খেলাধুলা
সর্বশেষ আপডেট
অনেকে পড়ছেন
কলকাতায় সরানো হতে পারে ভারত-ইংল্যান্ড ওয়ান ডে সিরিজ

কলকাতার ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য সুখবর আসতে পারে শীঘ্রই। চলতি ভারত-ইংল্যান্ড ওয়ান ডে সিরিজের তিনটি ম্যাচ কলকাতায় হতে পারে। মহারাষ্ট্রে করোনার সংক্রমণ আচমকা বৃদ্ধি পাওয়ার জন্যই ওয়ান ডে সিরিজ সরিয়ে দিতে পারে বিসিসিআই। সেক্ষেত্রে প্রথম পছন্দ কলকাতার ইডেন গার্ডেন্স। বিসিসিআই সূত্রে জানা যাচ্ছে, আপাতত ভাবনা চিন্তার স্তরে রয়েছে এই পরিকল্পনা। উল্লেখ্য, আগামী ২৩, ২৬ ও ২৮শে মার্চ মহারাষ্ট্রের পুনেতে ম্যাচগুলি হওয়ার কথা ছিল।


তবে বোর্ডের অন্দরে পশ্চিমবঙ্গে ভোট নিয়েও আলোচনা চলছে। কারণ পশ্চিমবঙ্গে প্রথম দফার ভোট আগামী ২৭ মার্চ। এই পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক ম্যাচের আয়োজন করা আদৌ সম্ভব কিনা সেটা নিয়েই চিন্তায় বোর্ড কর্তারা। তবে ওই সময় কলকাতায় ভোট পড়ছে না। তাই আপাতত কলকাতাকে প্রাথমিক তালিকায় রাখা হয়েছে। যদি পুলিশ ও প্রশাসনের নিরাপত্তা সংক্রান্ত ছাড়পত্র পাওয়া যায় তবে পুনে থেকে তিনটি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ কলকাতায় হবে।

....

2 days ago

ভিডিও খবর

Popular TV Programme

যতবার ডার্বি…. আইএসএল-এ জোড়া ডার্বি হার এসসি ইস্টবেঙ্গলের

আজকের কর্পোরেট যুগে এই 'ডার্বি' বা ‘চির প্রতিদ্বন্দ্বী’ কথাগুলো ক্লিশে হয়ে গিয়েছে। এর ওপর করোনা আবহে গোয়ায় শূন্য স্টেডিয়ামে হল ডার্বি ম্যাচ। এখন বিদেশে আর তথাকথিত ডার্বি নেই, কারণ ইউরোপের লিগগুলিতে প্রায় প্রত্যেকটি দলই এখন শক্তিশালী, কার্যত উনিশ-বিশ। আর কে কখন সেরার স্থান দখল করবে সেটা নির্ভর করে দলের খেলোয়াড়দের ক্রীড়াশৈলীর উপর। ফলে চিরাচরিত ডার্বি কালচার মূলত হারিয়ে যেতে বসেছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় আইএসএল মঞ্চে দ্বিতীয় ডার্বি হয়ে গেল। সোশাল মিডিয়ায় সেভাবে উত্তাপ দেখা গেল না। এসসি ইস্টবেঙ্গল এবং এটিকে-মোহনবাগান মুখোমুখি হয়েছিল আইএসএল ডার্বিতে। কিন্তু খেলায় শতবর্ষে পা দেওয়া এসসি ইস্টবেঙ্গলকে কার্যত হাবুডুবু খেতে দেখা গেল। তাঁরা ৩-১ গোলে পরাজিত হল এটিকে-মোহনবাগানের কাছে। যদিও এই ফল দেখে বোঝা যাবে না কে কেমন খেলেছে। ইস্টবেঙ্গল আক্রমনাত্বক ফুটবল খেললেও, রক্ষণভাগের চরম দুর্বলতায় ম্যাচ হারলো। ম্যাচ শেষে কাটাছেঁড়ায় সোশাল মিডিয়া কিছুটা উত্তপ্ত হল। সেই সঙ্গে পুরোনো স্লোগান ফিরে ফিরে এল। ‘যতবার ডার্বি, ততবার হারবি’ স্লোগানে লাল-হলুদ সমর্থকদের বিদ্ধ করলেন সবুজ-মেরুন সমর্থকরা। ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের অনেকেই লিখলেন, আসলে রবি  ফাউলার দলটাকে দাঁড় করাতেই পারেননি এই দুই মাসে। ফলে যা হওয়ার হল।


ফুটবল বিশেষজ্ঞদের মতে, আইএসএল-এর মত পেশাদারি ফুটবল লিগে এসসি ইস্টবেঙ্গল দলটাই সঠিকভাবে গঠন করতে পারেনি। যদিও শেষ মুহুর্তে নথিভূক্ত হওয়ায় ক্লাব কর্তা ও ইনভেস্টররা সেভাবে সময় এবং উপযুক্ত ফুটবলার পায়নি। তবুও রবি ফাওলার যে কয়েকজন ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে খেলা ফুটবলার নিয়ে এসেছেন তাঁরাও সেভাবে মেলে ধরতে পারছেন না নিজেদের। অনেকেই বলছেন, এই দল নিয়ে কলকাতা লিগে খেলা যায়, হয়তো খেলে দেবে ফেডারেশন কাপেও। কিন্তু এই ধরণের পেশাদারি টুর্নামেন্টে কিছুতেই নয়। অন্যদিকে এটিকে-মোহনবাগান দলটিতে রয়েছেন রয় কৃষ্ণ, ডেভিড উইলিয়ামসের মতো আইএসএল তারকা। তাদের আইএসএল খেলার অভিজ্ঞতাও আছে। তাই এবারও আইএসএল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দৌঁড়ে হট ফেভারিট এটিকে-মোহনবাগান। আর জোড়া ডার্বি হেরে খাদের অতলে এসসি ইস্টবেঙ্গল।

সেঞ্চুরি অশ্বিনের, চেন্নাই টেস্টে জয়ের দোরগোড়ায় ভারত

চেন্নাইয়ে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিশাল ব্যবধানে হারতে হয়েছিল ভারতকে। সেই চেন্নাইয়েই দ্বিতীয় টেস্টে ভারতের সামনে সুযোগ এসে গেল পাল্টা বড় জয় ছিনিয়ে নেওয়ার। ভারতের প্রথম ইনিংসে ৩২৯ রানের জবাবে অশ্বিনের ঘূর্ণির সামনে অসহায় ইংল্যান্ড গুটিয়ে যায় মাত্র ১৩৪ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে ভারত করল ২৮৬ রান। ফলে ইংল্যান্ডকে জিততে হলে চতুর্থ ইনিংসে করতে হবে ৪৮১ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে চাপে ইংল্যান্ড। দিনের শেষে তিন উইকেট হারিয়ে মাত্র ৫৩ রান তুলেছে ইংরেজ ব্যাটসম্যানরা। ইংল্যান্ডের দুই ওপেনারই আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন। ক্রিজে রয়েছেন অধিনায়ক জো রুট (২) এবং লরেন্স (১৯)। ফলে ভারতকে জিততে হলে আর সাতটি উইকেট তুলতে হবে আগামীকাল। যেটা চিপকের ঘূর্ণী পিচে মোটেই অসম্ভব নয়। 
ভারতের দ্বিতীয় ইনিংসে লড়াকু শতরান করলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। ভালো ব্যাট করেছেন অধিনায়ক কোহলিও। তাঁর ব্যাট থেকে এল ৬২ রান। কিন্তু সকলকে ছাপিয়ে গেলেন অশ্বিন, ১৪৮ বলে ১০৬ রান করে ওলি স্টোনের বলে আউট হলেন তিনি। এই সময়ের মধ্যে ১৪টি চার এবং ১টি ছয় মারেন ভারতের এই অফস্পিনার। যদিও শেষের দিকে ফাস্ট বোলার মহম্মদ সিরাজ ১৬ রান করে অশ্বিনকে যোগ্য সঙ্গত দেন। ফলে নিজের সেঞ্চুরি পূর্ণ করতে সক্ষম হলেন অশ্বিন। উল্লেখ্য প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের পাঁচ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি।
তৃতীয় দিনের শুরুতে ভারত ১ উইকেটে ৫৪ রানের পুঁজি নিয়ে ব্যাট করতে নামে। ক্রিজে ছিলেন প্রথম ইনিংসে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করা রোহিত শর্মা। কিন্তু এই ইনিংসে সেও বিশেষ সুবিধা করতে পারল না। মাত্র ২৬ রানেই জ্যাক লিচের বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফিরলেন। এরপরই চেতেশ্বর পূজারা (৭), ঋষভ পন্থ (৮), অজিঙ্কা রাহানে (১০) এবং অক্ষর প্যাটেল (৭) একে একে আউট হয়েছেন। তবে ইংল্যান্ড শিবিরে লড়াই ফিরিয়ে দিয়েছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি এবং রবিচন্দ্রণ অশ্বিন। ভারতের এই বিশাল রানের টার্গেটের কতটা চাপ নিতে পারে জো রুটরা সেটাই এখন দেখার। সেক্ষেত্রে ভারতের সামনে বড় ব্যাবধানে ম্যাচ জেতার রাস্তা খুলে যাবে।

কৃষ্ণের গোলেই কিস্তিমাত, লিগ শীর্ষে এটিকে-মোহনবাগান

ফের ত্রাতার ভূমিকায় রয় কৃষ্ণ। প্রথম পর্যায়ে এই জামশেদপুর এফসির কাছেই আটকে গিয়ে পিছিয়ে পড়েছিল এটিকে-মোহনবাগান। দ্বিতীয় পর্যায়ে তাঁদের হারিয়েই আইএসএল লিগ শীর্ষে উঠে এল হাবাসের দল। রবিবার সন্ধ্যায় হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর শেষ পর্যন্ত কাঙ্ক্ষিত জয় আসে এটিকে-মোহনবাগানের। ম্যাচের ৮৫ মিনিটে ফিজির ভারতীয় বংশোদ্ভূত তারকা স্ট্রাইকার রয় কৃষ্ণ গোল করে লিগ শীর্ষে তুলতে সাহায্য করলেন। যদিও ম্যাচে ৬ মিনিটের মধ্যেই পেনাল্টি পেতে পারত হাবাসের দল। কিন্তু নিশ্চিত পেনাল্টি থেকে বঞ্চিত হয় তাঁরা। এরপর বেশ কয়েকবার বিপক্ষের গোলে আক্রমণ করেও গোল পায়নি এটিকে মোহনবাগান। অবশেষে ম্যাচের ৮৫ মিনিটে রয় কৃষ্ণ বাঁ পায়ের নিখুঁত প্লেসিং গোলের রাস্তা খুঁজে নেয়। স্বস্তি ফেরে এটিকে-মোহনবাগান শিবিরে। ১৭ ম্যাচে রয় কৃষ্ণদের সংগ্রহ ৩৬ পয়েন্ট নিয়ে লিগ শীর্ষে উঠে এল তাঁরা। পিছনে পড়ে গেল মুম্বই সিটি এফসি। অপরদিকে ডার্বির আগে এই জয় বাড়তি অক্সিজেন দিল এটিকে-মোহনবাগানকে। কারণ আইএসএল প্লে অফে আগেই জায়গা করে নিয়েছে অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাসের ছেলেরা।
ছবিঃ টুইটার

বড় রানের লিড, ভারতের সামনে জয়ের হাতছানি

ভারতের ৩২৯ রানের জবাবে ৫৯.৫ ওভারেই সব উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ল জো রুটের ইংল্যান্ড।প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের স্কোর ১৩৪ রান। একমাত্র উইকেট কিপার বেন ফোকস ৪২ রান করে অপরাজিত থাকলেন। বাকিরা রবিচন্দ্র অশ্বিনের ঘূর্ণির সামনে দাঁড়াতেই পারলেন না। তিনি একাই নিলেন পাঁচ উইকেট। বাকি ইশান্ত শর্মা এবং অক্ষর প্যাটেল দুটি করে উইকেট নিয়েছেন। নিজের হোম গ্রাউণ্ডে বল করতে নেমে প্রথম বলেই উইকেট তুলে নজির গড়লেন মহম্মদ সিরাজ। ফলে প্রথম ইনিংসে ১৯৫ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামল ভারত। চেন্নাইয়ের টেস্টে দীর্ঘ সময় পর দর্শকদের প্রবেশে অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। ফলে ভরা স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ডকে নাস্তানাবুদ করল বিরাট বাহিনী।

প্রথম ইনিংসের প্রথম দিনে রোহিত শর্মার দুরন্ত শতরান ও রাহানের অর্ধশতরান ভারতের স্কোরবোর্ড সচল রেখেছিল। পরে ৭টি চার ও ২টি ছয়ের সাহায্যে নিজের অর্ধশতরান পূর্ণ করেন ঋষভ পন্থ। তিনি করেছেন ৫৮ রান। কিন্তু দ্বিতীয় দিনের শুরুতেই বাকি চার উইকেট হারিয়ে মাত্র ২৯ রান যোগ করেই থামতে হয়েছিল ভারতকে।  এবার ইংল্যান্ডকেও কম রানে বেধে ফেলে অনেকটাই সুবিধাজনক অবস্থানে ভারত। এই টেস্ট জিতে সিরিজে সমতা ফেরাতে মরিয়া বিরাট কোহলি। 

স্পিনিং ট্র্যাকেই জেতা-হারা

ভারতের ৩২৯ রানের উত্তরে ইংল্যান্ড গুটিয়ে গেলো মাত্র ১৩৪ রানে। দেড় দিনের একটু বেশি সময়ে পড়ল ২০টি উইকেট। এর মধ্যে রোহিত শর্মা, অজিঙ্কা রাহানে এবং ঋষভ পন্থ ছাড়া রানই পেলেন না ব্যাটে। দুদলের বিশ্বমানের ব্যাটসম্যানরা লাট্টুর মতো ঘূর্ণি বলে বোকা বনলেন প্রথম দিন থেকেই। এই পিচের কারণ কী, প্রশ্ন থাকতে পারে অনেকেরই মধ্যে। ক্রিকেটীয় ভাষায় এই ধরণের উইকেট বা পিচকে বলা হয় আন্ডার প্রিপেয়ার্ড উইকেট। শোনা যায় এই ধরণের পিচের শ্রষ্ট্রা  প্রয়াত প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক মানসুর আলি খান পাতৌদি। 

কিন্তু পাতৌদির আমলেও এত ভয়ঙ্কর হয়নি, যা শেষ দুই টেস্টে হয়েছে। করোনার জেরে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজের খেলা চলছে একই স্টেডিয়ামে। জৈব সুরক্ষা বলয়ের জন্যই এই ব্যবস্থা। তাই চেন্নাইয়ের চিপক স্টেডিয়ামের উইকেট নিয়ে কৌতুহলি ছিলেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। আদতে দেখা গেল, চিরাচরিত স্পিনিং ট্র্যাকই করা হয়েছে চিপকে। কিন্তু, সেটাও আন্ডার প্রিপেয়ার্ড পিচ। প্রথম টেস্টে ইংরেজ স্পিনারদের দাপটে থরহরি কম্প ধরেছিল ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের, ম্যাচ হারে ভারত। দ্বিতীয় টেস্টেও ভারতের প্রথম ইনিংসে ইংরেজ স্পিনার মইন আলি নিলেন চার উইকেট। আর ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে ভারতের হয়ে পাঁচ উইকেট তুলে নিলেন রবিচন্দ্র অশ্বিন। খেলার এখনও তিনদিন বাকি, ফলে ঘূর্ণি পিচে এখনও বেসামাল হতে হবে ব্যাটসম্যানদের। খেলা হবে…

বড় ম্যাচের আগে জিততে মরিয়া রয় কৃষ্ণরা

টানা তিন ম্যাচ জিতে দুরন্ত ফর্মে রয়ছে এটিকে-মোহনাবাগান। প্লে অফের জায়গা কার্যত পাকা করেই ফেলেছেন রয় কৃষ্ণরা। এই পরিস্থিতিতে রবিবার জামশেদপুর এফসির বিরুদ্ধে খেলতে নামবে হাবাসের দল। প্রথম পর্বে জামশেদপুরের কাছে ২-১ গোলে হেরে গিয়েছিল এটিকে-মোহনবাগান। তাই এদিন জামশেদপুরের বিরুদ্ধে জিততে মরিয়া এটিকে-মোহনবাগান। অন্যদিকে এই ম্যাচে তিন পয়েন্ট নিয়ে প্লে অফে পাকা করাই লক্ষ্য ভালকিসদের কাছে। 

জামশেদপুরের পরই বড় ম্যাচ, এটিকে-মোহলবাগানের প্রতিপক্ষ এসসি ইস্টবেঙ্গল। তাই বড় ম্যাচে নামার আগে স্প্যানিশ কোচ দলে বেশ কিছু পরিবর্তন করতে পারেন বলেই মনে করেছেন দলের প্রাক্তন ফুটবলাররা। ম্যাচের আগে হেড কোচ হাবাস জানিয়েছেন, ‘প্রতিপক্ষ প্রতি ম্যাচে রয় কৃষ্ণকে মার্ক করছে। যে কারণে ওকে বেশি ফাউলও করা হচ্ছে। এটা যেমন একটা দিক, তেমনই টানা ম্যাচে খেলেছেন কৃষ্ণ। সেটার একটা ধকল তো আছেই। তাই ওকে বিশ্রাম দেওয়ার কথা ভাবছি’। ইতিমধ্যে ১১ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতার শীর্ষে রয়েছেন ফিজি-র স্ট্রাইকার রয় কৃষ্ণ।


ভারতের টেস্ট রেকর্ড ভাঙল ইংল্যান্ড

শনিবার থেকে শুরু হয়েছে ভারত-ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ। জানেন কি, এই টেস্টই ৬৬ বছরের পুরনো ভারতের রেকর্ড ভেঙে দিল ইংল্যান্ড। এই টেস্টে ৩২৯ রানে শেষ হয়েছে ভারতের প্রথম ইনিংস। কিন্তু এত রানের মধ্যে ইংল্যান্ডের বোলাররা কোনও বাড়তি রান বা এক্সট্রা দেননি। ফলে এই ইনিংসে অতিরিক্ত রান ছাড়াই ভারতকে অল আউট করে বিশ্বরেকর্ড গড়ে ফেলল ইংল্যান্ড। যদিও ইংল্যান্ডের আগে এই রেকর্ডটি ছিল টিম ইন্ডিয়ার দখলেই। ১৯৫৫ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে তৃতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে। ১৮৭.৫ ওভারে কোনও অতিরিক্ত রান ছাড়াই পাকিস্তানকে ৩২৮ রানে অল আউট করেছিল ভারতীয় বোলাররা। এরপর থেকে রেকর্ডটি অক্ষতই ছিল। এবার সেটাই ভেঙে দিল মইন আলি এবং ওলি স্টোনরা। 

ড্র করে প্লে অফের দৌড়ে হোঁচট খেল এফসি গোয়া

আইএসএলের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে চেন্নাইয়ান সিটি এফসির সঙ্গে ড্র করল এফসি গোয়া। শনিবার দু’বার এগিয়ে গিয়েও ব্যবধান ধরে রাখত পারল না চেন্নাইয়ান এফসি। ফলে ম্যাচ শেষ হয় ২-২ গোলে। ম্যাচ ড্র করে প্লে অফের দৌড়ে হোঁচট খেতে হল ইগর অ্যাঙ্গুলোরদের। ১৭ ম্যাচ খেলে গোয়া ২৪ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে থাকলেও, সম সংখ্যক ম্যাচ খেলে সমান পয়েন্ট নিয়ে গোল পার্থক্য নিরিখে পিছিয়ে চতুর্থ স্থানে রয়েছে হায়দরাবাদ এফসি। ১৬ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচ নম্বরে রয়েছে জন আব্রাহামের নর্থইস্ট ইউনাইটেড। ফলে প্লে অফের দৌঁড় আরও হাড্ডাহাড্ডি হয়ে যাবে।

এদিন ম্যাচের ১৩ মিনিটে জ্যাকুবের গোল এগিয়ে যায় চেন্নাইয়ান। পিছিয়ে পড়ে গোল শোধের চেষ্টায় চাপ বাড়ায় গোয়া। সাফল্যও আসে দ্রুত, ১৯ মিনিটেই পেনাল্টি থেকে ম্যাচের সমতা ফেরান ইগর অ্যাঙ্গুলো। দ্বিতীয়ার্ধের ৬০ মিনিটে ছাংতের গোলে ফের ব্যবধান বাড়ায় চেন্নাইয়ান এফসি। ৯০ মিনিটের শেষেও জয় কার্যত নিশ্চিত ছিল অভিষেক বচ্চনের দলের। কিন্তু ম্যাচের সংযুক্ত সময়ে ইশান পণ্ডিতের গোলে ম্যাচে সমতায় ফেরে এফসি গোয়া। ম্যাচ শেষে ফলাফল দাঁড়ায় ২-২।

এবার মোহনবাগানের বার্ষিক সভাতেই #RemoveATk স্লোগান উঠল

এটিকে-মোহনবাগান মরশুমের প্রথম থেকেই দুরন্ত ফর্মে রয়েছে। তবুও সোশাল মিডিয়ায় ক্ষোভের আগুন জ্বলছিল মোহনবাগান সমর্থদের মধ্যে। এবার তাঁদের প্রতিবাদ আছড়ে পড়ল ক্লাব গঙ্গা পাড়ের তাঁবুতে। শনিবার মোহনবাগান ক্লাবের বার্ষিক সভার আয়েজন করা হয়েছিল। সেখানেই #RemoveATk স্লোগান তুললেন মোহনবাগান সমর্থকদের একাংশ। ক্লাব তাঁবুর সামনেই পোস্টার লাগিয়ে দিলেন তাঁরা। মেরিনার্সদের দাবি, বিনিয়োগকারী হিসাবে এটিকে থাকতেই পারে। কিন্তু ক্লাবের নামের সঙ্গে এটিকে সংযুক্তিকরণ মানবেন না মোহনবাগানীরা। এমনকি সবুজ-মেরুণ ছাড়া খেলার মাঠে অন্য কোন রংয়ের জার্সিও মেনে নেবেন না বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মোহন সমর্থকরা। এদিন কার্যত মেরিনার্সদের বিক্ষোভ সামলাতে হিমশিম খেতে হয়েছে পুলিশকে।
উল্লেখ্য, এটিকের সঙ্গে সংযুক্তিকরণ নিয়ে একেবারেই খুশি নন মেরিনার্সরা। তাই শতাব্দী প্রাচীন ক্লাবের ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে এতদিন সোশাল মিডিয়ায় ক্যাম্পেইন চালাচ্ছিলেন মোহনবাগান সমর্থকদের একাংশ। এমনকি কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় দেখা গিয়েছিল #RemoveATk পোস্টার ও ব্যানার। এবার সরাসরি ক্লাব তাঁবুতেই আছড়ে পড়ল প্রতিবাদের ঝড়। যদিও এখনও পর্যন্ত মোহনবাগান কর্তাদের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি এই ইস্যুতে।

দিনের শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে ভারত তুলল ৩০০ রান

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টে লজ্জাজনক হারের পর দ্বিতীয় টেস্টে ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া ভারত। তবে দ্বিতীয় টেস্টে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। কিন্তু দিনের শুরুতেই তিন উইকেট হারিয়ে  ধাক্কা খেতে হয়েছিল টিম ইন্ডিয়াকে। তবে রোহিত শর্মার দুরন্ত শতরান ও রাহানের অর্ধশতরান লড়াইয়ে ফেরায় ভারতকে। কিন্তু ইংরেজ স্পিনার জ্যাক লিচ এই জুটিকে ভেঙে ফের ভারতকে চাপে ফেলে দিলেন। প্রথম দিনের শেষে ছয় উইকেট হারিয়ে ভারতের স্কোর ৩০০ রান। ক্রিজে রয়েছেন ঋষভ পন্থ (৩৩) ও অক্ষর প্যাটেল(৫)।  
ভারতের প্রথম ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের শুভমান গিলের উইকেট হারিয়ে ধাক্কা খেতে হয়েছিল ভারতকে। ওলি স্টোনের বলে এলবিডব্লু হয়ে যান ভারতের এই প্রতিশ্রুতিমান ওপেনার। ২১ ওভারের দ্বিতীয় বলে উইকেট হারান পূজারা। ২১ রান করে জ্যাক লিচের বল আউট হয়ে যান তিনি। তার পরবর্তী ওভারে খালি হাতেই প্যাভিলিয়নে ফিরে যান ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। সেই মুহূর্তে  ক্রিজে দাঁড়িয়ে থেকে ইংরেজ বোলারদের বিরুদ্ধে দাপট দেখিয়েছিলেন রোহিত শর্মা। ১৮টি চার ও ২টি ছয়ের সাহায্যে ১৬১ রান করে জ্যাক লিচের বলে আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরলেন। এদিন রান পেলেন অজিঙ্কা রাহানেও। কিন্তু ৬১ রানে মইন আলির বলে উইকেট হারিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরতে হল অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জয়ী ক্যাপ্টেন।