পাকিস্তানে সেনা-পুলিশ সংঘর্ষে হত ১০, গৃহযুদ্ধের জল্পনা

0

পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশের পুলিশ প্রধানকে পাক সেনাবাহিনী অপহরণ করেছে। এই ‘খবর’ প্রকাশিত হওয়ার পর পাকিস্তানে রাজনৈতিক তৎপরতা এখন তুঙ্গে। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের জামাতা সফদর আওয়ানকে গ্রেফতার করার জন্য পুলিশের ওপর চাপ তৈরি করতেই পুলিশ প্রধানকে অপহরণ করা হয়েছে, এমনটাই বলা হচ্ছে। পাক সংবাদমাধ্যমের খবর, করাচিতে সেনার সঙ্গে ভয়ঙ্কর সংঘর্ষে ১০ জন পুলিশ অফিসার নিহত হয়েছেন। দু পক্ষের মধ্যে গুলি বিনিময়ও হয়েছে। করাচিতে গৃহযুদ্ধ চলছে বলে তারা জানাচ্ছে। সেনার তরফে জানানো হয়েছে, সেনাপ্রধান কামার জাভেদ বাজওয়া পুরো ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। তবে ঘটনা সম্পর্কে তারা কিছুই জানায়নি। পিপিপি দলের চেয়ারপার্সন বিলাওল ভুট্টো কোন পরিস্থিতিতে শরিফের কন্যা মরিয়ম নওয়াজের স্বামী সফদরকে গ্রেফতার করা হয়েছে, তা জানতে চেয়ে বিবৃতি দেওয়ার পরই সেনার বিবৃতিটি এসেছে।

জানা গিয়েছে, কয়েকদিন আগে করাচিতে ইমরান বিরোধী এক জনসমাবেশে অংশ নিয়েছিলেন সফদর ও মরিয়ম। সেখানে এক হোটেল থেকে সফদরকে জিন্নার সৌধকে অবমাননার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছিল। পরে তিনি আদালতের আদেশে জামিন পান। মরিয়মের অভিযোগ, সেনা হোটেলের দরজা ভেঙে ভিতরে ঢুকেছিল। সিন্ধ পুলিশ জানিয়েছে, ১৮-১৯ অক্টোবরের রাতের ঘটনায় সিন্ধের পুলিশকর্মীদের মন ভেঙে দিয়েছে। তারা বিক্ষুব্ধ। এরপর সিন্ধের আইজি ছুটিতে চলে গিয়েছেন। ছুটিতে যাওয়ার জন্য দরখাস্ত দিয়েছেন অন্য পুলিশ অফিসাররাও। তবে তদন্তের আশ্বাসের পর তারা অপেক্ষা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সফদর সেই সমাবেশে ভোটকে সম্মান দাও স্লোগান তুলেছিলেন। সেই স্লোগানকে সেনাবিরোধী বলে বলে মনে করা হচ্ছে।