১৪-০ ভোটে বনগাঁ তৃণমূলের, বিজেপির মামলা খারিজ হাইকোর্টে

0
957

কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে বৃহস্পতিবার কড়া নিরাপত্তায় বনগাঁ পুর চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর ভোটাভুটি হল। ২২ আসনের পুরসভার ১৪-০ ব্যবধানে তৃণমূল কংগ্রেস বনগাঁ পুরবোর্ড দখলে রাখলেও ফের হাইকোর্টের দ্বারস্থ বিজেপি হয়েছিল বিজেপি। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি শেখর ববি শরাফ দুপক্ষের বক্তব্য শোনার পর নিয়মিত বেঞ্চেই পাঠিয়ে দেন। বিচারপতি এদিন জানিয়ে দিয়েছেন, জরুরি ভিত্তিতে এই মামলার শোনার ব্যাপার নেই। ফলে সকালে জারি করা স্থগিতাদেশ বাতিল করে দিয়েছেন বিচারপতি শেখর ববি শরাফ। বিজেপির দাবি ছিল, যাঁরা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা এনেছিলেন তাঁরাই এখন তৃণমূলে চলে গেছেন। তাই আজকের অনাস্থা ভোট বৈধ নয়। এ প্রসঙ্গে বিচারপতির পর্যবেক্ষণ, ‘আপনারা কারও মন কীভাবে পরিবর্তন করতে পারেন! তার ওপর আইনের কোনও হাত নেই’। এরপর মামলাটি প্রয়োজনে নিয়মিত বেঞ্চে করতেই পারেন আবেদনকারীরা।ফলে বৃহস্পতিবারের অনাস্থা বৈঠক আপাতত বৈধ বলেই গণ্য হল।
এদিন হাইকোর্টের নির্দেশে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছিল বারাসতে উত্তর ২৪ পরগণার জেলাশাসকের কার্যালয় চত্বরে। বিশাল পুলিশবাহিনীর পাশাপাশি মোতায়েন করা হয়েছিল র‌্যাফ ও জলকামানও। বিজেপির অভিযোগ, ১৩ তৃণমূল কাউন্সিলর ও এক কংগ্রেস কাউন্সিলরের জন্য পুলিশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হলেও বিজেপি কাউন্সিলরদের জন্য কার্যত কোনও নিরাপত্তা ছিলনা। ফলে তাঁরা আতঙ্কে জেলাশাসকের দফতরে যেতেই পারেননি বলে দাবি তাঁদের। এই নিয়ে বিজেপি কাউন্সিলররা ফের কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেন। অপরদিকে উত্তর ২৪ পরগণার জেলাশাসক চৈতালি চক্রবর্তী এদিন জানিয়েছেন, কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে বনগাঁ পুরসভার অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর ভোটাভুটি হয়েছে। সেখানে ১৪ জন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি অনাস্থার বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন। যদিও নিরাপত্তা নিয়ে বিজেপি কাউন্সিলরদের অভিযোগ মানতে তিনি অস্বীকার করেন এদিন।