনুব্রত মণ্ডলের। সেই হাজিরার দু'দিন আগে শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে এসএসকেএমে চিকিৎসাধীন হলেন তৃণমূলের কেষ্ট মণ্ডল। বুধবার তাঁর শারীরিক পরীক্ষা করাও হয়েছে। এদিনই আবার সিবিআই তদন্তে রক্ষাকবচ চেয়ে হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছেন বীরভূম তৃণমূলের সভাপতি। ভোট পরবর্তী হিংসা মামলার তদন্তে কেন্দ্রীয় সংস্থাকে সাহায্য করতে রাজি। এই মর্মে আবেদন দাখিল হয়েছে বিচারপতি রাজশেখর মান্থার বেঞ্চে। আরজি জানানো হয়েছে দ্রুত শুনানির।

সেই আবেদন গ্রহণ করে বৃহস্পতিবার সকাল ১০.৩০ মিনিটে শুনানির দিন ধার্য করেছেন বিচারপতি। যদিও সিবিআই তলবে অসুস্থতার কারণে থাকতে পারবেন না অনুব্রত। এমনটা আগেই জানিয়েছিলেন। তাও আইনি রক্ষাকবচ সঙ্গে রাখতে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন অনুব্রত। এমনটাই বীরভূম তৃণমূল সূত্রে খবর। এদিকে, একুশের ভোটের ফল প্রকাশের পরে গত ২ মে ইলামবাজারে বিজেপি কর্মী গৌরব সরকারকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ উঠেছিল। সেই মামলার তদন্তভার সিবিআইয়ের হাতে গিয়েছে।

গ্রেফতারও হয়েছেন কয়েকজন। দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়েন ইলামবাজার পঞ্চায়েত সমিতির মৎস্য কর্মাধ্যক্ষ-সহ একাধিক তৃণমূল নেতা। তারপরেই তলব করা হয় অনুব্রতকে।

2 years ago
Kolkata Metro : বাড়ল রাতের মেট্রোর সময়সীমা

করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের জন্য রাজ্যজুড়ে জারি ছিল একাধিক বিধিনিষেধ। সংক্রমণ নিম্নমুখী হওয়ায় সেই বিধিনিষেধ কিছুটা শিথিল করা হয়েছে। নবান্নে সেকথা ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই ঘোষণার পরেই এবার বাড়ানো হল মেট্রোর সময়সীমা। মঙ্গলবার প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে কলকাতা মেট্রোর তরফে জানানো হয়েছে, ২ ফেব্রুয়ারি অর্থাৎ বুধবার থেকে শেষ মেট্রো আগের নির্ধারিত সময় থেকে আধঘন্টা বেশি চলবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ, সপ্তাহে সাত দিনই মিলবে এই সুবিধা। দমদম এবং কবি সুভাষ স্টেশন থেকে আপ এবং ডাউনে শেষ মেট্রো মিলবে রাত সাড়ে ৯ টায়। এতদিন রাত ৯টা পর্যন্ত ছিল শেষ মেট্রোর সময়। শুধু শেষ মেট্রো নয়, বাড়ছে মেট্রোর সংখ্যাও। সোমবার থেকে শুক্রবার ২৭০টির বদলে চলবে ২৭৬টি মেট্রো। আর শনিবার ২২৪টির পরিবর্তে ২৩০টি এবং রবিবার ১১৪টির বদলে আপ ও ডাউন মিলিয়ে চলবে ১২০টি মেট্রো।

উল্লেখ্য, বুধবার থেকে স্মার্ট কার্ডের পাশাপাশি যাত্রীদের সুবিধার জন্য টোকেন পরিষেবা ফের চালু করা হল। তবে করোনা বিধিনিষেধ মানার উপর বিশেষ জোর দিয়েছেন রেল কর্তৃপক্ষ। মাস্ক,স্যানিটাইজার এবং দূরত্ববিধি অবশ্যই বজায় রাখতে হবে।

2 years ago


Tmc chairperson আজ তৃণমূলের চেয়ারপার্সন নির্বাচন

দলটির নাম তৃণমূল কংগ্রেস, না হলেও ক্ষতি ছিল না। কারণ, তৃণমূলের সমস্ত সংগঠনের নাম অলিখিতভাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাস্তবেও তাই। ১৯৯৮ এ কংগ্রেসের অন্তর্দলীয় কলহে দল ছেড়ে অজিত পাঁজাকে সঙ্গী করে মমতা তৃণমূল কংগ্রেস তৈরি করেন। তিনি সেদিন জানান, বাংলায় এটাই আসল কংগ্রেস। এরপর তো ইতিহাস। অজিতবাবু পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূলের ক্ষমতায় আসা দেখে যেতে পারেননি, প্রয়াত হন তিনি। এরপর যত দিন গড়িয়েছে ১৯৯৮ থেকে, তৃণমূলের সংগঠন বেড়েছে। ২০১১ তেও ক্ষমতায় আসার পর আরও বৃদ্ধি হয়েছে দল। বলা ভালো, দু-চারজন কংগ্রেসি নেতা বাদ দিলে পুরো কংগ্রেসটাই আজ তৃণমূলে এসে গিয়েছে। তৃণমূলের জন্মলগ্ন থেকে তার সর্বভারতীয় সভানেত্রী বা চেয়ারপার্সন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কারণ তাঁর ক্যারিশ্মাতেই দলের পরিচয় এবং তাঁর ছবি লাগিয়ে নেতারা ভোটে জেতে। ফলে কোনওদিনও এমন প্রশ্ন ওঠেনি যে দলে একটা ভোট হোক চেয়ারপার্সন ঠিক করার জন্য।

২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনে ফের মমতাকে মুখ করেই এগোয় তৃণমূল। সর্বশক্তি দিয়ে ভোটে চ্যালেঞ্জ নিয়ে লড়তে আসে কেন্দ্রীয় শক্তি বিজেপি। কিন্তু নির্মম পরাজয় ঘটে তাদের। প্রধানমন্ত্রীকে বারবার প্রচারে এনেও ৭৭ টির বেশি আসন জোটে তাদের (যা এই মুহূর্তে ৬৯ এ নেমে গিয়েছে)। এরপর যত নির্বাচন বা উপনির্বাচন হয়েছে, ৬৫ শতাংশ ভোটে পেয়ে আরও শক্তি বৃদ্ধি করেছে তৃণমূল, অপ্রতিরোধ্য হয়ে গিয়েছে তারা। এবারই রাজনৈতিক ট্যুইস্ট।

মমতা বুঝেছেন, এই শক্তিবৃদ্ধির একটা নেতিবাচক দিকও রয়েছে, যা ২০০৬ এর নির্বাচনের পর বামফ্রন্টের হয়েছিল, অর্থাৎ ঔদ্ধত্য। সেটিকে ভাঙতে চাইছেন মমতা। কাজেই দলের অন্দরে নির্বাচন চাইছেন তিনি।  শুরুটি নিজেকে দিয়েই। আজ সেই চেয়ারপার্সন নির্বাচন। ভোটে দিতে ডাকা হয়েছে দলের বিধায়ক, সাংসদ, জেলা সভাপতি ইত্যাদিদের। যদিও মমতার বিরুদ্ধে কোনও প্রার্থী নেই। কিছুক্ষণের মধ্যে ঘোষণা করা হবে তাঁর নির্বাচনে জিতে আসা নাম। শুধু সময়ের অপেক্ষা।

2 years ago
hotel fire ভোররাতে তালতলার হোটেলে আগুন, পুড়ে ছাই বহু জিনিস

একে করোনায় হোটেল ব্যবসায়ীদের মাথায় হাত। তার উপর হোটেলে আগুন। এক কথায় বলা যায়, গোদের উপর বিষফোঁড়া।

রাত পৌনে চারটে। ঘটনাটি ঘটেছে তালতলা থানার ৭ নম্বর দেদার বক্স লেনের নিউ সিটি হোটেলে। ওই হোটেলে রয়েছে ৩৫ টি রুম। তার মধ্যে কোভিড আবহে মাত্র দুটি রুমে তিনজন ছিল। হঠাৎ কালো ধোঁয়ায় ভরে গেল ঘর দুটি। কিন্তু সেই সময় ওই রুম দুটির লোকজন ঘুমন্ত অবস্থায় ছিল। যার ফলে আগুন লাগার বিষয়টি ঘুণাক্ষরেও টের পাননি তাঁরা। সঙ্গে সঙ্গে দোতলার লবিতে থাকা কর্মীরা দরজা ধাক্কা দিয়ে ঘুম ভাঙিয়ে দেন তাঁদের। 

মিনিট পনেরোর মধ্যেই সেই দুটি ঘর সহ মোট ৪ টি ঘর, দোতলার লবি, ব্যালকনি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। সাড়ে চারটে নাগাদ ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দমকলের দুটি ইঞ্জিন। প্রায় দেড় ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। প্রায় জনশূন্য থাকায় বড় অঘটন এড়ানো গেছে বলে দমকল কর্মীরা জানান। আজ, বুধবার ফরেন্সিক টিম পৌঁছবে ওই হোটেলটিতে।

দমকলের প্রাথমিক অনুমান, দোতলার লবির একটি পুরনো ফিউজ বক্সে শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগেছে। বৈদ্যুতিক তারের মাধ্যমে তা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। হোটেলের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে সিইএসসি।

2 years ago


Bank fraud বেলঘরিয়ায় সমবায় ব্যাঙ্কের বিরুদ্ধে কোটি টাকা প্রতারণার অভিযোগ, বিক্ষোভ

কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্কে টাকা রেখে প্রতারিত শতাধিক গ্রাহক। প্রায় কোটি টাকার প্রতারণার অভিযোগ ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। বিক্ষোভে গ্রাহকরা।

বেলঘরিয়ার নন্দননগরে অবস্থিত বেলঘরিয়া কো-অপারেটিভ ক্রেডিট সোসাইটি লিমিটেড নামে একটি সমবায় ব্যাঙ্কে প্রায় দুশো গ্রাহক নিয়মিত তাঁদের কষ্টার্জিত টাকা জমা রাখতেন ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে। কেউ মেয়ের বিয়ে দেবেন বলে জমিয়েছিলেন, তো কেউ অন্য কাজে। অভিযোগ, ২০১৯ সালের শেষের দিকে কর্তৃপক্ষ ব্যাঙ্কে তালা লাগিয়ে দেয়।গ্রাহকদের আরও অভিযোগ, ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের সাথে এই বিষয়ে কথা বললে তারা জানায়, ব্যাঙ্কের হিসেব ঠিকমতো মিলছিল না। তাই ব্যাঙ্কের দুজন কর্মচারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে। গ্রাহকদের অভিযোগ, প্রায় তিন বছর ধরে ব্যাঙ্ক এইরকম দাবি করে আসছে। এদিকে তাঁরা তাঁদের সঞ্চিত অর্থ ফিরে পাচ্ছেন না। যার ফলে নিদারুণ কষ্টে তাঁরা দিন কাটাচ্ছেন। যার কারণেই এদিন তাঁরা বিক্ষোভ দেখাতে বাধ্য হন।

যদিও ব্যাঙ্কের সম্পাদক গৌরাঙ্গ নাগ প্রতারণার ঘটনা অস্বীকার করেছেন। তাঁর দাবি, তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর দেখেন, ব্যাঙ্কের দুজন কর্মী গরমিল করছেন। তখন তাঁরা প্রশাসনের দ্বারস্থ হন। বিষয়টি এখন আদালতে। আদালত যা সিদ্ধান্ত দেবে, সেইমতো তাঁরা ব্যবস্থা নেবেন।

2 years ago
Accident সল্টলেক সেক্টর ফাইভে বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে মৃত সাইকেল আরোহী

বুধবার সাত সকালেই দুর্ঘটনার কবলে এক সাইকেল আরোহী। সল্টলেক সেক্টর ফাইভের এসডিএফ মোড়ে বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা যান ওই সাইকেল আরোহী।

জানা যায়, বারাসাত-বিগার্ডেন রুটের বাস যখন এসডিএফ মোড়ে যাত্রী নামিয়ে এগোচ্ছিল, সেই সময় এক সাইকেল আরোহী আচমকা বাসের সামনে চলে আসেন। এরপরই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললে বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই সাইকেল আরোহীর মৃত্যু হয়। ঘটনায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।

ঘটনার পর তড়িঘড়ি বাসটিকে আটক করে ইলেকট্রনিক্স কমপ্লেক্স থানার পুলিস। তবে বাসের চালক পলাতক। অন্যদিকে মৃতদেহটি বিধাননগর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। জানা যায়, মৃতের নাম সুবাস প্রামাণিক। তিনি থাকদাড়ির বাসিন্দা।

ঘটনায় শোকের ছায়া মৃতের পরিবারে। চালকের খোঁজ চালাচ্ছে পুলিস।

2 years ago
Union budget reaction মধ্যবিত্তের জন্য কোনও বার্তাই নেই বাজেটে

যে কোনও বাজেট (দেশীয় বা রাজ্য) সব মানুষকে খুশি করতে পারে না, সম্ভবও নয়। কিন্তু এবারের নির্মলা সীতারমণের ২০২২-২৩ এর বাজেট নিম্নবিত্ত থেকে মধ্যবিত্তর মধ্যে প্রবল অসন্তোষের জন্ম দিল। বুধবার সকালে বাজার করতে যাওয়া মানুষের কাছে সেই সব প্রতিক্রিয়া পেল ক্যালকাটা টেলিভশন নেটওয়ার্ক। আসলে যে কোনও বাজেটের প্রতিক্রিয়া প্রথম দিন বা বাজেটের দিন পাওয়া যায় না। কিন্তু পরের দিন বাজার করতে আসা মানুষ কিংবা ট্রেন, বাসযাত্রীদের কাছ থেকে অনেকটাই প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়। কারণ গোটা বিষয়টি প্রচার মাধমের নানান আলোচনা বা সকালে খবরের কাগজ পড়ার পর আমজনতা বুঝতে পারে 'কী পেলাম বা পেলাম না'। বাজারে সেরা প্রতিক্রিয়া অবশ্যই পাওয়া যায় মধ্যবিত্ত মানুষের কাছ থেকে। কারণ এরাই বাজার ধরে রাখে বা বাজার করে।

কোথাও যদি এমনটিও বলা যায় যে, এবারের নির্মলার বাজেট আগামীদিনে মানুষকে খুশি করতে পারবে, তো মানুষ বলবে, এখন করোনা আবহে যে অবস্থার মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে, তা সুখের নয়। জনতা সুখ চায় না, চায় স্বস্তি, যা এবারের বাজেটে পেল কোথায়? 'অমৃতের' সন্ধানে আমজনতা যাবে কোথায়?

মধ্যবিত্তের জন্য কোনও বার্তা ছিল না মঙ্গলবারের বাজেটে। দ্রব্যমূল্য যেভাবে নিয়মিত হারে বেড়েছে, তাতে নাভিশ্বাস উঠেছে। দ্রব্যমূল্য না কমলে বা স্বাভাবিক না হলে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা আসবে কী করে? যে কোনও প্রোডাক্ট বা দ্রব্য যদি বিক্রি না হয়ে বা মানুষ তার নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য কোনওক্রমে কিনেও পকেটে টান পড়ে, তবে বিলাসিতাই বা কোথায় অথবা একটু ভালো থাকার জন্য অর্থ খরচ করার ক্ষমতাই বা আসবে কী করে। সীতারামণের দাবি, ৫ বছরের মধ্যে স্বাভাবিক হয়ে যাবে সমস্ত কিছু। কিন্তু যেক্ষেত্রে মানুষের চাকরি গিয়েছে বা কর্মহীন হয়েছে কোটি কোটি মানুষ, তারা ৫ বছর কিসের ভরসায় বসে থাকবে 'অমৃতের সন্ধানে'? করোনা আবহ কেড়ে নিয়েছে অনেক কিছু। কিন্তু তার ভর্তুকি দিয়েছে কি সরকার? উত্তর, মোটেই না। বরং আরও গড্ডালিকায় ঢুকে গিয়েছে ট্যাক্স থেকে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির বাজারে, এমনটাই দাবি বাজেটের পরের দিনে সাধারণ মানুষের।

2 years ago


Market বাজেটের প্রভাব পড়েনি বাজারগুলিতে, ফের দাম বৃদ্ধির আশঙ্কা

নিত্য়পণ্য়ের সঙ্গেই শীতকালীন ফসলের দাম একেবারেই আগুন। গত বেশ কিছুদিন শীতকালীন ফসলের দাম নিম্নমুখী থাকলেও ফের দাম বাড়বে বলেই মনে করছেন ক্রেতারা। মঙ্গলবারই কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ। এই বাজেটের দিকে তাকিয়ে বসে ছিল বিশেষ করে মধ্য়বিত্তরা। কমেছে চাষের সরঞ্জামের দাম। কিন্তু তাতে এমন কিছু লাভ হবে না বলেই মনে করছেন সাধারণ মানুষেরা।

কলকাতার দমদম বাজার, যদুবাবুর বাজার এবং মুচি বাজার, সর্বত্রই সাধারণ মানুষের মুখে একই কথা। বাজেটের প্রভাব কিছুই পড়েনি বাজারগুলিতে। তবে ফের যে সমস্য়ার সম্মুখীন হতে চলেছে সাধারণ মধ্য়বিত্ত মানুষেরা তা স্পষ্ট, এমনটাই মনে করছেন বিক্রেতা থেকে ক্রেতা সকলেই।

বিক্রেতারা জানান, এমনিতেই করোনা পরিস্থিতিতে একেবারের বাজারে মানুষ ছিল না। তবে বর্তমানে দু-চার জন বাজারে আসলেও তাতে তাঁরা এমন কিছু লাভ বাড়ি নিয়ে যেতে পারছেন না। তার উপর অকালবর্ষণে চাষের ব্য়াপক ক্ষতি হয়েছে। শুধু তাই নয়, সঙ্গেই রয়েছে যাতায়াত খরচা। ফলে বাজেটের পরও তাঁদের সুরাহা কিছুই হয়নি বলেই জানান বিক্রেতারা।

এবার দেখে নেওয়া যাক বুধবারের বাজার দর। ভবানীপুর যদু বাবুর বাজারে বাজেটের পর প্রতি কেজিতে বেগুন ৫০ টাকা, পেঁয়াজকলি ৬০ টাকা, টমেটো ৩০ টাকা, ভেন্ডি ২০০ টাকা, কুমড়ো ৩০ টাকা, উচ্ছে ৪০ টাকা, ক্যাপসিকাম ৬০ টাকা, কাঁচা লঙ্কা ৪০ টাকা, সিম ৪০ টাকা, আলু ১৬ টাকা, পেঁয়াজ ৪০ টাকা, মটর সুঁটি ৫০ টাকা, বাঁধাকপি ৩০ টাকা,বিনস ৪০ টাকা, বিট ৪০ টাকা, শসা ৪০ টাকা, গাজর ৩০ টাকা, ফুলকপি ৪০ টাকা, মোঁচা ৩০ টাকা, পালং শাক ১০ টাকা আটি।

2 years ago
Patient harrasment স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নিল না বেসরকারি হাসপাতাল, রোগী নিয়ে সরকারি হাসপাতালেও চড়কিপাক

নেই পর্যাপ্ত বেড। আর সেই কারণে একাধিক সরকারি হাসপাতালে ঘুরেও মিলল না চিকিৎসা। অথচ রোগীর কাছে রয়েছে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড। অভিযোগ রোগী হেনস্তারও।

জানা যায়, রোগীর নাম মীরা রঞ্জিত। হাওড়ার উলুবেড়িয়ার বাসিন্দা। ডায়ারিয়ার রোগী। তবে গত কয়েকদিন ধরে কিডনির সমস্য়ায় ভুগছিলেন। শারীরিক অসুস্থতার কারণে রবিবার উলুবেড়িয়া প্রাথমিক স্বাস্থ্য়কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে রেফার করা হয় উলুবেড়িয়ারই একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানে দু-দিন আইসিইউতে চিকিৎসা চলে তাঁর। তবে ওই বেসরকারি হাসপাতালে অতিরিক্ত বিল হয়, যা পরিবারের সামর্থ্য়ের বাইরে। ফলে রোগীর পরিবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড দেখায়। কিন্তু তারা ওই কার্ড গ্রহণ করেনি। 

এরপরই পরিবার তড়িঘড়ি রোগীকে বেসরকারি ওই হাসপাতাল থেকে এসএসকেএমে নিয়ে যায়। তবে সেখানেই ঘটে বিপত্তি। বেড না থাকায় রোগীকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। ফলে বাধ্য় হয়ে এসএসকেএম হাসপাতাল থেকে রোগীকে নিয়ে আসা হয় কলকাতা মেডিক্য়াল কলেজে। কিন্তু সেখানেও একই অবস্থা। রোগীকে নিয়ে অ্য়াম্বুলেন্সেই দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়।

রোগীর পরিবার জানায়, চিকিৎসা তো করাতেই হবে। তবে কতক্ষণ এইভাবে হাসপাতাল চত্বরে অপেক্ষা করতে হবে, তা জানা নেই। 

2 years ago