পাইলটের উপস্থিত বুদ্ধিতে বাঁচল ১২৫টি প্রাণ

0
47

মাঝ আকাশে বিমানের ককপিটের উইন্ডশিল্ডের কাঁচ ভেঙে বিপত্তি। বিকল হয়ে যায় কয়েকটি যন্ত্রপাতিও। কোনও রকমে অভিজ্ঞতার উপর ভর করে নির্বিঘ্নে অবতরণ করেন পাইলট। রাতারাতি হিরো হয়ে গেলেন সিচুয়ান এয়ারলাইন্সের এয়ারবাস এ৩১৯ এর পাইলট। তাঁর উপস্থিত বুদ্ধির জোরেই বাঁচল প্রায় ১২৫ প্রাণ। সোমবার চিনের চোংকিয়াং প্রদেশের সেন্ট্রাল চাইনিজ মিউনিসিপ্যালিটি থেকে তিব্বতের লাসার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে বিমানটি। কিন্তু প্রায় ৩৩ হাজার ফুট উচ্চতায় আচমকাই বিকট শব্দে সহকারী পাইলটের ডান দিকের উইনশিল্ডের কাঁচ ভেঙে যায়। সিটবেল্ট বাধা থাকা সত্ত্বেও কেবিনের বাইরে চলে যাওয়ার উপক্রম হয় সহকারী পাইলটের। অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা করতে গিয়ে প্রধান পাইলট জানান, কাঁচ ভাঙার সঙ্গে সঙ্গেই কেবিনের বায়ু চাপ একেবারেই কমে যায়। নি:শ্বাস নিতেও কষ্ট হচ্ছিল। সহকারী পাইলটের অবস্থা আরও খারাপ। কোনওরকমে তাকে ভেতরে ঢোকানো হয়। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘প্রচন্ড ঝাঁকুনি হচ্ছিল। চোখে কিছুই দেখতে পাচ্ছিলাম না। রেডিও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সমস্ত জিনিস কেবিনের মধ্যে ভাসছিল। অধিকাংশ যন্ত্রই কাজ করছিল না। শুধু অভিজ্ঞতার উপর ভর করেই যন্ত্রপাতির সাহায্য ছাড়াই দক্ষিণের চেংড়ু শহরে অবতরণ করতে সক্ষম হই।’ চিনের অসামরিক বিমান মন্ত্রকও জানিয়েছে, কয়েক বিমানের কয়েকজন কর্মী সামান্য আহত হয়েছেন। যাত্রীরা সবাই সুস্থ রয়েছেন।