গরমে খান বুঝে শুনে

0
98

গরমের এই সময়ে অল্পতেই অনেকেরই নানা ধরনের অসুখ-বিসুখ হয়ে থাকে। তাই এই সময় সুষম ও পরিমিত খাবার খেতে হবে। ডায়াবেটিস এবং অন্যান্য রোগী যারা আছেন, তাদের জন্য খাবার ব্যাপারটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। গরমে বাইরের তেলে ভাজা খাবার যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলা উচিত। এর পরিবর্তে জলখাবার হিসেবে মৌসুমি ফল বা স্যালাড রাখা যায়। গরমের সময় জলবাহিত রোগের প্রকোপ বাড়ে। তাই রাস্তার শরবত বা আখের রস না খেয়ে বাইরে বের হওয়ার সময় ঘর থেকে পরিষ্কার জল দিয়ে শরবত বানিয়ে সঙ্গে রাখা ভাল। গরমে ঘামের সাথে শরীরের জল ও ইলেক্ট্রোলাইটের ঘাটতি দেখা যায়। তাই জলের পাশাপাশি ওরাল স্যালাইন বা ডাবের জল খুবই উপকারী। এছাড়া প্রতিদিন ৭-৮ বছরের বাচ্চাদের ৫-৬ গ্লাস জল এবং বড়দের ১০-১২ গ্লাস জল খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে। গরমে ফুড পয়জনিং বেশি হয়, তাই এ সময় প্রাণীজ প্রোটিনের পরিবর্তে প্লান্ট প্রোটিন যেমন, নানা রকম ডাল, চিনাবাদাম, কাজু বাদাম ইত্যাদিসহ শাকসবজি খাওয়া ভাল। এছাড়া গরমে নানা ফলমূল, তরজুম, আম, কাঁঠাল, লিচু, আনারস, কলা, বাতাবি লেবু, পেঁপেসহ বিভিন্ন ফলমূল বেশি করে খাওয়া উচিত। এতে শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রিত থাকে এবং প্রয়োজনীয় পুষ্টির চাহিদা পূরণ হয়। তবে গরমে খাবার যাই হোক না কেন, তা খেতে হবে খুব হিসাব করে ও নিয়ম মেনে। গরমে খাবারের ব্যাপারে সচেতন থাকলে শরীর রোগমুক্ত সুস্থ ও সবল রাখা সম্ভব।