ইউজিসির কাঠামো অনুযায়ী বেতন, তবুও খুশি নন অধ্যাপকরা

0
567

২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকেই ইউজিসির সংশোধিত বেতন কাঠামো অনুযায়ী বেতন পাবেন রাজ্যের সমস্ত কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকরা। মঙ্গলবার নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে শিক্ষকদের এক সমাবেশে এই প্রতিশ্রুতিই দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি গত চার বছরে ৩ শতাংশ হারে বর্ধিত বেতন বা ইনক্রিমেন্ট পাবেন শিক্ষক অধ্যাপকরা। ফলে মিলবে না এরিয়ার, তাই খুব একটা খুশি নন অধ্যাপক মহল। মঙ্গলবার নেতাজি ইনডোরে রাজ্যের সমস্ত অধ্যাপক সংগঠনকে ডেকেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। ফলে তাঁরা আশায় বুক বেঁধেছিলেন বড় কোনও ঘোষণা করতে চলেছেন তিনি। কিন্তু এদিন শুরুতেই মুখ্যমন্ত্রী বলে দেন, ‘বেশি কিছু চাইবেন না, ধরে নিন ছোট্ট উপহার আপনাদের জন্য। আমার যতটুকু সাধ্য ততটাই দেব। ইউজিসির বেতন কাঠামো অনুযায়ীই পাবেন আপনারা’। পাশাপাশি ২০১৬-১৭, ১৭-১৭, ১৮-১৯ ও ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ৩ শতাংশ করে বেতন বৃদ্ধি হবে বলেও ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। এরিয়ার না দিয়ে ইনক্রিমেন্ট হিসেবে দেওয়া হবে বর্ধিত বেতন। এরফলে ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

অপরদিকে শুধুমাত্র অধ্যাপকদের জন্যই নয়, সুখবর রয়েছে পার্ট টাইম শিক্ষক, গেস্ট লেকচারার ও সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত কলেজের শিক্ষকদের জন্যও। তাঁদের বেতন বাড়ল ৫ হাজার টাকা করে। ইউজিসির বেতন কাঠামো মেনে বেতন দিক রাজ্য, অধ্যাপকদের এই দাবি ছিল দীর্ঘদিনের। আর এই বেতন বাড়ুক ২০১৬ সাল থেকেই। কিন্তু ইউজিসি কাঠামোয় বেতন মিলবে ২০২০ সাল থেকে, আর ৩ শতাংশ হারে বৃদ্ধির কোনও এরিয়ারও দেবে না রাজ্য। ফলে এই ঘোষণা খুশি করতে পারেনি রাজ্যের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপকদের। যদিও ড্যামেড কন্ট্রোল হিসেবে মুখ্যমন্ত্রী এদিন সভামঞ্চ থেকেই বলেন, এই বছরও রাজ্যকে ৫০ হাজার কোটি টাকা দেনা মেটাতে হবে। কেন্দ্রের দোহাই দিয়ে তিনি আরও বলেন, কেন্দ্রের প্রাপ্য টাকা ঠিকমতো দিচ্ছেনা। আই যেটুকু পারছি সেটুকুই দিচ্ছি আপনাদের। এরপরই মুখ্যমন্ত্রী উপস্থিত অধ্যাপকদের জিজ্ঞেস করেন, আপনারা খুশি তো? কিন্তু উত্তরে ইতিবাচক সারা দিতে দেখা যায়নি তাঁদের। ফলে তাঁরা যে মোটেই খুশি হননি সেটা স্পষ্ট এদিন।