স্পনসর থেকে আয় কমেছে রাশিয়া বিশ্বকাপে

0
32

বিশ্বকাপের স্পনসরশিপের মূল্য কমছে। ২০১৪ সালে ব্রাজিল বিশ্বকাপ থেকে ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে দেখা যাচ্ছে এই অধোগতি। নিয়েলসন স্পোর্টস রিসার্চ জানাচ্ছে, স্পনশরদের কাছ থেকে আয় ১৬২৯ মিলিয়ন ডলার থেকে কমে গিয়েছে ১৪৫০ মিলিয়ন ডলারে। নিয়েলসন বলছে, এবারের বিশ্বকাপে আগের দুই বারের তুলনায় স্পনসর জোটানো কঠিন হয়েছে। কিন্তু চিনের একদল নতুন স্পনসর এ যাত্রা বাঁচিয়ে দিয়েছে ফিফাকে। ২০১৫ সালে ফুটবল জগতে দুর্নীতির কেলেঙ্কারির পর দীর্ঘদিনের স্পনসর জনসন অ্যান্ড জনসন, ক্যাস্ট্রল, কন্টিনেন্টাল ফিফার সঙ্গে যোগ ছিন্ন করেছে। চিনের সবথেকে বড় বাণিজ্যিক সম্পত্তির কোম্পানি ওয়ান্ডা গ্রুপ এবার ফিফার অফিসিয়াল সাতটি স্পনসরদের মধ্যে একটা। বাকিরা হল কোকাকোলা, অ্যাডিডাস, গাজপ্রম, কাতার এয়ারওয়েজ, ভিসা আর হুন্ডাই। চিনা স্পোর্টস কোম্পানি কোম্পানি ইনফ্রন্ট মিডিয়া ওয়ান্ডারই অংশ। এশিয়ার ২৬টি দেশে ২০২২ পর্যন্ত বিশ্বকাপের মিডিয়া রাইট নিয়েছে। এছাড়া, স্পনসরদের মধ্যে হিসেনস, ভিভো, মেংনিউ চিনা কোম্পানি। রাশিয়ায় দই আর ঘোল সরবরাহ করার একমাত্র সত্ত্বাধিকারী হল মেংনিউ। তবে কাতারে পরের বিশ্বপে আয় বাড়বে বলে জানাচ্ছে নিয়েলসন। তখন মধ্য এশিয়ার কোম্পানিগুলি এগিয়ে আসবে।