সব জেলা পরিষদই তৃণমূলের দখলে, বিরোধীশূন্য ৮

0
208

রাজ্যের সব জেলা পরিষদই এসেছে তৃণমূলের হাতে। ৯টি জেলা পরিষদ বিরোধীশূন্য। পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, হুগলি, বীরভূম, বাঁকুড়া, জলপাইগুড়ি, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় বিরোধীরা জেলা পরিষদে একটি আসনও পায়নি। আলিপুরদুয়ারে ১, নদিয়ায় ২, উত্তর দিনাজপুরে ২, দক্ষিণ দিনাজপুরে ১, মুর্শিদাবাদে ১, হাওড়া ১, ঝাড়গ্রামে ৩ কোচবিহারে ১, মালদায় ৩টি আসন পেয়েচে বিরোধীরা। তাদের সবথেকে ভালো ফল পুরুলিয়ায়। সেখানে ২৫টি আসনের ১৩টি দখল করেছে তারা। কয়েকটি আসনে চূড়ান্ত ফল আসা বাকি।
পঞ্চায়েতের ভোট গণনার শেষে দেখা যাচ্ছে, গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতির সর্বত্রই অনেক এগিয়ে তৃণমূল। বহু দূরের দ্বিতীয় বিজেপি। বাম-কংগ্রেসকে কার্যত দূরবীণ দিয়ে খুঁজতে হচ্ছে। গ্রাম পঞ্চায়েতে তৃণমূল অনেক এগিয়ে। নাগালের মধ্যে নেই বাকি বিরোধীরা। বিজেপি বেশিরভাগ জায়গাতেই দ্বিতীয় স্থানে আছে বটে, কিন্তু সে বড়ো সুদূরের দ্বিতীয়। তবে জঙ্গলমহলের জেলাগুলিতে তুলনায় বিজেপির ফল ভালো।
গতবার, ২০১৩ সালে ১৩টি জেলা পরিষদের মধ্যে সবকটিতেই জিতেছিল তৃণমূল। এবার ২০টি জেলা পরিষদের জন্য গণনা চলছে। মাত্র ২টি করে আসন ছিল বাম ও কংগ্রেসের। পঞ্চায়েত সমিতির ৫৩০৬ আসন ছিল তৃণমূলের। বিজেপির ৩৩টি, বামেদের ২৮২৯টি এবং কংগ্রেসের ৯১৮টি, অন্যান্যদের ১৫৮টি। গ্রামপঞ্চায়েতে ২৫,১৭৫ আসন ছিল তৃণমূলের হাতে। বামেদের হাতে ১৫,৬১৪, কংগ্রেসের হাতে ৫৪৯৫, বিজেপির ৫৮৪ ও অন্যান্যদের ১৯৩২টি। ইতিমধ্যেই গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৬,৮১৪টি আসন বিনা লড়াইয়ে এসে গিয়েছে তৃণমূলের হাতে।