সুরুল জমিদার বাড়ির ঐতিহ্য ঝাড়বাতি

0
37

আজ থেকে ৩০০ বছর আগে এই বাংলায় নদীপথেই ছিল যাতায়াত ও বাণিজ্য। তখন ব্রিটিশ আমল, বীরভূমের আজকের কোপাই নদী ছিল বেশ চওড়া। তাই গঙ্গা নদী থেকে কাটোয়ার বুক চিরে অজয় বা শাখা নদী কোপাই ধরে চলাচল করত সওদাগরদের নৌকা।


সে রকমই এক নৌকায় চেপে শান্তিনিকেতনের অদূরে পৌঁছায় সরকার পরিবার। এরপর ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছ থেকে জমিদারি পান তাঁরা। তৈরি হয় বিশাল প্রাসাদ। আজ থেকে ২৮৪ বছর আগে এই জমিদার বাড়ির প্রাণপুরুষ মা দুর্গার কাছে মানত করেন। এবং সেটা পূরণ হওয়ায় পরের বছরই শান্তিনিকেতনের সুরুল গ্রামের সরকার বাড়িতে শুরু হয় দুর্গাপুজো।
এই জমিদারবাড়ির পুজোর মূল আকর্ষণ প্রাসাদের ঝাড়বাতিগুলো। এই সরকার বংশের কোনও এক বংশধর খাস বেলজিয়াম থেকে আনিয়ে ছিলেন কাচের বিভিন্ন ঝাড়বাতি। তারপর থেকে প্রতিবছর বেলজিয়াম ঝাড়বাতির মায়াবী আলোয় সেজে ওঠে সুরুলের জমিদারবাড়ি। দেবী প্রতিমাকে সাজানো হয় সোনার অলঙ্কারে।


বর্তমানে এই জমিদার বাড়িতে সদস্য সংখ্যা ১২০। বেশিরভাগ সদস্যই দেশ বিদেশে ছড়িয়ে রয়েছেন, কিন্তু পুজোর সময় সকলেই এখানে একত্রিত হন। বাড়ির সদস্যদের ভিড়ে জমে ওঠে পুজোপ্রাঙ্গণ। আর বোলপুর-শান্তিনিকেতনে কোনও বড় পুজো না থাকায় এলাকাবাসী দুধের স্বাদ ঘোলে মেটায় এই সরকার বাড়ির পুজোতেই।