ব্রেকিং নিউজ
  (11:17 AM)-ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা গোটা দেশে বেড়ে দাঁড়াল ৮২০৯, সুস্থ ৩১০৯     (11:14 AM)-করোনা রুখতে সকাল ১০টার পর থেকে বন্ধ গ্যালিফ স্ট্রিটের পাখিবাজার     (11:02 AM)-সিঁথি থানা এলাকায় রামলীলা বাগানের একটি বাড়িতে ভোররাতে আগুন লাগল     (08:54 AM)-প্রখ্যাত কত্থক শিল্পী পণ্ডিত বিরজু মহারাজ প্রয়াত     (08:48 AM)-সিরিয়াল দেখার ফাঁকে কসবায় দুঃসাহসিক চুরি     (08:48 AM)-রাজ্যের করোনা আক্রান্ত কমলেও মৃত্যুসংখ্যা উর্ধ্বমুখীই     (08:47 AM)-তাপমাত্রা স্বাভাবিকের নিচে, ফের বঙ্গে শীতের আমেজ  
totally-damaged-mousuni-island-new-hope
তছনছ মৌসুনি দ্বীপে জেগে ওঠার স্বপ্ন


Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2021-10-27 14:09:21


ঘূর্ণিঝড় আমফান  ও  ইয়াসের জোড়াফলায়  প্রচুর ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছিল মৌসুনি দ্বীপ। কেবল প্রাকৃতিক দুর্যোগই নয়, টানা দুবছর করোনা আবহে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছিল মৌসুনি দ্বীপের পর্যটন শিল্প এবং তার সঙ্গে জড়িত টেন্ট ব্যবসায়ীরা। সব প্রতিকূলতা পার করে উৎসবের মরসুমে নতুন করে ঢেলে সাজানো হচ্ছিল হোমেজ কটেজগুলি। তবে দিন কয়েকের প্রবল বর্ষণে ফের সবকিছু তছনছ হয়ে গিয়েছিল। ফলে এবার দুর্গা আর লক্ষ্মীপুজোতে পর্যটকদের তেমন হিড়িক পড়েনি মৌসুনি দ্বীপে। দীপাবলির দিকেই তাকিয়ে রয়েছেন ছোট-বড় আশিটি টেন্টের মালিক। 

দক্ষিণ সুন্দরবনের নামখানা ব্লকের মৌসুনি গ্রাম পঞ্চায়েতের সল্টঘেরি। এখানে ২০১৭ সাল থেকে শুরু হয় পর্যটন ব্যবসা। তখন ছিল হাতে গোনা কয়েকটি টেন্ট। সময় যত এগিয়েছে, বেড়েছে ব্যবসার পরিধি । কিন্তু বুলবুল, আমফান, ইয়াসের সময় সমুদ্রে ব্যাপক জলস্ফীতির জেরে প্লাবিত হয়েছিল গোটা মৌসুনি দ্বীপটাই। মুড়ি-মুড়কির মত ভেঙে পড়েছিল সেখানকার পঞ্চাশের বেশি কটেজ। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতেই নতুন করে তা মেরামতি শুরু হয়।  কিন্তু নিম্নচাপের জেরে টানা বৃষ্টিতে বালিয়াড়া এবং সল্টঘেরি এলাকা প্লাবিত। ফলে ফের লোকসানে মাথায় হাত টেন্টের মালিক তথা পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত ব্যবসায়ীদের। স্থানীয় এক টেন্ট ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, করোনা আবহে এবারের পুজোতে ব্যবসায় ভাটা পড়েছে। সামনে কালীপুজো। সেইদিকেই তাকিয়ে রয়েছেন তাঁরা। 

বর্তমানে মৌসুনির পূর্বে রয়েছে চিনাই নদী। সেখানে এবার মাটির রিং বাঁধ হচ্ছে। কিন্তু দক্ষিণে কোনও বাঁধ নেই। বুলবুল, আমফান আর ইয়াসের জলোচ্ছাসের দুঃস্বপ্ন বয়ে নিয়ে চলেছেন দ্বীপবাসিরা। কোথাও পড়ে রয়েছে ইটের হাড় বের করা ঘরবাড়ি, আবার কোথাওবা বাঁশ, খুঁটি, ইউক্যালিপটাস গাছের ভগ্ন বাঁধ।  শতকষ্ট বুকে নিয়ে আবারো নতুন সাজে সেজে উঠছে মৌসুনি পর্যটন কেন্দ্র। কোথাও চলছে টেন্ট লাগানোর কাজ। কোথাও বা রং -বেরঙের লাইটের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। অনেক পর্যটক এসে দারুণ উপভোগ করছেন নতুন করে সাজানো দ্বীপ। 

শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি নিয়ে ঘুড়ে দাঁড়াতে চাইছেন টেন্ট ব্যবসায়ীরা। 





All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us