ব্রেকিং নিউজ
  (08:15 AM)-২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৯৪,৭৭৪, সুস্থ ২,৫১,৭৭৭      (08:07 AM)-করোনায় মৃত ৩৫, সংক্রমণের হার কমে ১২.৫৮ শতাংশ      (08:06 AM)-গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্ত ৯,১৫৪     (07:59 AM)-২২ থেকে ২৪ জানুয়ারি হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা     (07:58 AM)-পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে রাজ্য জুড়েই বৃষ্টির সম্ভাবনা  
road-block-ambulance-child-death-chandannagore-bengal
অবরোধে আটকে অ্যাম্বুল্যান্স, প্রাণ গেল শিশুর


Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2021-11-10 18:10:56


জগদ্ধাত্রী পুজোর শোভাযাত্রায় ‘না’ প্রশাসনের। প্রতিবাদে নদিয়ায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ। আর তার জেরে অ্যাম্বুল্যান্সে আটকে প্রাণ গেল বছর সাতের এক শিশুর। পরিবার সূত্রে জানা গেছে, মালদহ থেকে অ্যাম্বুল্যান্সে আহত শিশুকে কলকাতায় চিকিৎসা করাতে নিয়ে যাচ্ছিলেন বাবা-মা। কিন্তু জগদ্ধাত্রী পুজোর শোভাযাত্রায় অনুমতি না মেলায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ শুরু করে বিক্ষোভ দেখান জগদ্ধাত্রী পুজোর উদ্যোক্তারা। জাতীয় সড়কের উপর দাঁড়িয়ে রাস্তা খালি চেয়ে অনবরত সাইরেন বাজিয়ে চলে অ্যাম্বুল্যান্স। কিন্তু, সে আওয়াজ ঢুকল না কারও কানে। কারণ চলছে অবরোধ। 

কিন্তু ঠিক কী কারণে এই অবরোধ ? দাবি ছিল কৃষ্ণনগরের জগদ্ধাত্রী প্রতিমাকে বেয়ারার কাঁধে চাপিয়ে কৃষ্ণনগর রাজবাড়ি হয়ে জলঙ্গিতে নিয়ে যাওয়ার অনুমতি দিতে হবে।  জগদ্ধাত্রী পুজোয় পুরনো ঐতিহ্য ফেরানোর দাবিতে চলে ওই অবরোধ। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে এই প্রথাই চলে আসছে। কিন্তু গত বছর থেকে এই প্রথায় ছেদ পড়েছে। এবছরও মেলেনি অনুমতি। অন্যদিকে অ্যাম্বুল্যান্সের ভিতরে অক্সিজেনের নল নাকে নিয়ে শুয়ে বছর সাতেকের শিশু। কিন্তু বিক্ষোভের জেরে পথ পেল না অ্যাম্বুল্যান্স।  অকালে অ্যাম্বুল্যান্সের ভিতরেই মর্মান্তিক মৃত্যু হল শিশুটির। কান্নায় ভেঙে পড়েছেন মা, বাবা। মঙ্গলবার রাত ১১টা থেকে বুধবার ভোর সাড়ে তিনটে পর্যন্ত ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে অবরোধ করেন স্থানীয় পুজো কমিটির মানুষজন। করোনা আবহে জগদ্ধাত্রী পুজোয় বিধিনিষেধ শিথিল করার দাবিতেই জাতীয় সড়ক অবরোধ করেছিলেন কৃষ্ণনগরের বাসিন্দারা। পরিবারের অভিযোগ, তারই ফলে মালদা থেকে কলকাতা যাওয়ার পথে মৃত্যু হল অসুস্থ ওই শিশুর।

মৃত শিশুর বাড়ি মালদহ থানার হুস্কি টোলা গ্রামে। জানা গেছে, মঙ্গলবার শিশুটি বাড়ির ছাদ থেকে পড়ে গিয়ে আহত হয়। চিকিত্সার জন্য শিশুটিকে অ্যাম্বুল্যান্সে করে কলকাতায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। ঘটনার পর ৫ অবরোধকারীকে গ্রেফতার করে পুলিস। জাতীয় সড়ক বন্ধ থাকায় সুস্থ হয়ে আর বাড়ি ফেরা হল না ওই শিশুর। কোলের শিশুকে হারিয়ে পরিবারে বিষাদের সুর। পরিবারের এমন ক্ষতি মেনে নিতে পারছেন না কেউ। যদিও এই ঘটনায় পুলিসের বিরুদ্ধে উঠেছে আঙুল। অনেকেরই বক্তব্য, অবরোধস্থল থেকে অ্যাম্বুল্যান্সটি নিযে যাওয়ার যথাযথ ব্যবস্থা করা উচিত ছিল পুলিস প্রশাসনের। প্রশ্ন উঠছে, শিশু মৃত্যুর দায় নেবে কে ? আর কোনও মূল্যেই কি ফিরবে শিশুর প্রাণ ? উত্তর খুঁজছে মৃতের পরিবার।





All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us