জাতিদ্বেষ বাড়ছে ফ্রান্সে

0
88

১৩ বছর আগে প্যারিসের উপকণ্ঠে এক ইহুদি যুবককে যন্ত্রণা দিয়ে মারা হয়েছিল। তাঁর স্মৃতিতে লাগানো হয়েছিল একটি গাছ। সেই গাছটি কেটে ফেলা হয়েছে।
ফ্রান্সে ক্রমবর্ধমান জাতিবিদ্বেষের তালিকায় এটি নবতম সংযোজন। ইহুদিদের হাতে রয়েছে প্রচুর টাকা। সেই বিশ্বাস থেকে ইলান হালিমিকে অপহরণ করেছিল একটি গ্যাং। তাঁর পরিবারের কাছে দাবি করা হয়েছিল মোটা মুক্তিপণ। তিন সপ্তাহ ধরে অকথ্য অত্যাচারের পর ২৩ বছরের সেলফোন সেলসম্যান ইলানের দেহ পাওয়া গিয়েছিল দক্ষিণ প্যারিসের এক রেলস্টেশনের ধারে।
গত সোমবার পুরকর্মীরা বার্ষিক স্মরণ অনুষ্ঠনের জন্য জায়গা ঠিক করতে গিয়ে দেখেন, ইলানের স্মরণে লাগানো গাছটি কেটে ফেলা হয়েছে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। ইউরোপে সবথেকে বেশি ইহুদি বাস করেন ফ্রান্সে। পরপর এমন ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্কিত তাঁরা।
সরকারি পরিসংখ্যান বলছে, গতবছর ফ্রান্সে জাতিবিদ্বেষের ঘটনা বেড়েছে ৭৪ শতাংশ। ২০১৭ সালে ঘটেছিল ৩১১টি। ২০১৭ সালে তা বেড়ে হয়েছে ৫৪১টি। বিষের মতো ছড়াচ্ছে জাতিদ্বেষ মানছে সরকারও। গত দুদিনে দুটি আলাদা ঘটনায় প্যারিসের পোস্টবক্সে আঁকা হয়েছে স্বস্তিকা চিহ্ন। রবিবার মধ্য প্যারিসে বাগেল বেকারির জানলায় হলুদ স্প্রে করে লেখা হয়েছে, জুদেন বা ইহুদিদের জন্য জার্মানি।
শিল্পী ক্রিশ্চিয়ান গুয়েমি পোস্টবক্সে এঁকেছিলেন গণহত্যায় বেঁচে যাওয়া সিমোন বেলের মুখ। ফ্রান্সে অত্যন্ত সম্মানিত সিমোন বেল মারা যান গতবছর। তিনি ছিলেন প্রাক্তন বিচারমন্ত্রী। সেই ভেলের ছবিকে বিকৃত করা হয়েছে।
এর আগে ২০১১ সালে তুলুসে এক ইহুদি পুরোহিতকে এবং একটি ইহুদি স্কুলের তিনটি শিশুকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ২০১৫ সালে প্যারিসের একটি সুপার মার্কেটে আইএস জঙ্গিরা খুন করেছিল চারজনকে।