C A L C U T T A   N E W S

আন্তর্জাতিকআরও পড়ুন

Facebook: বদলে যাচ্ছে ফেসবুকের নাম!

সানফ্রান্সিসকোঃ করোনাভাইরাসের কারণে বদলে গিয়েছে আমাদের জীবন। এবার কি বদলে যাচ্ছে ফেসবুকের নাম? শুরু হয়েছে জল্পনা। 

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ‘দ্য ভার্জ’-এর এক প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, বদলে যাচ্ছে ফেসবুকের নাম! যদিও এখনও পর্যন্ত এই বিষয় মার্ক জুকারবার্গের সংস্থার তরফে কোনও মন্তব্য করা হয়নি।

আগামী সপ্তাহে ২৮ অক্টোবর ফেসবুকের বার্ষিক সম্মেলন। মার্কিন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ওই বৈঠকে ফেসবুকের নতুন নামের বিষয় আলোচনা করতে পারেন ফেসবুকের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার তথা প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গ।

কিন্তু হঠাৎ নাম বদলানোর পরিকল্পনা কেন? 

আসলে ফেসবুক সোশ্যাল মিডিয়া হিসেবে উত্থান হলেও এখন তার কার্যকারিতা অনেক বেড়েছে। ফেসবুকের অধীনে এসেছে ইনস্টাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপের মতো একাধিক প্ল্যাটফর্ম। তাই সংস্থার নাম শুধু ফেসবুক থাকা বাঞ্ছনীয় নয় বলে মনে করছেন সংস্থার অনেকে। তাছাড়া কয়েক মাস আগে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গ জানিয়েছিলেন, ফেসবুক সোশ্যাল মিডিয়ার সংস্থা থেকে একটি মেটাভার্স কোম্পানিতে উন্নীত হোক। 

মেটাভার্স আসলে কী ? 

মেটাভার্স হলো ভার্চুয়াল জগৎ। যা বাস্তবতার সঙ্গে ডিজিটাল সংমিশ্রণ। এই সময়ের ব্যবহারকারীরা যার যার চেহারার সঙ্গে মিল রেখে অ্যাভাটার বানাতে পারবেন। আর অ্যাভাটারগুলোকে ব্যবহারকারীরাই নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।

যেমন ব্যবহারকারীরা নিজের ঘরে হাঁটলে, কথা বললে ভার্চুয়াল জগতের অ্যাভাটারও হাঁটবে, কথা বলবে। অর্থাৎ মেটাভার্স হচ্ছে এমন এক অনলাইন জগৎ, যেখানে ভার্চুয়াল দুনিয়ার মধ্যেই গেমিং, অফিসের কাজ এবং যোগাযোগের সবই করা যাবে। এ কাজ করা হবে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি হেডসেট ব্যবহার করে।

এখন প্রশ্ন উঠেছে ফেসবুক কি সত্যিই নাম পাল্টাচ্ছে ? এই বিষয় ফেসবুকের এক মুখপাত্র সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন,কোনও ধরনের গুজব সম্পর্কে মন্তব্য করবেন না। 



খেলাধুলাআরও পড়ুন

ক্রিকেটের খবরদারি

ভারতীয় ক্রিকেটে বরাবরই মুম্বাইয়ের একটা প্রতিপত্তি ছিল | আজ নয় ব্রিটিশ যুগ থেকে | অবশ্য পরবর্তী অধ্যায়ে দিল্লিও এর মধ্যে ঢুকে পরে | তখন দেখা যেত হয় মুম্বাই অথবা দিল্লি থেকেই অধিনায়ক হচ্ছে দলের | ৬০ এর দশকে ভারতের অধিনায়ক ছিলেন নরি কন্ট্রাক্টর | তিনি মুম্বাইয়ের ছিলেন এবং যেহেতু তিনি মুম্বাইয়ের ছিলেন তাই মহারাষ্ট্র দলের সিনিয়ার ক্রিকেটার চান্দু বোঁর্দেকে বাদ দিয়ে সহ অধিনায়ক করা হলো নবাগত ২১ বছরের পাতৌদিকে | মাথায় চোট পেয়ে কোট্রাক্টর দলের বাইরে গেলে অধিনায়ক হন পাতৌদি এবং সহকারী হন বোঁর্দে | ৭০ দশকের গোড়ায় চান্দু খেলা ছেড়ে দিলে সহ অধিনায়ক করা হয় মুম্বাইয়ের অজিত ওয়াদেকরকে | ৭১ এ পাতৌদি দল থেকে বাদ পড়লে ওয়াদেকরকে অধিনায়ক করা হয় এবং সহকারী করা হয় দিল্লির বিষেন সিং বেদির |



এই মিথ চলে গাভাস্কারের আমলেও | তিনি অধিনায়ক হলে হরিয়ানার কপিলদেবকে সহকারী করা হয় | কপিল আবার দিল্লির বাসিন্দা | কপিলকে পুরোদস্তুর অধিনায়ক করা হলে সহকারী করা হয় মুম্বাইয়ের দিলীপ বেঙ্গসরকারকে | এই মিথটি ভেঙে যায় আজহারউদ্দিন অধিনায়ক হওয়ার পর | কিন্তু এখানেও সংকট, আজাহার অধিনায়ক হয়েই সমস্ত পুরাতনদের একে একে ছেঁটে বাদ দিয়ে দেন | তিনিই হয় ওঠেন সর্বেসর্বা | এতে ক্রিকেটের কি সুবিধা হয়েছিল পরের কথা কিন্তু ভারতীয় ক্রিকেট বেটিং কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পরে |

পরিবর্তন এবং গণতন্ত্র আসে সৌরভ গাঙ্গুলি অধিনায়ক হওয়ার পর | তারপর ধোনি ওই সংস্কৃতি ধরে রাখেন | ভারত বিশ্বকাপ জেতে | 

আজ ফের ওই দিল্লি মুম্বাইয়ের কাঁটাকাঁটি শুরু হয়েছে কোহলি এবং রোহিতের যুগে |   


Sports: রাহুল কোচ জানেন না কোহলি
Sports: ভারতীয় দলের কোচ রাহুল দ্রাবিড়!
Sports: হৃদরোগে আক্রান্ত প্রাক্তন পাক অধিনায়ক ইনজামাম উল হক, হাসপাতালে ভর্তি
Sports: এবার এটিকে মোহনবাগানকে ৬-০ গোলে হারাল নাসাফ
Sports: রবিবার ফের শুরু আইপিএল
Sports: শাস্ত্রীর পর কোচ কে?
Virat Koholi: কোহলি ছাড়ছেন সল্প ওভারের নেতৃত্ব
Sports:সরছেন শাস্ত্রী, সরতে চান কোহলিও
<

লাইফস্টাইলআরও পড়ুন

Japan House: জাপানে পরিত্যক্ত বাড়ি বিক্রির হিড়িক

জাপান। বৈভব ও প্রাচুর্যের দেশ। জাতীয় আয়ের নিরিখে যা বিশ্বের শীর্ষ দেশগুলির অন্যতম। আর সেখানেই কিনা উলট পুরাণ! 

যে ছবি দেখা গিয়েছিল ইতালিতে, সেই একই ছবি উঠে এল জাপানের কিছু এলাকায়। এক সমীক্ষায় প্রকাশ, জাপানেও অনেক বড় বড় বাড়ি পড়ে রয়েছে পরিত্যক্ত অবস্থায়। বাড়ি আছে, কিন্তু  মানুষের বাস নেই। অনেকেই আছেন, যাঁরা সেদেশ থেকে অন্য দেশে চলে যাচ্ছেন। তাই বাড়ি বিক্রি করে দিচ্ছেন অন্যের কাছে। কিংবা বহুতল বাড়ি ফাঁকা পড়ে থাকছে দিনের পর দিন।এইভাবে জাপানের বহু এলাকায় একাধিক বড় বড় বাড়ি থাকা সত্ত্বেও একেবারে জনশূন্য পরিস্থিতি। বিশেষত গ্রামাঞ্চলে এমন ছবি স্পষ্টতই উঠে আসছে। কিন্তু কেন এরকম হচ্ছে? বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, প্রথমত জনসংখ্যা অনেকটাই হ্রাস পাচ্ছে জাপানে। দ্বিতীয়ত, এযুগের তরুণ প্রজন্ম তাদের কাজের তাগিদে অন্য দেশে পাড়ি দিচ্ছে। যে কারণে জাপানের বহু এলাকায় অনেকটাই জনশূন্য পরিস্থিতি। 

কিন্তু এসবই অনেকের কাছে উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালে জাপানে প্রায় ৪ লক্ষ ৪৯ হাজার জনসংখ্যা কমে যায়। এইভাবেই দিনের পর দিন জনসংখ্যা কমে আসছে। তবে সেখানে কোনও বাড়ি যাতে না পড়ে না থাকে, সেই কারণে অনলাইনের মাধ্যমে বাড়ি বিক্রির বিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ করা হচ্ছে। মনে করা হচ্ছে, এইভাবে যদি বাড়ি বিক্রিতে জোয়ার আনা যায় এবং আরও বেশি সংখ্যক মানুষ যদি বাড়ি কিনে সেখানে বসবাস করতে শুরু করেন, তাহলে পরিস্থিতি হয়তো অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে। যদিও এই পরিত্যক্ত বাড়িগুলি দিনের পর দিন পড়ে থাকছে। যার জেরে বলা যায়, কার্যত ভুতুড়ে বাড়িতেই পরিণত হচ্ছে। কেন হচ্ছে? একটাই কারণ, মানুষ থাকছে না। সেই কারণেই বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে জাপানে বাড়ি বিক্রির উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।  

কিন্তু এতকিছু করেও আদতে কি স্বাভাবিক ছন্দে ফিরবে জাপানের ওইসব এলাকা, প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। 



19 hours ago
সুখাদ্য, কিন্তু কতটা? কী বলেছিলেন উত্তমকুমার
কোটি কোটি টাকার শিল্পীরা কেন ড্র্যাগ আসক্ত ?
ওহ লাভলী মদন
Fireworkers: আতশবাজি ফুসফুসে বিপদের কারণ!
Viral Video: অবাক কান্ড! থুতু দিয়ে বানাচ্ছে তন্দুরি রুটি
বিজয়ার খাওয়া কোথায় ?
Gold: ধনতেরাসের আগে সোনার দর কমল
Viral Video: বিমানবন্দরে নিরাপত্তারক্ষীদের অনুমতি নিয়ে মাসিকে আদর করল শিশু

ভিডিও খবর

বোলতার কামড়ে মহিলার মৃত্যু!
রাজ্য | 31 minutes ago
দিওয়ালিতে দেশি পণ্য কেনার টাস্ক দিলেন মোদি
দেশ | 31 minutes ago
একসঙ্গে মা তারার পুজোতে সুকান্ত-দিলীপ
রাজ্য | 32 minutes ago
আতঙ্কে ৫০টি গ্রামের বাসিন্দারা
রাজ্য | 33 minutes ago
রাস্তায় চাট বিক্রি করছেন কেজরিওয়াল!
দেশ | 33 minutes ago
বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে নীলবাতি লাগানো গাড়ি!
রাজ্য | 34 minutes ago
ডাক্তারি পড়ুয়াদের সঙ্গে বৈঠক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের
রাজ্য | 57 minutes ago
বেহাল স্বাস্থ্য, অসহায় রোগী
রাজ্য | 58 minutes ago
নতুন স্লোগান, ত্রিপুরার জন্য তৃণমূল
দেশ | 58 minutes ago
১০০ কোটি টিকাকরণ, সাফল্যে খুশি বিজেপি
দেশ | 59 minutes ago
জল যন্ত্রণায় সাধারণ মানুষ
রাজ্য | 60 minutes ago
ভ্যাকসিন নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ
রাজ্য | an hour ago