Bangladesh: ইসকনের মন্দিরে হামলা,নিন্দা ভারতের

ঢাকাঃ পুজো মণ্ডপে ভাঙচুরের পর এবার হামলাকারীরা তাণ্ডব চালালো ইসকনের মন্দিরে। একদল হামলাকারী তাণ্ডব চালায় নোয়াখালির ইসকন মন্দিরে। তাণ্ডবের পাশাপাশি চলে ব্যাপক লুটপাট। একজন ভক্ত গুরুতর আহত অবস্থায় ভর্তি হাসপাতালে। 

টুইটের মাধ্যমে এ ঘটনার বর্ণনা করা হয়েছে ইসকনের তরফ থেকে। এই ঘটনায় কড়া ভাষায় নিন্দা করেছেন বাংলাদেশের দুর্গাপূজা উদযাপন পরিষদের সদস্য বিপ্লব দে। বিপ্লব দেব এর দাবি, ইসকনের ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন দুজন ভক্ত। পাশাপাশি কুমিল্লার মন্দিরের হামলায় প্রাণ হারিয়েছিল আরও এক ভক্ত। 

বাংলাদেশে মন্ডপে হামলার ঘটনা প্রথম ঘটে কুমিল্লায়। এক দুর্গ পুজোর মন্ডপে হওয়া গন্ডগোল ক্রমে ছড়িয়ে পড়ে একাধিক জায়গায়। কুমিল্লার ঐ পূজা মন্ডপ ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয় একদল অজ্ঞাত পরিচয় হামলাকারী। তারপরই হামলা চালানো হয় নোয়াখালি, চাঁদপুর, কক্সবাজার ,চাঁপাইনবাবগঞ্জ বাঁশখালি সহ একাধিক জায়গার দুর্গ পুজোর মন্ডপে। 

কুমিল্লার ঘটনার পরেই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছিলেন, দোষীদের উপযুক্ত কঠোর শাস্তি হবে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর এই আশ্বাসকে কার্যত বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ইসকন মন্দির এবং রামকৃষ্ণ মিশনেও হামলা চালায় হামলাকারীরা। বাংলাদেশে এই হামলার প্রেক্ষিতে চিন্তিত ভারতের বিদেশমন্ত্রক। 

ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচি জানান, "বাংলাদেশে ধর্মীয় ভাবে সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমণের ঘটনা ঘটেছে । সে বিষয়ে নিয়ে আমরা নজর রাখছি। বাংলাদেশ প্রশাসন তৎপরতার সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলা চেষ্টা করছে। আমরা বিষয়টা সম্পূর্ণভাবে বাংলাদেশের প্রশাসনের উপর ছেড়ে রেখেছি"

এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী দলের নেতা শুভেন্দু অধিকারী এবং বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর। কুমিল্লা সহ নোয়াখালির ইসকন মন্দিরের হামলার ঘটনার প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সরকারকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি লিখেছেন বিরোধীদলের নেতা শুভেন্দু অধিকারী ও সাংসদ শান্তনু ঠাকুর। 

পাশাপাশি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন তৃণমূলের মুখপাত্র ও সাধারণ সম্পাদক কুনাল ঘোষ। একটি টুইটের মাধ্যমে কুনাল ঘোষ উদ্বেগ জানানোর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদন করেছেন উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার। ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের ২২টি জেলায় আধা সামরিক বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। কুমিল্লা জেলার সীমানায় চাদপুর হাজিগঞ্জ উপজেলায় পুলিশ ও হামলাকারীদের মধ্যে তীব্র সংঘর্ষ হয়। 

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দোষীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার মন্তব্যের পরে পুলিশ প্রশাসন করা হাতে পরিস্থিতি মোকাবিলায় নেমে পড়েছে ময়দানে।


....

10 hours ago