বহিষ্কার তো হল, এবার কোন পথে ঋতব্রত?

0
28

বহিষ্কারের সিদ্ধান্তে সিলমোহর এখন কেবল সময়ের অপেক্ষা। ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেও সে কথা জানেন। একই সঙ্গে তিনি এও জানেন তাঁর দলীয় পদ কাড়া হলেও সাংসদ পদ কাড়ার অধিকার নেই পার্টির। এ তথ্য জানে অন্য রাজনৈতিক দলগুলিও। প্রশ্ন হল, এরপর কী করবেন রাজ্যসভার এই সাংসদ?

সোশ্যাল মিডিয়ায় গুঞ্জন, ঋতব্রত যোগ দেবেন বিজেপিতে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সেই গুঞ্জন বাড়ছে। কিন্তু এ জল্পনা কতটা সত্যি তা নিয়ে যথেষ্ট প্রশ্ন রয়েছে। দল যখন তাঁর শৃঙ্খলাভঙ্গের বিষয়টি নিয়ে গুরুত্বসহকারে চর্চা শুরু করেছিল, তখন থেকেই বিভিন্নভাবে নিজের ঘুঁটি সাজাতে শুরু করেন তরুণ এই নেতা। অর্থনৈতিক দুর্নীতিতে অভিযুক্ত এক প্রাক্তন সাংসদের সঙ্গে তাঁর দহরম মহরম ছিল চোখে পড়ার মত। সেই সাংসদের এক সংবাদমাধ্যমকে প্রমোট করার ব্যাপারেও উদ্যোগী ভূমিকা নেন ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সাংসদের সঙ্গে রাজ্যের শাসকদলের দূরত্ব এখন অনেক। ফলে স্বভাবতই মনে করা হয়েছিল ঋতব্রতও শাসকদলের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখবেন।

কিন্তু এবার আই ফোন কিংবা দামি ঘড়ি দিয়ে চোখ ধাঁধিয়ে দেওয়ার মতই মাস্টারস্ট্রোক দিয়ে চোখ ধাঁধিয়ে দিতে চলেছেন ঋতব্রত, এমনটাই জানিয়েছে বিশেষ সূত্র। জানা গেছে কালীঘাটের সদর দফতরে পৌঁছনোর পথ খুঁজছিলেন তিনি। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, শেষ পর্যন্ত সে পথ পেয়েও গেছেন তিনি।