ব্রেকিং নিউজ
  (11:17 AM)-ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা গোটা দেশে বেড়ে দাঁড়াল ৮২০৯, সুস্থ ৩১০৯     (11:14 AM)-করোনা রুখতে সকাল ১০টার পর থেকে বন্ধ গ্যালিফ স্ট্রিটের পাখিবাজার     (11:02 AM)-সিঁথি থানা এলাকায় রামলীলা বাগানের একটি বাড়িতে ভোররাতে আগুন লাগল     (08:54 AM)-প্রখ্যাত কত্থক শিল্পী পণ্ডিত বিরজু মহারাজ প্রয়াত     (08:48 AM)-সিরিয়াল দেখার ফাঁকে কসবায় দুঃসাহসিক চুরি     (08:48 AM)-রাজ্যের করোনা আক্রান্ত কমলেও মৃত্যুসংখ্যা উর্ধ্বমুখীই     (08:47 AM)-তাপমাত্রা স্বাভাবিকের নিচে, ফের বঙ্গে শীতের আমেজ  
child-death-purulia
Mal nutrition অপুষ্টির করাল গ্রাসে মৃত্যুর কোলে তিনমাসের শিশু


Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2021-11-29 19:47:33


গ্রামীণ পিছিয়ে পড়া এলাকা ও শহুরে বস্তিতে অপুষ্টির ছবি দেখতে আমরা অভ্যস্ত। তেমনই অপুষ্টির শিকার এক শিশুর চিকিৎসার জন্য তৎপর হয়েছিলেন রঘুনাথপুরের মহকুমা শাসক। তবে শেষ রক্ষা হল না। অপুষ্টিতে আক্রান্ত শিশুটি ঢলে পড়ল মৃত্যুর কোলে। এই ঘটনায় ফের প্রশ্নের মুখে পড়ে গেল সরকারি চিকিৎসা পরিষেবা।

সামাজিক উদাসীনতা ও সচেতনতা, দুইয়েরই অভাব লক্ষ্যণীয়। যার জন্যই অপুষ্টিতে শিশুমৃত্যুর ঘটনায় এবার উঠে এল পুরুলিয়ার নাম। এই জেলার সাঁতুড়ি থানার অন্তর্গত ঢেকশিলা গ্রামের মালপাড়া। এখানকারই বাসিন্দা অরুপ ও টুম্পা মালের তিনমাসের পুত্রসন্তানের মৃত্যু হল অপুষ্টিজনিত সমস্যায়।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে অপুষ্টিতে ভুগছিল ওই শিশুটি। সেই খবর পাওয়া মাত্রই তার বাড়িতে পৌঁছেছিলেন রঘুনাথপুরের মহকুমা শাসক প্রিয়দর্শিনী ভট্টাচার্য। বাড়িতেই শিশুটির স্বাস্থ্যপরীক্ষা করা হয়। দেখা যায়, চরম অপুষ্টি ছাড়াও মাস তিনেকের শিশুটি নিউমোনিয়া ও চর্মরোগে ভুগছিল। প্রথমে শিশুটিকে পুরুলিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু বাঁচানো গেল না তাকে।

প্রথমত, অপুষ্টিতে আক্রান্ত শিশু ও শিশুর মায়েদের পুষ্টি পুনর্বাসন কেন্দ্রগুলিতে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে কাঠখড় পোড়াতে হয় এখনও। যেমন এক্ষেত্রে অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীদের পরামর্শ সত্ত্বেও পুষ্টি পুনর্বাসন কেন্দ্রে প্রথমে শিশুটিকে নিয়ে যাননি বাড়ির লোকজন। 

দ্বিতীয়ত, রাজ্যজুড়ে অপুষ্টিজনিত সমস্যা রোধে আইসিডিএস কেন্দ্র থাকলেও, শিশুদের স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতনতা ও সুপরিকল্পনা, এই দুইয়েরই অভাব। নেই পর্যাপ্ত পরিমাণে পুষ্টিগুণ সম্পন্ন খাবারও। তাই প্রশাসনিক তরফে চেষ্টার পরেও অপুষ্টিহীনতা পুরোপুরি দূর হচ্ছে না।

শিশুটির মা টুম্পা মাল জানান, মহকুমা শাসকের তৎপরতায় পুরুলিয়া দেবেন মাহাতো মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ছেলেকে ভর্তি করা হয়। সেখানে এক সপ্তাহ চিকিৎসা চলার পর রাতারাতি শিশুটিকে বাঁকুড়ায় স্থানান্তরিত করতে বলা হয়। কিন্তু সামর্থ্য এবং আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে পিছিয়ে যান তাঁরা। তবে মেলেনি সরকারি অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা। চোখের সামনেই তিনমাসের শিশুটির মৃত্যুর সাক্ষী তিনি সহ গোটা পরিবার।

এই বিষয়ে পুরুলিয়া দেবেন মাহাতো সরকারি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের এমএসভিপি সুকমল বিষয়ী জানান, অপুষ্টি সহ শিশুটি একাধিক রোগে আক্রান্ত ছিল। একই সঙ্গে অ্যাম্বুল্যান্স পরিষেবা না পাওয়ার কথা অস্বীকার করেছেন তিনি।

এক কথায়, এই ঘটনা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে, শুধুমাত্র সচেতনতার অভাব নয়, সময়ে মেলে না সরকারি সুযোগ-সুবিধাও। সামাজিক উদাসীনতা আরও এক শিশুকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিল। কিন্তু, দায় নেবে কে?




All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us