কাশ্মীরে ঢালাও সার্টিফিকেট ইউরোপের প্রতিনিধিদের

0
62

জম্মু কাশ্মীরের মানুষ শান্তি ও উন্নয়ন চান। কাশ্মীরে এখন উন্নয়নের পরিবেশ। কাশ্মীর সফর শেষে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের চার সাংসদ বুধবার সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছেন, স্থানীয় রাজনীতিতে তাঁরা আগ্রহী নন। তাঁরা স্থানীয় মানুষের সঙ্গে কথা বলে বুঝেছেন, সব ঠিকই এগোচ্ছে। এই চারজন হলেন ফ্রান্সের অঁরি মালোস, থিয়েরিঁ মারিয়ানি, পোল্যান্ডের রাইজার্ড জারনেরি এবং ব্রিটেনের নিউটন ডান।
অন্যদিকে, শ্রীনগরে শুনশান রাস্তাঘাট, ঝাঁপবন্ধ দোকান বাজার, চতুর্দিকে নিশ্ছিদ্র সেনা পাহারা। শহরের নানা জায়গায় বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ। প্রতিনিধিদের পাঁচতারা হোটেলে প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ ছিল বিরোধীদের। তারই মধ্যে মঙ্গলবার বুলেটপ্রুফ গাড়িতে চেপে ‘স্বাভাবিক’ কাশ্মীর দেখতে গিয়েছিলেন ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের ২৭ জন জনপ্রতিনিধি। তাঁরা ডাল লেকে শিকারা ভ্রমণও করেছেন। শ্রীনগরে পৌঁছে বাদামিবাগে সেনাবাহিনীর ১৫ কোরের দফতরে তাঁদের সঙ্গে কথা হয়েছে সেনাবাহিনীর পদস্থ কম্যান্ডারদের সঙ্গে। বিজেপি এবং জনতা দল (ইউ)-এর দুজন ছাড়া কেউই তাঁদের কাছে যেতে পারেননি। তাঁরা গিয়ে প্রতিনিধিদের বলে এসেছেন, কাশ্মীরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক। সঙ্গে ছিলেন নবনির্বাচিত জনা কয়েক পঞ্চায়েত সদস্য। এই সফরের তীব্র বিরোধিতা করছে বিরোধীরা। তাদের প্রশ্ন, দেশের রাজনীতিকদের যেখানে যেতে দেওয়া হচ্ছে না, যেখানে কাশ্মীরের নেতানেত্রীরা গৃহবন্দি, সেখানে বিদেশি পছন্দসই লোকজনকে এলে কাশ্মীরে ঘোরানো হচ্ছে কেন? কয়েক সপ্তাহ আগে এক মার্কিন সিনেটরকে কাশ্মীরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়নি।