ব্রেকিং নিউজ
  (15:40 PM)-ফের আগামি কাল গোয়া সফর করবেন অভিষেক বন্দোপাধ্যায়     (15:37 PM)-রাজ্য সরকারের সামাজিক প্রকল্পের জন্য ১০০০ কোটি টাকা ঋণ অনুমোদন করল বিশ্ব ব্যাঙ্ক     (14:19 PM)-কালিম্পং জেলার সামসিং ফাঁড়ির মণ্ডলগাও এবং খাসমহল গ্রামে ভল্লুকের আতঙ্ক      (14:17 PM)- বাঁকুড়ার গঙ্গাজলঘাটিতে হাতির দলের তাণ্ডব। জখম ও মৃত একাধিক গবাদিপশু      (14:15 PM)-বাসন্তীতে উদ্ধার চারটি বেআইনি আগ্নেয়াস্ত্র। ধৃত এক। এলাকায় চাঞ্চল্য      (14:14 PM)-অবৈধ গ্যাস সিলিন্ডার রাখার অভিযোগে মঙ্গলকোটে গ্রেপ্তার এক ব্যক্তি     (14:13 PM)-ডোমজুড়ে পাওয়ার হাউসে অগ্নিকাণ্ড। একটি স্পঞ্জ কারখানায় আগুন     (14:12 PM)-বোমা বিস্ফোরণে জখম তিন শিশু। বহরমপুরের টিকটিকিপাড়া এলাকার ঘটনা     (10:42 AM)-মুম্বাইয়ের বহুতলে সকাল ৭টা নাগাদ আগুন, মৃত ২, হাসপাতালে ভর্তি ১৫     (10:40 AM)-৫ বি তিলজলা রোডে এক প্রৌঢ়ের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, প্রাথমিক ধারণা আত্মহত্য়া     (10:03 AM)-প্রয়াত প্রাক্তন ফুটবলার তথা কোচ সুভাষ ভৌমিক     (08:15 AM)-২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৯৪,৭৭৪, সুস্থ ২,৫১,৭৭৭      (08:07 AM)-করোনায় মৃত ৩৫, সংক্রমণের হার কমে ১২.৫৮ শতাংশ      (08:06 AM)-গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্ত ৯,১৫৪     (07:59 AM)-২২ থেকে ২৪ জানুয়ারি হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা     (07:58 AM)-পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে রাজ্য জুড়েই বৃষ্টির সম্ভাবনা  
story-of-o-chand-samle-rakho
Manna de: ও চাঁদ সামলে রাখ জ্যোছনাকে


Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2021-11-26 16:04:26


প্লেনের জানলা থেকে জ্যোছনা রাতের সৌন্দর্য উপভোগ করতে করতেই পুলক বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছিলেন এক অবিস্মরণীয় বাংলা গান, ও চাঁদ সামলে রাখ জ্যোছনাকে। সত্তরের দশকের গোড়ার দিকের কথা,তখন পুজোর গান মানে একটা হৈ হৈ ব্যাপার। মান্না দে পুজোর গান লিখবেন বিখ্যাত গীতিকার পুলক বন্দ্যোপাধ্যায়। মান্না দে বম্বেতে অনেক গুলি হিন্দি ছবির গানের রেকর্ডিং নিয়ে খুব ব্যস্ত। তিনি কলকাতায় ট্রাংকল করে পুলক বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানালেন যে,তিনি খুব ব্যস্ত কলকাতায় যেতে পারছেন না। তাই পুলকবাবু যেন পুজোর গানগুলো লিখে নিয়ে বম্বেতে চলে আসেন। ওখানেই পুজোর গানের রেকর্ডিং করা হবে । পুলকবাবু মান্না দে-র কথায় সম্মতি প্রদান করলেন। তার বম্বে যাবার দিনও  ঠিক হয়ে গেল।

তখন বাংলা ছবি ও আধুনিক গানের কাজ নিয়ে পুলক বন্দ্যোপাধ্যায় খুবই ব্যস্ত ছিলেন। তাই তিনি মান্না দে-র পুজোর গান লিখেই উঠতে পারলেন না। এদিকে নির্দিষ্ট দিনে পুলকবাবু কলকাতা থেকে বম্বে যাবার সান্ধ্য বিমানে চেপে বসলেন। মনের মধ্যে একরাশ চিন্তা ভিড় করে আসছে,পরের দিনই তো মান্না দে-কে পুজোর গান দিতে হবে, কি করবেন এইসব ভাবতে ভাবতে একটা সিগারেট ধরালেন। বলে রাখা ভাল সেই সময় বিমানে সিগারেট খাওয়া যেত। অনেক বছর হল বিমানে ধূমপান নিষিদ্ধ হয়ে গেছে । সিগারেটে দু তিনটে টান মেরে প্লেনের জানলা দিয়ে একমনে জ্যোছনা রাতে চাঁদের সৌন্দর্য উপভোগ করছিলেন । 

 হঠাৎ সম্বিত ফিরলো একটি মিষ্টি কন্ঠস্বরের আওয়াজে। আপনি কি নেবেন চা না কফি? অপরূপ সুন্দরী বিমান সেবিকার প্রশ্নের উত্তর দেবেন কি, তার মুখের দিকে তাকিয়ে কয়েক সেকেন্ডের জন্য বাকরুদ্ধ হয়ে গিয়েছিলেন পুলকবাবু। তারপরে হেসে চায়ের কথা বলতেই মিষ্টি হেসে বিমান সেবিকা ধন্যবাদ জানিয়ে চলে যান। পুলকবাবু বার কয়েক জানলা দিয়ে জ্যোছনা রাতের চাঁদের দিকে তাকিয়ে আবার বিমান সেবিকার দিকে তাকিয়ে দেখে যেন দ্বিধাগ্রস্ত হয়ে পড়েন কে বেশি সুন্দর এই ভেবে।