ব্রেকিং নিউজ
  (08:15 AM)-২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৯৪,৭৭৪, সুস্থ ২,৫১,৭৭৭      (08:07 AM)-করোনায় মৃত ৩৫, সংক্রমণের হার কমে ১২.৫৮ শতাংশ      (08:06 AM)-গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্ত ৯,১৫৪     (07:59 AM)-২২ থেকে ২৪ জানুয়ারি হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা     (07:58 AM)-পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে রাজ্য জুড়েই বৃষ্টির সম্ভাবনা  
venami-problem-sunderban
Venami chingri ভেনামি চিংড়ি চাষে বিপর্যয় কাটাতে আলোচনা


Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2021-11-29 16:27:34


সংকটে ভেড়ির চাষিরা। দীর্ঘ দু-বছর করোনা আবহ আর প্রাকৃতিক দুর্যোগ সমস্যায় ফেলেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার সুন্দরবনের ভেনামি চিংড়ির চাষিদের। তাঁদের ক্ষতির মুখ থেকে রক্ষা করতে একটি আলোচনাসভার আয়োজন করল অল বেঙ্গল অ্যাকোয়া ফার্মার ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। দক্ষিণ সুন্দরবনের তেরোটি ব্লকের চাষি, ডিলার, এজেন্টদের নিয়ে ওই আলোচনার আয়োজন করা হয়। একাধিক দাবি নিয়ে সরব হয় অ্যাসোসিয়েশন।

ভেনামি চাষি রাজ্যে রয়েছে ২৩টি জেলায়। প্রায় পঞ্চাশ লক্ষ মানুষের উপার্জন নির্ভর করছে এই ভেনামি চাষের ওপর। দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ছ-লক্ষ মানুষ রয়েছে তেরোটি ব্লকে। বেশি চাষ লক্ষ্য করা যাচ্ছে সাগর,পাথরপ্রতিমা,কাকদ্বীপ,কুলতলি,নামখানা,মথুরাপুর এক ও মথুরাপুর দুই ব্লকে। পূর্ব মেদিনীপুরের পর দক্ষিণ ২৪ পরগনা নজির গড়েছিল এই চাষে।

তাঁদের অভিযোগ, এরাজ্য বাদে ভারতবর্ষের অন্য রাজ্য চাষের ক্ষেত্রে বিদ্যুতে ছাড় রয়েছে। কিন্তু এখানে নেই। অধিক লাভ পেতে ইন্টারন্যাশনাল এক্সপোর্ট হাব করার জন্য আবেদন জানানো হয় এই জেলাতে। এছাড়া ভেড়ির পাশে থাকা নদী ও সামুদ্রিক বাঁধ নির্মাণের প্রসঙ্গ উঠে আসে। ভেনামির দাম নিয়েও আলোচনা হয়। জানা যায়, ক্ষতির মুখে পড়ে পেমেন্ট নিয়েও সমস্যায় পড়েছেন এজেন্টরা। সরকারি সহযোগিতা না পেয়ে ক্ষুব্ধ ওয়েস্ট বেঙ্গল অ্যাকোয়া ফার্মার ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের রাজ্য সভাপতি থেকে জেলা সভাপতি।

সংগঠনের রাজ্য সম্পাদক মদনমোহন মণ্ডল বলেন, বিভিন্ন ঝড় ও করোনাতে বিপর্যস্ত এলাকার মৎস্যজীবীরা। তাঁদের দাবি, অন্যান্য রাজ্যের মতো সহজ-সরল শর্তে মাছ চাষিদের ব্যাঙ্ক লোন দেওয়া হোক। সহজ সরল শর্তে বিমাকরণ করা হোক। তাঁদের চিংড়ি মাছ চাষে উন্নতমানের বায়োকেমিক্যাল ল্যাব খোলা হোক প্রতিটি জেলায়। আর রপ্তানিকে কেন্দ্রীয় সরকারের পাশাপাশি রাজ্য সরকারের নিয়ন্ত্রণে আনার দাবিও জানালেন তিনি।

সংগঠনের জেলা সম্পাদক আশোক দাস জানান, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার এজেন্ট,সাব এজেন্ট, চাষি সকলকে নিয়ে এই আলোচনাসভা। বিশেষ করে চাষিদের কথা ভেবে এই আলোচনাসভা। চাষিদের আরও কীভাবে উন্নত প্রযুক্তিতে চাষ করানো যায়,তাঁদের অর্থনৈতিকভাবে সাহায্য কীভাবে করা যায়,সবটা নিয়েই আজকের আলোচনা।

উল্লেখ্য, ২০১৮ -২০১৯ থেকে দক্ষিণ ২৪ পরগনার দক্ষিণ সুন্দরবনে চাষের সংখ্যা ভালোরকম বেড়েছিল। বিদেশের বাজারেও চাহিদা ছিল মারাত্মক। কিন্তু ইয়াসের জলোচ্ছ্বাস আর অতিবৃষ্টির জেরে সব যেন শেষের পথে। লক্ষ লক্ষ টাকা ক্ষতির মুখে চাষিরা। দুঃস্বপ্ন ভুলে আবার নতুন করে ঘুরে দাঁড়াতেই ব্যবসায়ীদের নিয়ে বৈঠক।




All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us