শিরোনাম
behala-attack-mother-daughter-husband-wife
Behala বেহালায় দুটি জায়গায় অতর্কিত হামলা, জখম, আতঙ্ক


Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2021-11-22 15:26:17

বেহালায় মা ও তাঁর কুড়ি বছরের মেয়ের উপর রড ও কাটারি দিয়ে হামলার অভিযোগ এক পরিচিত যুবকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে বেহালা সেনাটি বাজার এলাকায়। পরিবারের লোকের অভিযোগ, মা ও মেয়েকে বাপ্পা নিয়োগী (৪০) নামের এক যুবক ঘরে ঢুকে আচমকাই ধারালো রড ও কাটারি দিয়ে আঘাত করতে থাকে।

জানা যায়, তাঁরা ঘরে একা ছিলেন। সেই সময়ই আচমকা ঘরে ঢুকে ওই যুবক মারতে থাকে মা ও মেয়েকে। চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন আসে এবং অভিযুক্ত পালিয়ে যায়। পাড়া প্রতিবেশীরা সঙ্গে সঙ্গে খবর দিলে বেহালা থানার পুলিশ এসে মা ও মেয়েকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বিদ্যাসাগর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

আক্রান্তের স্বামী জানান, তাঁর স্ত্রী ও মেয়ে নেমন্তন্ন বাড়ি গিয়েছিল। সেখান থেকে এসে মেয়ে শুয়েও পড়েছিল। আচমকা বাপ্পা নামক ওই যুবক তাঁদের ঘরে ঢোকে। রড দিয়ে এলোপাথারি মারতে থাকে। তাঁর স্ত্রী আটকাতে গেলে তাঁকেও কাটারি দিয়ে আঘাত করে। মেয়েকেও মারতে থাকে। কেন এমনটা করল, একেবারেই তাঁর অজানা।

স্থানীয় সূত্রে খবর, দিদির বাড়ি থেকে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিস। মা ও মেয়ে বিদ্যাসাগর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তবে মেয়ের শরীরের বিভিন্ন অংশ মিলিয়ে মোট ৩৫ টি সেলাই পড়েছে। কী কারণে এই হামলা, খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

অন্যদিকে, একইদিনে বেহালার ঠাকুরনগরে ঘটে আরও একটি ঘটনা। রাত সাড়ে নটার সময় বাজার থেকে নিজের বাড়ি ঠাকুরপুকুর আনন্দনগরে ফিরছিলেন স্বামী-স্ত্রী। সেই সময় সঞ্জু সাহা (৩৫)  নামে এক ব্যক্তি ধারালো অস্ত্র দিয়ে স্বামীর গলায় ও স্ত্রীর মুখে আঘাত করে। তারপর সেখান থেকে আততায়ী পালিয়ে যায়। চিৎকার চেঁচামেচি শুনে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসেন। দুজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা। আততায়ীকে ধরতে গেলে তাঁদের মারধরের হুমকি দেয়।

পরবর্তীকালে স্থানীয় লোকজন আততায়ী সঞ্জু সাহাকে ঘরের বাইরে থেকে তালাবন্ধ করে রেখে ঠাকুরপুকুর থানায় খবর দেয়। ঠাকুরপুকুর থানার পুলিশ আততায়ীকে আটক করে। প্রথমে ঠাকুরপুকুর কস্তুরী হাসপাতালে, সেখান থেকে এসএসকেএম-এ নিয়ে যাওয়া হয়। তবে কী কারণে আততায়ী এইভাবে স্বামী ও স্ত্রীর উপর আক্রমণ করল, তা পরিষ্কার নয়।

পরিবারের এক আত্মীয় বলেন, তিনি খবর পেয়ে ছুটে আসেন। এসে দেখেন, পুলিস এসে তাঁর ভাগ্নে ও ভাগ্নে বৌকে উদ্ধার করে হাসপাতাল নিয়ে গেছে। তিনি এসে পুরো ঘটনাটি জানতে পারেন। ওই ছেলেটি এর আগেও এমন ঘটনা ঘটিয়েছে। খুন, মারপিট এসব করতে করতে ছেলেটির অভ্যাসে পরিণত হয়ে গেছে বলে জানালেন তিনি।

তবে স্থানীয় সূত্রে খবর, এই যুবক মানসিক ভারসাম্যহীন। এর আগেও বেশ কয়েকজনের উপর আক্রমণ চালিয়েছে। ইতিমধ্যে ঠাকুরপুকুর থানার পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেছে এবং আহত দুজনের চিকিৎসা চলছে এসএসকেএম হাসপাতালে। পরপর এমন ঘটনায় কার্যত আতঙ্ক ছড়িয়েছে গোটা এলাকা জুড়ে।




All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us