high-price-petrol-diesel-horse-ride
Petrol-Diesel তেলের দাম আগুন, বাইক ছেড়ে ঘোড়ায় সওয়ার যুবক!


Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2021-11-25 14:04:38

আকাশছোঁয়া তেলের দাম। শখের বাইকে প্রতিদিন পেট্রোল ভরতে খরচ প্রায় ২৫০ টাকা। সঙ্গে তেল পুড়িয়ে বিশ্ব উষ্ণায়নের লক্ষ্যে এগিয়ে যাওয়া। এই দুই থেকে মুক্তি পেতে ঘোড়াই কিনে ফেললেন এক যুবক। এখন সেই ঘোড়ায় চেপেই প্রয়োজনীয় কাজকর্ম সারছেন তিনি। পাশাপাশি নব প্রজন্মের অনেককেই অশ্বারোহী করে তুলতে সাহায্যও করছেন ওই যুবক। 

বর্তমানে ঘোড় সওয়ারি হিসাবে পরিচিত ওই যুবক। চুঁচুড়া থানার ব্যান্ডেল বলাগড় রোডের বাসিন্দা তথা প্রাক্তন ভারতীয় সেনাবাহিনীর কর্মী দীপককুমার রায় ও গৃহবধূ মিনতি রায়ের পুত্র অলোককুমার রায়। বছর ঊনত্রিশের অলোক বছর আটেক ছিলেন সৌদি আরবে। সেখানে একটি কোম্পানির হেভি ইকুইপমেন্ট অপারেটর হিসাবে কাজ করতেন। ২০২০-র করোনাকালে সেখানকার পাট চুকিয়ে দেশে ফেরেন অলোক। তবে সেখান থেকে একটি জিনিস তিনি নিয়ে এসেছেন হুগলীতে। তা হলো ঘোড়ার প্রতি ভালোবাসা। 

বাইক প্রেমী অলোকের একাধিক নামিদামী বাইক রয়েছে। আর তা দিয়েই নিত্য প্রয়োজনের কাজকর্ম সারতেন তিনি। কিন্তু সাম্প্রতিকালে পেট্রোলের উর্দ্ধমুখী দামের জেরে বাইক প্রেমে ভাটা পরতে শুরু করে অলোকের। তখনই অলোকের সৌদিতে শেখা পরিবেশ সচেতনতায় ঘোড় সওয়ারির কথা মাথায় আসে। 

প্রথমে চলতি বছর জন্মাষ্টমীর দিন কলকাতার হেস্টিংস থেকে ২লক্ষ ২০হাজার টাকা দিয়ে কাটিয়াওয়ারা প্রজাতির একটি ছেলে ঘোড়া কিনে নিয়ে আসেন অলোক। ঘোড়ার নাম দেন রাজু। পেট্রোলের টাকায় ঘোড়াকে খাওয়ানো শুরু করেন তিনি। প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত অলোকের ঘোড়া পোষ মানাতে বেশীদিন সময় লাগেনি। এরপরই অলোকের কাছে ঘোড় সওয়ারির প্রশিক্ষন নিতে বেশকিছু নব প্রজন্মের ছেলে-মেয়েরা ভর্তি হন। চাহিদা দেখে চলতি মাসের কালী পুজোর দিন হেস্টিংস থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকা দিয়ে আরও একটি ঘোড়া কিনে আনেন অলোক। মারোয়ারি প্রজাতির মেয়ে জাতের এই ঘোড়ার নাম দেন মুসকান। মুসকানের বয়স সাড়ে চার বছর। 

ঘোড় সওয়ারি  অলোক কুমার দে জানান, বাইকের পেট্রোল কিনতে প্রতিদিন যা খরচ হত। আর উল্টে তেল পুড়িয়ে পরিবেশ দূষনের ভাগীদার হতাম। একটি ঘোড়া পিছু প্রতিদিন ৩০০টাকা খরচ করলেই যখন যথেষ্ট তখন বাইক রেখে পরিবেশ বান্ধব ঘোড়া চাপাই ভালো। কারণ এভাবে চলতে থাকলে মাটির তলার তেলও অদূর ভবিষ্যতে শেষ হয়ে যাবে।  তখন আগেকার দিনের মত ঘোড়া-ই  বিকল্প হয়ে উঠবে।

অলোকের কাছে প্রশিক্ষণরত এক তরুনী সঞ্জনা মজুমদার বলেন, কলকাতা ছাড়া হর্স রাইডিং শেখার উপায় নেই। তাই ইচ্ছা থাকলেও উপায় ছিল না। কিন্তু এলাকায় এধরনের সুযোগ পেয়ে তাঁর বাবা-ই এখানে ভর্তি করে দিয়েছে।

অলোকের ভাবনাকে কেউ পাগলামি বলুক আর যাই বলুক না কেন। একটা কথা স্পষ্ট, পেট্রোলের দাম বাড়ায় বিরোধী নেতারা যখন একদিনের জন্য সাইকেল কিংবা গরুর গাড়িতে চেপে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন, তখন তেলের দামের আগুনে পুড়ে শখের বাইক গ্যারেজ বন্দি করে দু'দুটো ঘোড়া কিনে নজির সৃষ্টি করলেন অলোকবাবু। 




All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us